• রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণবাহী বিমান অবতরণের অনুমতি মিলেছে: ইরান দূতাবাস

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধদের জুলুম নির্যাতন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা মুসলমানদের জন্য ইরানি ত্রাণবাহী কার্গো বিমান অবতরণের অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।

ঢাকায় ইরান দূতাবাস আজ (মঙ্গলবার) রেডিও তেহরানকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, ত্রাণসামগ্রী নিয়ে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা বাংলাদেশে যাবেন। তাঁদের সঙ্গে থাকবেন উপমন্ত্রী পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা। ত্রাণবাহী বিমানটি কয়েক দিনের মধ্যেই চট্টগ্রাম পৌঁছবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এর আগে ইরানের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ত্রাণ ও উদ্ধার সংস্থার প্রধান মোর্তেজা সালামি রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনাকে জানিয়েছে, একটি কার্গো বিমান করে খুব শিগগিরই ৯৫ টন ত্রাণ যাবে বাংলাদেশে।

মোর্তেজা সালামি জানান, প্রাথমিকভাবে ৪০ টন ত্রাণ পাঠানোর চিন্তা করা হয়েছিল কিন্তু বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা মুসলমানদের সংখ্যা ও প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করে ইরান স্বেচ্ছায় তা বাড়িয়ে এখন ৯৫ টন করেছে। ইরানি ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে শুকনো খাবার, ওষুধ ও কাপড় থাকছে।

ইরানের এ কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিকভাবে এসব ত্রাণ-সামগ্রী মিয়ানমারে পাঠানোর কথা ভাবা হয়েছিল কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরোধিতার কারণে পরে বাংলাদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ইরান সব সময় রোহিঙ্গা মুসলমানদের সমস্যা সমাধানে সোচ্চার ছিল।  ইরানের সর্বোচ্চ নেতা ও প্রেসিডেন্ট রোহিঙ্গাদের ওপর হত্যা-নির্যাতনের নিন্দা জানিয়ে সমস্যা সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের জন্য মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বানের পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১২

 

 

২০১৭-০৯-১২ ১৫:৫৩ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য