• ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন
    ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন সরকারের সময় শেষ হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।  

আজ (মঙ্গলবার) দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয়তাবাদী কৃষক দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। খন্দকার মোশাররফ উল্লেখ করেন, জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি আয়োজিত সমাবেশ থেকে জনগণ সরকার ও আওয়ামী লীগকে বার্তা দিয়েছে যে, সরকার আর বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারবে না, তাদের দিন শেষ।

তিনি বলেন, ২০১৪ সাল থেকে তারা (আওয়ামী লীগ) গায়ের জোরে ক্ষমতায় রয়েছে, জনগণ সেটা এবার আর হতে দেবে না। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন জনগণ আর শেখ হাসিনার অধীনে হতে দেব না।

মোশাররফ বলেন, আগামী নির্বাচন হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। আর এজন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সহায়ক সরকারের রূপরেখা যথাসময় ঘোষণা করবেন। আর সেই রূপরেখা নিয়ে আমরা জনগণের কাছে যাবো।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু

এদিকে, সরকারের তথ্যমন্ত্রী বলেছেন, শেখ হাসিনা ও সংবিধানের অধীনে নির্বাচন না করার ঘোষণার মধ্য দিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ‘ভূতের সরকারের’ অধীনে নির্বাচন করার কথা বলেছেন।

আজ (মঙ্গলবার) সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খালেদা জিয়ার দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে ইনু অভিযোগ করেন, ‘কার্যত তিনি (খালেদা জিয়া) ভূতের সরকার বা অস্বাভাবিক সরকার প্রতিষ্ঠার ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের পাঁয়তারা করলেন।’

গত রোববার ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশে খালেদা জিয়া সরকারের উদ্দেশে বলেছেন, জনপ্রিয়তা থাকলে নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন। শেখ হাসিনার অধীনে তো নিরপেক্ষ নির্বাচন হবেই না।

বেগম খালেদা জিয়ার দেওয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত আজকের  সংবাদ ব্রিফিংয়ের তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন না করার জন্য খালেদা জিয়ার ঘোষণার মানে হলো সংবিধানের অধীনে নির্বাচন না করার ঘোষণা। উনি বাংলাদেশকে সংঘর্ষের দিকে অস্বাভাবিক পথে ঠেলে দেওয়ার চক্রান্তের জাল বুনছেন। এটি দুর্ভাগ্যজনক।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/১৪

 

২০১৭-১১-১৪ ১৭:৫০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য