• ইরান থেকে আগত বিশিষ্ট আলেম হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন ড. জাওয়াদ মাজলুমী
    ইরান থেকে আগত বিশিষ্ট আলেম হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন ড. জাওয়াদ মাজলুমী

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) ও ইসলামি ঐক্য সপ্তাহ উপলক্ষে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় ‘মুসলিম বিশ্বের বর্তমান সংকট ও ইসলামি ঐক্য’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পবিত্র কুরআন তিলাওয়াতের পর স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মাননীয় কাউন্সেলর জনাব সৈয়দ মুসা হুসাইনি।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অ্যাডভোকেট এ কে এম বদরুদ্দোজা। তিনি তার প্রবন্ধে 'বিংশ ও একবিংশ শতাব্দিতে মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন উত্থান পতন ও মুসলিম উম্মাহর বর্তমান সংকট' নিয়ে আলোচনা করেন।

ঢাকায় নিযুক্ত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের মাননীয় রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ওয়ায়েজি দেহনাবি

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান জনাব আবুল কালাম আজাদ এমপি। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের মাননীয় রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ওয়ায়েজি দেহনাবি ও ইরান থেকে আগত বিশিষ্ট আলেম হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন ড. জাওয়াদ মাজলুমী। অনুষ্ঠানটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক. ড. আব্দুল্লাহ আল-মারুফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মাননীয় কাউন্সেলর জনাব সৈয়দ মুসা হুসাইনি

বক্তারা বলেন: মহানবী (স.) রহমতস্বরূপ প্রেরিত হয়েছেন। তিনি শুধু মুসলমানদের জন্য রহমত ছিলেন তা নয়, সমগ্র বিশ্বের জন্যও তিনি রহমত স্বরূপ ছিলেন। ইসলামের শত্রুরা আমাদেরকে বিভিন্ন নামে বিভক্ত করে আমাদের মাঝে বিচ্ছেদ ঘটিয়েছে। আমাদের উপর কর্তৃত্ব করার জন্য তারা এ কৌশলের আশ্রয় নিয়েছে। অথচ যদি খ্রিস্টানদের তাকাই তাদেরকে বাইরে থেকে দেখলে একদল মনে হলেও আসলে কি তাদের মাঝে কোনো বিভক্তি নেই? আমরা মুসলমানরা কেন দলে দলে বিভক্ত? শিয়া সুন্নি উভয়েরই প্রভু আল্লাহ। আমাদের কুরআন এক, নবী এক, তাহলে এত ভেদাভেদ কেন? আমাদেরকে এসব ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আজ মধ্যপ্রাচ্যের যেসব দেশের শাসকরা ইসলামের পতাকাবাহী বলে নিজেদেরকে দাবি করে, তাদেরকে জাতিসংঘের সভাগুলোতে ফিলিস্তিনের পক্ষে কথা বলতে দেখা যায় না। কিন্তু গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উচ্চ কণ্ঠে ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং ফিলিস্তিনিদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

পবিত্র কুরআনে বলা হচ্ছে, যদি তোমাদের মধ্যে থেকে দু’টি দলের মাঝে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয় তবে তোমরা তাদের মাঝে মীমাংসা করে দাও। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমরা পবিত্র কুরআনের এ আয়াতের বাস্তবায়ন দেখতে পাই না।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে কোন দেশ এগিয়ে না এলেও এক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূমিকা প্রসংশনীয় ও কৃতজ্ঞতার দাবিদার।

অ্যাডভোকেট এ কে এম বদরুদ্দোজা

বক্তারা সৌদি আরবের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে বলেন: আগে শরীয়তগত দিক থেকে সৌদি আরবে নারীদের ড্রাইভিং করা হারাম ছিল। বর্তমানে সে নিষেধাজ্ঞা তুলে দিয়ে হালাল করা হয়েছে। তাহলে আগে যে হারাম ছিল সেটা কি ভুল ছিল। নারীদের স্টেডিয়ামে যাওয়াও নিষিদ্ধ ছিল। এখন সেটারও বৈধতা দেয়া হল। চলতি বছরের আগে ১২ রবিউল আওয়াল সৌদি আরবে ছুটি ছিল না কিন্তু এ বছর ছুটি প্রদান করা হয়েছে। তাহলে আগে যে মিলাদুন্নবী (স.) কে বিদআত বলা হতো আজ সেটা কি বিদআতের তালিকা থেকে মুক্ত হয়ে গেল?

সৌদি আরবের বর্তমান শাসক পরিবার জোর করে এ ভূখণ্ড দখল করেছে এবং তারা জোর করেই হারামাইন শারিফাইনের খাদিম হয়ে আমাদের উপর তা চাপিয়ে দিয়েছে। অথচ হারামাইন শারিফাইন কারো ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়,  এটা সমগ্র মুসলিম উম্মাহর সম্পদ এবং সমগ্র মুসলিম উম্মাহ এর খাদেম।

এ আলোচনা সভার অপর আকর্ষণ ছিল কবি নজরুল ইসলাম রচিত মহানবী (স.) এর শানে কালজয়ী বিভিন্ন নাত পরিবেশন। নাত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট কণ্ঠ শিল্পী সালাউদ্দীন আহমেদ ও তার দল।

প্রসঙ্গত, ইরানের ইসলামি বিপ্লবের স্থপতি ও মহান নেতা ইমাম খোমেনি (রহ.) ১২ রবিউল আওয়াল থেকে ১৭ রবিউল আওয়ালকে ইসলাম ঐক্য সপ্তাহ হিসেবে ঘোষণা দেন। বর্তমানে বিশ্বের মুসলিম দেশগুলোতে এ সপ্তাহ উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে থাকে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা।#

পার্সটুডে/মো.আবু সাঈদ/আমির হুসাইন/আশরাফুর রহমান/২

২০১৭-১২-০২ ১৬:০৮ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য