বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আগামী নির্বাচন হতে হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ ইসির মাধ্যমে। এখানে অন্য কোনো ’হাঙ্কি-পাঙ্কি’ করে লাভ হবে না। এই দেশের মানুষ সেটাকে মেনে নেবে না, গ্রহণও করবে না। দেশে এবং দেশের বাইরে কোথায় তা গ্রহণযোগ্যতা পাবে না।

তবে, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মধ্যবর্তী বা আগাম নির্বাচনের কোনো পরিকল্পনা বর্তমান সরকারের নেই। নির্বাচন নিয়মমাফিক যথা সময়ে অনুষ্ঠিত হবে। সেটি নির্বাচন কমিশনই আয়োজন করবে।

 আজ (বুধবার) ৬ ডিসেম্বর স্বৈরাচার পতন ও গণতন্ত্র’ দিবস উপলক্ষে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি 'সাগর-রুনি মিলনায়তনে' এক আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল বলেছেন, এখনও সময় আছে কথা বলুন, আলোচনা করুন। আলোচনা ছাড়া, কথা বলা ছাড়া গণতন্ত্রকে কখনো সফল করা যায় না। আলোচনার মাধ্যমে আমরা নিশ্চয় একটা পথ বের করতে পারবো, যা জনগণের আকাঙ্ক্ষাকে পূরণ করবে।
 
নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের কথা তুলে ধরে ফখরুল বলেন, ওই আন্দোলন আমাদের রাজনৈতিক জীবনে অনেক গভীর দাগ কেটেছিল। দুর্ভাগ্য আমাদের, তখন যে স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে মানুষ বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছে, সেই স্বৈরাচারের পতন হয় নি। 
 
এ প্রসঙ্গে,  নব্বইয়ের গণ-আন্দোলনের ছাত্র নেতা এবং বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশন সরকারের আজ্ঞাবহ। আর যে সংবিধানের দোহাই দেয়া হচ্ছে তা একটি অবৈধ সংসদ কর্তৃক  সংশোধীত। অমরা চাই নিরপেক্ষ ব্যবস্থার অধীনে নির্বাচন।  

ওদিকে, আজ (বুধবার) দুপুরে সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সেতুমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছেন, আগাম নির্বাচনের কোনো সম্ভাবনা নেই, পরিকল্পনাও নেই। আর একমাস, তিন মাস বা ছয় মাস যখনই নির্বাচন হয় তখনই আমরা নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুত আছি। তবে আমরা চাই বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচন হোক। কিন্তু তারিখ নির্ধারণের এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা অনেক আগে থেকেই নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছি। এরই মধ্যে আমরা জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে প্রার্থীর খসড়া তালিকা তৈরি করে ফেলেছি। নির্বাচন কমিশন (ইসি) যখনই নির্বাচন দেবে, আমরা তখনই নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত আছি।#


পার্সটুডে/আব্দুর রহমান খান/গাজী আবদুর রশীদ/৬
 

২০১৭-১২-০৬ ২১:২৩ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য