বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, সবমিলিয়ে ব্যাংকিং খাতে এখন সুশাসনের অভাব, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনা জেঁকে বসেছে। অর্থনৈতিক বৈষম্য দিন দিন বাড়ছে। উন্নয়নটা সমতাভিত্তিক হচ্ছে না। সমতাভিত্তিক উন্নয়ন না হলে তা টেকসইও হয় না।

আজ (শনিবার) জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘উন্নয়ন, গণতন্ত্র ও সুশাসন’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন। এর আয়োজন করে দ্য ঢাকা ফোরাম নামের একটি সংগঠন। সালেহউদ্দিন আহমেদ এই সংগঠনের সভাপতি।

সালেহউদ্দিন আরও বলেন, ব্যাংকিং খাত দীর্ঘদিন ধরেই নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে আছে। এখন এই খাতের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো সুশাসনের অভাব। অভ্যন্তরীণভাবে ব্যাংকিং খাতে সুশাসন বলতে কিছু নেই। ব্যাংকিং খাতের জন্য যেসব নীতিমালা, আইনকানুন, আন্তর্জাতিক রীতি আছে সেগুলো সঠিকভাবে পালন করা হচ্ছে না।

তিনি মনে করেন, সামগ্রিক অর্থনীতির সূচকগুলোর অর্জন ভালো। প্রবৃদ্ধি ছয়-এর বৃত্ত থেকে বের হওয়া গেছে। এটি ইতিবাচক। সার্বিক উন্নতি সন্তোষজনক।

দেশের রাজনৈতিক চর্চা জনগণের স্বার্থে হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেন সালেহউদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, দেশের রাজনৈতিক সহনশীলতা ও সুস্থ রাজনৈতিক চর্চার অভাব প্রকট। সবচেয়ে মারাত্মক হলো আইনের শাসনটা নেই। আইন আছে কিন্তু এর বাস্তবায়নের দীর্ঘসূত্রতা আছে। সুশাসন ছাড়া কোনো দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্ভব নয়।

রাজেকুজ্জামান রতন

এ প্রসঙ্গে বাসদ কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন রেডিও তেহরানকে বলেন, অর্থনৈতিক খাতে লুটপাট, দুর্নীতি এবং দখলদারিত্বের রাজনীতি যুক্ত হয়ে দেশে একটা অপশাসন চলছে, এটা আজ দেশবাসী ভালোভাবেই বুঝতে পারছেন। এর পেছনে ক্ষমতার প্রভাব জড়িত। এটা বাংলাদেশের বরজনীতিকেও ধ্বংস করে দিচ্ছে।

আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত ‘উন্নয়ন, গণতন্ত্র ও সুশাসন’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা সুষ্ঠু নির্বাচনের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন, সাবেক তত্ত্ববধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজউদ্দিন খান ও মইনুল হোসেন, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী, অর্থনীতিবিদ আবু আহমেদ, প্রকৌশলী এনামুল হক প্রমুখ।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/৮

 

 

ট্যাগ

২০১৮-০৯-০৮ ১৮:৫১ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য