• প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নের পথে অভিযাত্রা মসৃণ ছিল না। নানা ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে এগোতে হয়েছে। এতোকিছুর পরও দক্ষ নেতৃত্ব ও জনগণের বলিষ্ট প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। জাতিসংঘের উন্নয়ননীতি বিষয়ক কমিটি সিডিপিএ এ স্বীকৃতি দিয়েছে।

আজ (রোববার) সকালে রাজধানীর রেডিসন হোটেলে জেদ্দাভিত্তিক ইসলামি উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) আইডিবির রিজিওনাল হাবের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

দেশের অগ্রযাত্রার বর্ণনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মনুষ্য সৃষ্ট ও প্রাকৃতিকসহ নানা দুর্যোগ সত্ত্বেও বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা থেমে থাকেনি। দারিদ্রসীমা ২২ শতাংশে নেমে এসেছে। জিডিপির আকার বিবেচনায় বাংলাদেশ ৪৩ তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। আর কর্মসমতা বিবেচনায় ৩২ তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। মাথাপিছু আয় ১৭৫২ মার্কিন ডলার। গত ১০ বছরে মুদ্রাস্ফীতি ১২ দশমিক ৩ শতাংশ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮ শতাংশে। রাজস্ব জিডিপি ১০ দশমিক ৩ শতাংশ। চলতি অর্থবছর আমরা বাজেট দিয়েছি ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার। রফতানি আয় ৩৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি আমদানি আয় ৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ দশমিক ৯ মার্কিন ডলার। বৈদেশিক রেমিটেন্স বছরে ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।’  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতকে এগিয়ে নিতে কাজ করছি, ২০০ প্রকার সরকারি সেবা জনগণের হাতে পৌঁছে দিয়েছি। ১৫ কোটি তিন লাখ মোবাইল সিম এখন মানুষ ব্যবহার করে। প্রযুক্তিতে আমরা অনেক এগিয়েছি। মহাশূন্যে ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে ৫৭তম স্যাটেলাই উৎক্ষেপণকারী দেশ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছি। আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা নারী উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতিমালা করেছি। বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের অংশ গ্রহণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। নেপাল, ভুটান ও পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশের নারীরা এগিয়ে। নারী পোশাক শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে আমরা কাজ করছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় আমরা কাজ করছি। বন ও পরিবেশ রক্ষায় আমরা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। ’

বর্তমানে বাংলাদেশ একটি মানবিক সংকট মোকবেলা করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা  বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের আমরা আশ্রয় দিয়েছি। এতে আমাদের স্থানীয় লোকদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। মানবিক দিক বিবেচন করে আমরা তাদের আশ্রয় ও খাদ্য দিয়ে যচ্ছি। আমরা তাদের দেশে পাঠাতে চাই। মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি হয়েছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টির জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।’ #

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/৯

২০১৮-০৯-০৯ ১২:৩০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য