২০১৮-১২-১৬ ১২:৫০ বাংলাদেশ সময়
  • ওবায়দুল কাদের
    ওবায়দুল কাদের

বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন সরকার ও আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপাতে নিজেদের হামলার ছকেই বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আজ (রোববার) সকালে ফেনী রাজাঝি’র দিঘী পাড়ে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর পর তিনি এ কথা বলেন।

শনিবার নোয়াখালীতে নির্বাচনী গণসংযোগ করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন। এসময় তার ব্যক্তিগত সহকারীসহ আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নিজেরাই অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চেয়েছিল, উসকানি দিয়েছিল। তারা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা ও দোকানপাট ভাঙচুর করেছে। হামলার ছক তারাই তৈরি করেছে, পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত পুলিশকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, 'বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে বাধ্য করেছে হস্তক্ষেপ করতে। সে অবস্থায় মাহবুব উদ্দিন খোকন আক্রান্ত হয়েছেন। তার গায়ে ছররা গুলি লেগেছে। তাকে হাসপাতালেও থাকতে হয়নি, প্রাথমিক চিকিৎসার পর তিনি বাসায় ফিরে গেছেন। সরকার ও আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপাতে এই হামলার ছক।'

হাসপাতালে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন

বিএনপি ২০১৪ সালের মত নির্বাচন বানচাল করতে সহিংসতার পথ বেছে নিয়েছে মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি হামলায় এরইমধ্যে নোয়খালী ও ফরিদপুরে আওয়ামী লীগের দু’জন কর্মী নিহত হয়েছেন। আমাদের দলের বহু কর্মী তাদের হামলায় আহত হয়েছেন। বিএনপির কোনো কর্মীকে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ দিতে হয়নি। এ থেকে বোঝা যায়, দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে তারাই, আওয়ামী লীগ নয়।’

প্রতিনিয়ত হামলা-গুলি-গুমের অভিযোগ ফখরুলের

এদিকে, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, “বিজয়ের মাসে জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘোষণা করা হয়েছে। এই নির্বাচনকে প্রহসনে পরিণত করার জন্য বিরোধীদের ওপর সরকার সাংঘাতিক নির্যাতন নিপীড়ন চালাচ্ছে। প্রহসনে পরিণত করতে প্রতিনিয়িত বিরোধী নেতাকর্মীদের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে, হামলা করা হচ্ছে, গুলি চালানো হচ্ছে, গুম করা হচ্ছে।”

আজ (রোববার) সকাল ৯টায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো শেষে এসব কথা বলেন তিনি। বিএনপি মহাসচিব বলেন, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য আমরা সুষ্ঠু পরিবেশ চেয়েছিলাম, যা এখনও পাইনি। অথচ ভোটের বাকি মাত্র দুই সপ্তাহ।

জাতীয় স্মৃতিসৌধে মির্জা ফখরুল ইসলাম

বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকনকে গুলি এবং খায়রুল কবির খোকন ও ফজলুল হক মিলনকে গ্রেফতারের বিষয়ে ইঙ্গিত করে মির্জা ফখরুল বলেন, “দেশ একদিকে বিজয় দিবস পালন করছে। অন্যদিকে দেশে চলছে অত্যাচার, অনাচার, অন্যায়। একটি জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে অগণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত রাখা হয়েছে। বিরোধী শক্তি দমনে চলছে নানা তৎপরতা।”

তিনি বলেন, সরকার যখন বিরোধীদের ওপর নিপীড়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে, তখন নির্বাচন কমিশন তাদের অদক্ষতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তান আমাদের গণতন্ত্র বঞ্চিত করেছিল। গণতন্ত্রের অধিকার প্রতিষ্ঠা ছিল মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা। আজকেও গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য আমাদের সংগ্রম চলেছে, চলবে। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতেও আমাদের সংগ্রাম চলছে, চলবে।

এসময় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহানসহ বিএনপির বিপুল কর্মী উপস্থিত ছিলেন।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৬

খবরসহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সব লেখা ফেসবুকে পেতে এখানে ক্লিক করুন এবং নোটিফিকেশনের জন্য লাইক দিন

ট্যাগ

মন্তব্য