• সংবাদ সম্মেলনে ৪ বিচারপতি
    সংবাদ সম্মেলনে ৪ বিচারপতি

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট ঠিকভাবে চলছে না বলে অভিযোগ করেছেন সর্বোচ্চ আদালতের চার সিনিয়র বিচারপতি। আজ (শুক্রবার) এক সংবাদ সম্মেলনে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন যা নজিরবিহীন ঘটনা বিবেচনা করা হচ্ছে।

দিল্লিতে বিচারপতি জে চেলামেশ্বরের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে তিনিসহ বিচারপতি ক্যুরিয়েন জোসেফ, বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এবং বিচারপতি মদন লোকুর উপস্থিত ছিলেন।

ওই ঘটনার উত্তাপ রাজনৈতিক মহলেও ছড়িয়ে পড়াসহ ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

আজ দিল্লিতে সংবাদ সম্মেলন দেশের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের বিরুদ্ধে চার বিচারপতি প্রকাশ্যে অভিযোগের আঙুল তোলেন। তারা সুপ্রিম কোর্টে মামলা বণ্টন, বিচারপতিদের নিয়োগ থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিষয়ে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন।

বিচারপতি জে চেলামেশ্বর বলেন, ‘আদালতের প্রশাসনিক বিষয় জানাতে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে কোনো কিছুই ঠিকঠাক চলছে না বলে জানানো হয়েছিল। এর একটা বিহিত দরকার। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, আমাদের সে প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

ভারতের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র

তারা কী প্রধান বিচারপতির 'ইমপিচমেন্ট' কি চাচ্ছেন?  এই প্রশ্নের জবাবে বিচারপতিরা বলেন, এ বিষয়ে দেশ সিদ্ধান্ত নিক।

তারা বলেন, যদি এরকম চলতে থাকে তাহলে গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি ঠিক থাকবে না।  আমরা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে অনিয়ম সম্পর্কে কথা বলেছি। চার মাস আগে  প্রশাসনিক বিষয়ে কিছু ইস্যুতে আমরা চার বিচারপতি প্রধান বিচারপতিকে চিঠি লিখেছিলাম। কিন্তু তাতে কোনো ফল হয়নি।

এ প্রসঙ্গে সাবেক ইউপিএ সরকারের সাবেক আইনমন্ত্রী অশ্বিনী কুমার 'বিচার ব্যবস্থার ভাবমূর্তির জন্য বড় ক্ষতি' বলে মন্তব্য করেছেন।

সিনিয়র আইনজীবী উজ্জ্বল নিকম ওই ঘটনাকে বিচার বিভাগের জন্য ‘কালো দিন’  বলে অভিহিত করেছেন।

কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা ও সাবেক আইনমন্ত্রী সালমান খুরশিদ ওই ঘটনাকে দুঃখজনক ও বেদনাদায়ক বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের আজ এই অবস্থা হয়েছে যে গণমাধ্যমের সামনে নিজেদের কথা বলতে হচ্ছে।

কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী

একটি সূত্রে প্রকাশ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ ব্যাপারে আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

ভারতের প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী আজ সন্ধ্যায় নিজ বাসভবনে দলীয় সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেছেন।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘আজ সুপ্রিম কোর্টকে কেন্দ্র করে যে ঘটনা ঘটেছে, তাতে আমরা গভীরভাবে ব্যথিত। সুপ্রিম কোর্টের চার সিনিয়র বিচারপতি যে বিবৃতি দিয়েছেন, তাতে নাগরিক হিসেবে আমরা দুঃখিত। বিচার বিভাগ ও সংবাদমাধ্যম গণতন্ত্রের স্তম্ভ। বিচারব্যবস্থায় কেন্দ্রীয় সরকারে চরম হস্তক্ষেপ গণতন্ত্রের পক্ষে বিপজ্জনক।’

সিপিআই নেতা ডি রাজা বিচারপতি চেলামেশ্বরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ওই ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এআর/১২

 

ট্যাগ

২০১৮-০১-১২ ২০:১৬ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য