• পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
    পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের নাম না করে তাকে ক্ষমতা দেখানোর চ্যালেঞ্জ জানিয়ে দেশ থেকে বিজেপি’র বিসর্জন আসন্ন বলে মন্তব্য করেছেন।

মমতা আজ (বৃহস্পতিবার)কোলকাতার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে তৃণমূলের বর্ধিত কোরকমিটির সভায় ভাষণ দেয়ার সময় এ সংক্রান্ত মন্তব্য করেন।  

মমতা বলেন, ‘যা ইচ্ছে বলে যাচ্ছেন, ‘মিলিট্যান্ট’দের মতো কথা বলছেন সব। এক এক পার্টির নেতা। এক এক পার্টির নেতা হরেকরকম চেহারা।’ এরপরেই রাজ্য বিজেপি সভাপতির নাম না করে তিনি বলেন, ‘কেউ কেউ বলছেন ‘এনকাউন্টার’ করবো, কেউ বলছে গুলি চালাবো, কেউ বলছে বোমা মারবো, কেউ বলছে শেষ করে দেবো। আমি বলি আয় না কত ক্ষমতা দেখা না, দেখেছিস তো পঞ্চায়েতে (পঞ্চায়েত নির্বাচনে)। কত ক্ষমতা তো দেখতেই পাচ্ছ। গুলি, বন্দুক দিল্লিতে (ক্ষমতায়) আছো বলে। কিন্তু কাল যখন থাকবে না, তখন কোথায় থাকবে বাপু? আগামীকাল তো মানুষ তোমাদের বিসর্জন দেবে, থাকবে টা কোথায় শুনি?’  

মমতা আজ বিরোধী সিপিএম ও কংগ্রেসেরও তীব্র সমালোচনা করেন। তিনিবলেন, সিপিএমের লজ্জা নেই! লজ্জা, ঘৃণা, ভয়- তিন থাকতে নয়। খড়কুটো ধরে বাঁচতে হবে, বিজেপি’র পা ছুঁচ্ছে! বিজেপি’র পা ধরে বলছে, আমায় বাঁচাও, বাঁচাও, বাঁচাও। কংগ্রেস দিল্লিতে বিরোধিতা করলেও এখানে বিজেপির সঙ্গে ওদের লাইন আছে।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি জলপাইগুড়িতে এক সভায় তৃণমূলের নেতাদের এনকাউন্টারে হত্যার হুমকি দিয়েছিলেন বিজেপি’র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মমতা আজ সে প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষের নাম না করে তাকে চ্যালেঞ্জ জানান। মমতা বলেন, বিজেপি’র এত টাকা সত্ত্বেও গোটা ভারতে বিজেপি’র ধস নামছে, আগামীদিনে আরো নামবে। কারণ, ধ্বংসাত্মক রাজনীতি কখনো সভ্যতা, মানবিকতা হতে পারে না। ধ্বংসাত্মক রাজনীতি সভ্যতার উল্লঙ্ঘন।

কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, এখন তো দেশে কোনও কাজ হচ্ছে না। এখন দেশে শুধু টাকার খেলা ও লুঠের খেলা চলছে। সেই টাকা দিয়ে নির্বাচনের আগে ব্রেকফাস্ট, ডিনার, লাঞ্চ করা হচ্ছে। বিজেপিকে টার্গেট করে মমতা বলেন, ত্রিপুরায় নির্বাচনের সময় পরিবার পিছু কাউকে কাউকে দশ হাজার টাকা করে দিয়ে ভোট কেনা হয়েছে বলেও মমতা মন্তব্য করেন। পরে এজন্য পস্তাতে হবে বলেও মমতা বলেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/বাবুল আখতার/২১     

 

 

২০১৮-০৬-২১ ১৯:২৮ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য