• ভারতের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু
    ভারতের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু বলেছেন, রোহিঙ্গারা শরণার্থী নয়, অনুপ্রবেশকারী, তাদের ফেরত পাঠানো হবে। তিনি ভারতীয় সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভায় ওই মন্তব্য করেন।

আজ (মঙ্গলবার) সংসদে শিবসেনা এমপি অরবিন্দ সায়ান্ত 'রোহিঙ্গা শরণার্থী ও অভিবাসী' প্রসঙ্গ উত্থাপন করে এ পর্যন্ত কতজন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়েছে তা জানতে চান।

জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু বলেন, ‘রোহিঙ্গারা শরণার্থী নয়, তারা অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছে, তাদেরকে কোনো অধিকার দেয়া হয়নি। তথ্য পরিসংখ্যান সংগ্রহ করে তাদেরকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে।’ 

তিনি বলেন, রাজ্যগুলোকে বলা হয়েছে রোহিঙ্গাদের যাতে কোনো আইনি নথি না দেয়া হয় একথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাউসে আগেই বলেছেন। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গারা যাতে এখানে প্রবেশ করতে না পরে সেজন্য সরকার শক্ত অবস্থানে রয়েছে।

সংসদে রাজনাথ সিং

একই ইস্যুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং আজ সংসদে বলেন, সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গারা যাতে অনুপ্রবেশ না করতে পারে সেজন্য বিএসএফ এবং অসম রাইফেলসকে সতর্ক করা হয়েছে। রাজ্যগুলোকে সাম্প্রতিক নির্দেশিকায় রোহিঙ্গাদের গতিবিধিতে নজরদারি চালানোর জন্য বলা হয়েছে। গণনা ও চিহ্নিতকরণসহ সমস্ত তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ হলে তা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়য়ের  মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে কথা বলে তাদেরকে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করবে।’

সংসদে তৃণমূলের এমপি ড. সুগত বসু বলেন, ‘পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গাদের জন্য ‘অপারেশন ইনসানিয়াত’ কর্মসূচি নিয়েছে। ভারতেও চল্লিশ হাজার রোহিঙ্গা আছেন, কিন্তু আমরা কেবল বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গাদের ইনসানিয়াত দেখাব?’ 

ভারতের একটি রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু ওই প্রশ্নে ড. সুগত বসুর মন্তব্যকে ‘দুর্ভাগ্যজনক’ বলে অভিহিত করেন বলেন, ‘ভারতই কেবল একমাত্র দেশ যারা শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাব প্রকাশ করে। আমরা মিয়ানমারকেও বলেছি, ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের সুবিধা সহায়তা দেয়ার জন্য প্রস্তুত আছি।’

আজ সংসদে বিজেপি এমপি যুগল কিশোর শর্মা জম্মু-কাশ্মিরে রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে রাজ্যটিতে ১৮ হাজারের বেশি রোহিঙ্গারা আছেন এবং তারা আইনশৃঙ্খলার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেন। রোহিঙ্গাদের বহিষ্কার সম্পর্কে সরকার কী পদক্ষেপ নিচ্ছে তিনি তা জানতে চান।

সংসদে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু শরণার্থী ইস্যুতে বিবৃতি দিতে গিয়ে শ্রীলংকার শরণার্থীদের মুখ ফসকে 'তামিল শরণার্থী' বলে বসায় সংসদে গোলযোগ সৃষ্টি হয়। তামিলনাড়ুর এমপিরা সংসদে এ নিয়ে তীব্র আপত্তি জানালে স্পিকার সুমিত্রা মহাজন বলেন, উনি মুখ ফসকে বলে ফেলেছেন এবং তা সংশোধন করে নিয়েছেন। পরে সংসদের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এআর/৩১

২০১৮-০৭-৩১ ১৬:১৫ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য