• বক্তব্য রাখছেন রাহুল গান্ধী
    বক্তব্য রাখছেন রাহুল গান্ধী

ভারতে একনাগাড়ে পেট্রোপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে কংগ্রেসের ডাকা ভারত বনধে মিশ্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। ২১ বিরোধী দলের পক্ষ থেকে বনধকে সমর্থন করা হয়েছে। একই ইস্যুতে হরতাল ডেকেছিল বামপন্থি দলগুলো।

আজ (সোমবার) ‘ভারত বনধ’কে কেন্দ্র করে রাজধানী নয়াদিল্লিতে কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে বিরোধীদের প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। রাহুল গান্ধী, ইউপিএ চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংসহ অন্য নেতারা রাজঘাট থেকে রামলীলা ময়দান পর্যন্ত মিছিল করেন এবং রামলীলা ময়দানে ধর্না-অবস্থানে শামিল হন।

রামলীলা ময়দানে বন‌্‌ধের সমর্থনে সমাবেশে মনমোহন সিং, সোনিয়া গান্ধ, রাহুল গান্ধী

সেখানে রাহুল গান্ধী বলেন, ‘‘চার বছর আগে মোদী সরকারকে বিশ্বাস করেছিলেন দেশবাসী। কিন্তু এখন সেই ভুল ভেঙেছে। মানুষ বুঝতে পেরেছেন, গত চার বছরে মোদি সরকার মানুষে-মানুষে বিভেদ সৃষ্টি ছাড়া আর কিছু করেনি। নোটবন্দি করেছে। কিন্তু তাতে কালো টাকা উদ্ধার দূরে থাক, মুখ পুড়েছে সরকারের। অকারণ ভোগান্তির শিকার হয়েছেন আম জনতা।’’

সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং বলেন, ‘‘চার বছরে মোদী সরকার আম জনতার পক্ষে কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। উল্টে একের পর এক হকারী সিদ্ধান্তে নাজেহাল হয়েছেন সাধারণ মানুষ। এই সরকারের পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী।’’

এদিকে, উত্তর প্রদেশের দেবরিয়াতে কংগ্রেস সমর্থকরা জোর করে দোকানপাট বন্ধ করে দেন। এসময় দলটির কর্মী-সমর্থকরা সড়কে নেমে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

অন্ধ্রপ্রদেশে বামপন্থিদের মিছিল

মধ্য প্রদেশের উজ্জয়নীতে কংগ্রেস কর্মীরা পেট্রোল পাম্পে ভাঙচুর করাসহ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

গুজরাটে আহমেদাবাদ-মুম্বাই জাতীয় সড়কে কংগ্রেস কর্মীরা সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করলে দীর্ঘ কয়েক কিলোমিটার জুড়ে যানজট সৃষ্টি হয়।

ছত্তিসগড় ও গুয়াহাটিতে কংগ্রেস কর্মীরা সড়কে নেমে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।    

বিহারে পাপ্পু যাদব এমপি’র সমর্থকরা বাসে ভাঙচুর করে এবং পাথর নিক্ষেপ করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।  

মহারাষ্ট্রে রাজ ঠাকরের ‘নব নির্মাণ সেনা’র সদস্যরা পুনেতে বেশকিছু বাসে ভাঙচুর চালায়।  

সড়ক অবরোধ

পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন তৃণমূল বনধকে সমর্থন না করায় এখানে বনধের বিশেষ প্রভাব পড়েনি। কোলকাতার বিভিন্নস্থানে বনধ সমর্থকরা সড়ক অবরোধ করার চেষ্টা  করলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এছাড়া রাজ্যের বিভিন্নস্থানে পুলিশের সঙ্গে বনধ সমর্থকদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। পুলিশ এসব ঘটনায় বেশ কিছু মানুষজনকে গ্রেফতার করেছে।  

কোলকাতার যাদবপুরে বামফ্রন্ট সমর্থকরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুতুল দাহ করেন। ‘পেট্রোপণ্যের দাম বাড়ছে কেন মোদি সরকার জবাব দাও’, ‘আমাদের সংগ্রাম চলছে, চলবে’ ইত্যাদি স্লোগান দিয়ে বনধ সমর্থকরা মিছিল করেন। কোলকাতা পুলিশের সদর দফতর লালবাজারের ট্রাফিক সার্জেন্ট উৎপল দেবনাথ জানান, যান চলাচল স্বাভাবিক আছে বলে জানিয়েছেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এআর/১০

 

ট্যাগ

২০১৮-০৯-১০ ১৫:০৯ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য