২০১৮-১২-১৩ ১৬:০০ বাংলাদেশ সময়
  • জম্মু-কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ২ গেরিলা নিহত

জম্মু-কাশ্মিরের বারামুল্লা জেলায় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ২ গেরিলা নিহত হয়েছে। আজ (বৃহস্পতিবার) ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে সংশ্লিষ্ট এলাকায় মোবাইল ইন্টারনেট পরিসেবা স্থগিত করা হয়েছে।

পুলিশের এক মুখপাত্র বলেন, সোপোরে সন্ত্রাসীদের উপস্থিতির কথা জানতে পেরে গতকাল (বুধবার) সন্ধ্যা থেকে সেনাবাহিনী, আধাসামরিক বাহিনী ও পুলিশের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপের সদস্য সমন্বিত যৌথবাহিনী সেখানে ঘেরাও ও তল্লাশি অভিযান চালায়। এসময় লুকিয়ে থাকা সন্ত্রাসীরা নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে উভয়পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ শুরু হলে দুই সন্ত্রাসী নিহত হয়। ঘটনাস্থল থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিবারুদ উদ্ধার হয়েছে।’পুলিশ এ ব্যাপারে একটি মামলা রুজু করে তদন্ত চালাছে।

গতকাল অন্ধকার হয়ে আসায় তল্লাশি অভিযান বন্ধ থাকার পর আজ সকাল থেকে পুনরায় তা শুরু হয়। অবশেষে দীর্ঘসময় ধরে সংঘর্ষ শেষে দুই গেরিলা নিহত হলে ঘটনাস্থল থেকে তাদের লাশ উদ্ধার হয়েছে।

উদার আকাশ’ পত্রিকার সম্পাদক ফারুক আহমেদ

গত (মঙ্গলবার) রাজ্যটিতে অজ্ঞাত গেরিলা হামলায় ৪ পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছিলেন। জম্মু-কাশ্মিরের সোপিয়ান জেলার একটি পুলিশ ফাঁড়িতে গেরিলারা এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ করলে ঘটনাস্থলেই তিন জওয়ান নিহত হয়। গুরুতর আহত অন্য এক পুলিশ সদস্যকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া চিকিৎসা চলাকালীন ওই জওয়ানের মৃত্যু হয়।

জম্মু-কাশ্মিরের গভর্নর সত্যপাল মালিক চার পুলিশ সদস্যকে হত্যার তীব্র নিন্দা জানান। রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আব্দুল্লাহ ওই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে নিহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারের উদ্দেশ্যে সমবেদনা জানান।

এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের ‘উদার আকাশ’ পত্রিকার সম্পাদক ফারুক আহমেদ আজ (বৃহস্পতিবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘কাশ্মিরে গত মঙ্গলবার গেরিলাদের গুলিতে চার পুলিশ কর্মীর মৃত্যু হয়েছিল। আজ নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে দুই গেরিলা নিহত হয়েছে। এভাবে রাজ্যটিতে মৃত্যুমিছিল চলছেই। কেন্দ্রীয় নরেন্দ্র মোদি সরকার কাশ্মির সমস্যা সমাধান করতে যে চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। যেকোনো মূল্যে সেখানে শান্তি ফেরাতে হবে এটাই আমরা চাই।’ #

পার্সটুডে/ এমএএইচ/ বাবুল আখতার/১৩

 

ট্যাগ

মন্তব্য