২০১৯-০৩-২৬ ১৯:৩৫ বাংলাদেশ সময়
  • অখিলেশ যাদব
    অখিলেশ যাদব

ভারতের উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব বলেছেন, 'লোকসভা নির্বাচনে আমাদের জোটের সামনে বিজেপির আসন পাওয়াই সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে।' তিনি আজ (মঙ্গলবার) এক সংবাদ সম্মেলনে ওই মন্তব্য করেন।

অখিলেশ বলেন, ‘উত্তর প্রদেশে বিজেপি ৭৪টি লোকসভা আসন পাওয়ার স্বপ্ন দেখছে। আমাদের জোটের ফলে বিজেপিকে একটি আসন পাওয়ার জন্যও ভাবতে হবে।’

লোকসভা নির্বাচন উপলক্ষে উত্তর প্রদেশে অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টি ও বহুজন সমাজ পার্টি, নিষাদ পার্টি ও অন্যদের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচনি লড়াইয়ে শামিল হয়েছে। ভারতের বৃহত্তম ওই রাজ্যটিতে ৮০ টি লোকসভার আসন রয়েছে।

অখিলেশ বলেন, ‘আমাদের যে জোট হয়েছে তার ফলে বিজেপিকে ভাবতে হবে তারা খাতা কীভাবে খুলবে। বিজেপি দেশের জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। শিক্ষা বন্ধুদের কাছ থেকে ভোট নিয়ে তাদেরকেও প্রতারিত করেছে।’

তিনি বলেন, ‘বিজেপির বিগত পাঁচ বছরের শাসনামলে মানুষ গুণ্ডামি, কৃষকদের অপমান ও বেকারত্ব পেয়েছে। এই সরকারের সামনে কোনো ইস্যু আছে বলে মনে করি না। শুধু বিরোধী দল, বিরোধীদল ও ‘চৌকিদার’ ছাড়া অন্য কোনও বিষয়ে ওরা কথা বলতে পারছে না। তাদের কাছে সমস্ত শক্তি সত্ত্বেও, ওরা জনসমর্থন জোগাড় করতে পারছে না।’  জনগণ নির্বাচনে বিজেপিকে জবাব দেয়ার জন্য অপেক্ষা করছে বলেও অখিলেশ যাদব মন্তব্য করেন।  

ড. ইমানুল হক

এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের ‘ভাষা ও চেতনা সমিতি’র সম্পাদক ও কোলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজের সাবেক অধ্যাপক ড. ইমানুল হক আজ (মঙ্গলবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘অখিলেশ যাদবের এই দাবির অনেক আগেই প্রায় দু’মাস আগে একটা জনমত জরিপ প্রকাশ্যে এসেছিল, তাতে দেখা যাচ্ছিল বিজেপি উত্তর প্রদেশে সর্বোচ্চ  পাঁচটি আসনে পেতে পারে। পরে কেউ কেউ বলেছেন সতেরটি আসনের কথা। এর বেশি কেউ বলেনি। আমার ব্যক্তিগত ধারণা চার/পাঁচটির বেশি আসন বিজেপি উত্তর প্রদেশে পাবে না। যদি না ওরা ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোট যন্ত্র)কারচুপি করে। কারণ,  মথুরাতে গতকাল ওঁদের তারকা প্রার্থী হেমামালিনীর জনসভা ছিল। এবং মোদির পরে ওরা যাকে বিজেপির মুখ বলে মনে করছেন সেই যোগী আদিত্যনাথ বা ভোগী আদিত্যনাথের জনসভা ছিল। তাতে অধিকাংশের বেশি চেয়ার ফাঁকা ছিল। লোক হয়নি। আর একটা মনে রাখতে হবে আদিত্যনাথের যে মঠ, সেই মঠে তিনশ’র বেশি কর্মী থাকা সত্ত্বেও সেখানে সব মিলিয়ে তারা একচল্লিশের বেশি ভোট পাননি! বিজেপি গতবার জিতেছিল সুদিনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে।’

তিনি বলেন, ‘বিজেপি’র চলে যাওয়াটা সময়ের অপেক্ষা মাত্র। অখিলেশের দাবিটা উড়িয়ে দেয়ার মতো নয়। খুব বেশি হলে বিজেপি এখানে পাঁচটি আসনের বেশি পাওয়ার সম্ভাবনা কম, যদি না ইভিএমে (ইলেকট্রনিক ভোট যন্ত্র) ব্যাপক কারচুপি করতে পারে।’#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এআর/২৬

 

ট্যাগ

মন্তব্য