• পুড়িয়ে দেয়া রোহিঙ্গা বসতি
    পুড়িয়ে দেয়া রোহিঙ্গা বসতি

থাইল্যান্ডে নিযুক্ত ইরানি রাষ্ট্রদূত আজ  (মঙ্গলবার) মিয়ানমার সফর করেছেন এবং মিয়ানমারের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর হত্যা-নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন। মিয়ানমারের সঙ্গে ইরানের কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। ফলে মিয়ানমারে ইরানের স্বার্থ দেখাশোনা করেন থাইল্যান্ডে নিযুক্ত ইরানি রাষ্ট্রদূত। 

এ সম্পর্কে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি বলেছেন, মিয়ানমারের কর্মকর্তারা সমস্যা সমাধানে আলোচনা অব্যাহত রাখার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন।  এছাড়া, রোহিঙ্গা মুসলমানদের জন্য মানবিক সহায়তা পাঠানোর জন্য   ক্ষেত্র তৈরির কথাও বলেন ইরানি রাষ্ট্রদূত। পাশাপাশি সংকট সমাধানের জন্য ইরান সংলাপের উদ্যোগ নিতেও প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন তিনি। ইরান প্রথম থেকেই মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের সমস্যা সমাধানে সোচ্চার ভূমিকা পালন করে আসছে। 

গত ২৫ আগস্ট হঠাৎ করেই মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধ জঙ্গীরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর হামলা শুরু করে। তাদের গণহত্যার শিকার হয়ে এ পর্যন্ত তিন থেকে ছয় হাজার মুসলমান মারা গেছে এবং প্রায় চার লাখ মানুষ কোনোমতে জীবন নিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী পুড়িয়ে দিয়েছে রোহিঙ্গা মুসলমানদের হাজার হাজার ঘর-বাড়ি। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে চলছে তোলপাড়  এবং তীব্র চাপ ও সমালোচনা এড়াতে মিয়ানমারের কার্যত রাষ্ট্রপ্রধান ও শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পাওয়া নেত্রী অং সান সুচি আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ না দেয়ার সিদ্ধান্ত  নিয়েছেন।#

পার্সটুডে/সিরাজুল ইসলাম/১৩   

   

 

২০১৭-০৯-১৪ ০০:৪৬ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য