• প্রেসিডেন্ট রুহানি (বামে) ও ভ্লাদিমির পুতিন
    প্রেসিডেন্ট রুহানি (বামে) ও ভ্লাদিমির পুতিন

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি বলেছেন, তেহরান-মস্কো সহযোগিতা আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদার করবে। তিনি বলেন, মস্কোর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতার ফলে কূটনৈতিক উপায়ে বিভিন্ন সংকট ও চ্যালেঞ্জ নিরসন করা সম্ভব হবে। এজন্য তিনি ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে সবক্ষেত্রে সর্বাত্মক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানান।

রাশিয়ার সোচি শহরে অনুষ্ঠিত গতকালের (বুধবার) ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের অবকাশে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে এক সাক্ষাতে এসব কথা বলেছেন প্রেসিডেন্ট রুহানি। ইরান, তুরস্ক ও রাশিয়ার অংশগ্রহণে ওই বৈঠক অনুষ্ঠানের জন্য তিনি রাশিয়াকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, সিরিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যে টেকসই শান্তি এবং স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় সোচি বৈঠক একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

সিরিয়ার সার্বভৌমত্ব বজায় রেখে ইরান, রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যে সহযোগিতা জোরদার করার ওপরেও প্রেসিডেন্ট রুহানি গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়া, ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে সহযোগিতা জোরদারের অংশ হিসেবে বিভিন্ন সময় যেসব চুক্তি হয়েছে তা বাস্তবায়নের ওপর জোর দেন তিনি।

তিনি বলেন, ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক জোরদার হলে তাতে দু দেশ লাভবান হবে এবং কোনো দেশের জন্য তা ক্ষতির কারণ হবে না। পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে প্রেসিডেন্ট রুহানি পরমাণু সমঝোতা সম্পর্কে বলেছেন, ইরান কখনো আগে সমঝোতা লঙ্ঘন করবে না তবে কেউ তা লঙ্ঘন করলে নীরব থাকবে না।

ইয়েমেন ইস্যুতে প্রেসিডেন্ট রুহানি উদ্বেগ প্রকাশ করে এ সমস্যা সমাধান ও দারিদ্র্যপীড়িত দেশটিতে গণহত্যা বন্ধে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা জোরদার করার আহ্বান জানান।

বৈঠকে প্রেসিডেন্ট পুতিনও তেহরান-মস্কো সম্পর্ক জোরদারের কথা বলেছেন। তিনি জানান, সবক্ষেত্রে ইরান ও রাশিয়ার মধ্যকার সম্পর্ক উন্নত হবে। সিরিয়া সংকটের রাজনৈতিক সমাধানের পাশাপাশি ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে যৌথ প্রচেষ্টা জোরদার করতে হবে বলেও পুতিন উল্লেখ করেন। পরমাণু সমঝোতা সম্পর্কে পুতিন বলেন, এটা একটা আন্তর্জাতিক চুক্তি এবং কেউ তা লঙ্ঘন করলে কোনেভাবেই গ্রহণযোগ্য হবে না।#

পার্সটুডে/সিরাজুল ইসলাম/২৩

 

২০১৭-১১-২৩ ১৭:৫৭ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য