ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির হাতামি এবং পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদন বিষয়কমন্ত্রী রানা তানভির তেহরানে একটি সহযোগিতা চুক্তিতে সই করেছেন।

রানা তানভিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী আমির হাতামি বলেছেন,  অভিন্ন সীমান্ত ছাড়াও দু'দেশের মধ্যে গভীর ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে। তিনি বলেন, এ অঞ্চলে ইরানের পররাষ্ট্র নীতিতে পাকিস্তানের বিশেষ স্থান রয়েছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদনের ক্ষেত্রে ইরান ও পাকিস্তানের মধ্যে সহযোগিতা বিস্তার দু'দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমত, এই সহযোগিতা যতবেশি বাড়বে ততবেশি এ অঞ্চলের দেশগুলো প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জনে সক্ষম হবে। দ্বিতীয়ত, পাক-ইরান সামরিক সহযোগিতা যৌথ প্রতিরক্ষা নীতি বা কৌশল জোরদারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ইরান পাইলটবিহীন বিমান বা ড্রোন উৎপাদন, বিমান প্রতিরক্ষা শিল্প এবং বাণিজ্যিকভাবে অস্ত্র তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য ও দক্ষতা অর্জন করেছে। এ ক্ষেত্রে পাকিস্তানও ইরানের সঙ্গে সহযোগিতা গড়ে তুলতে পারে। কিছুদিন আগে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদন বিষয়কমন্ত্রী রানা তানভিরের উদ্ধৃতি দিয়ে দেশটির একটি দৈনিক জানিয়েছিল, পাকিস্তান বর্তমানে ৪০টি দেশে অস্ত্র রপ্তানি করে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ইরানের সহযোগিতা বিস্তার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং তা আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে। পাকিস্তান মনে করে মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা এ অঞ্চলে ইরানের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যা কিনা আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় খুবই জরুরি।

ইরানের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বিষয়ক চুক্তি সইয়ের পর পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদন বিষয়কমন্ত্রী রানা তানভির বলেছেন, পাকিস্তান ইরানের সঙ্গে যোগাযোগ ও সহযোগিতা বিস্তারে ব্যাপক আগ্রহী। পাকিস্তানের সামরিক বিষয়ক বিশেষজ্ঞ জেনারেল তালাআত মাসুদ বলেছেন, ইরান ও পাকিস্তান একে অপরকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে, তারা অভিন্ন সীমান্তে সন্ত্রাসীদেরকে অবাধ চলাচলের কোনো সুযোগ দেবে না। তাই দু'দেশের সেনাবাহিনী যতবেশি সহযোগিতা ও যোগাযোগ গড়ে তুলবে ততবেশি সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার হবে।

ইরানের সামরিক বাহিনীর চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাকেরি গুরুত্বপূর্ণ জ্বালানির উৎস হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা রক্ষার ওপর জোর দিয়ে বলেছেন, এ ক্ষেত্রে ইরানের বিরাট দায়িত্ব রয়েছে। তিনি বলেন, এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বিস্তারের জন্য যাতায়াত পথের নিরাপত্তা খুবই জরুরি।

ইরান প্রথম থেকেই প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বিস্তারের ওপর জোর দিয়ে আসছে। তেহরান মনে করে ইসলামাবাদের সঙ্গে সহযোগিতা বিস্তারে কোনো বাধা নেই।#

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/১৮

 

ট্যাগ

২০১৮-০১-১৮ ১৮:৩৪ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য