• পেনাল্টি থেকে গোল করার পর কারিম আনসারিফার্দসহ অন্যদের উল্লাস
    পেনাল্টি থেকে গোল করার পর কারিম আনসারিফার্দসহ অন্যদের উল্লাস

ইউরোপের সেরা দল পর্তুগালের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে ১-১ গোলে ড্র করেছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান। শেষ মুহূর্তের সহজ গোলটি মিস না করলে ইরান নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করে দ্বিতীয় রাউন্ডে চলে যেত। কিন্তু নেহায়েত দুর্ভাগ্যের কারণে চলতি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিতে হলো এশিয়ার সেরা এ দলটিকে। ইরানের সঙ্গে ড্র করে ‘বি’ গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে শেষ ষোলোতে পৌঁছেছে পর্তুগাল।

মরদোভিয়া অ্যারেনায় মঙ্গলবার দু’দলই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে। খেলার তৃতীয় মিনিটিতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর নেয়া শট রুখে দেন ইরানিয়ান গোলরক্ষক আলিরেজা বেইরানভান্দ। মিনিট ছয় পর আবার সুযোগ পেয়েছিল পর্তুগাল। তবে ফাঁকা গোলপোস্ট পেয়েও শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি হোয়াও মারিও।

ইরান গোল করার মতো প্রথম সুযোগ পায় ২২ মিনিটে। জাহানবাখশের বাড়ানো বল সরদার আজমাউনের পা ছোঁয়ার আগেই বল লুফে নেন পর্তুগিজ গোলরক্ষক রুই প্যাট্রিসিও। ৩৪ মিনিটে জাহানবাখশের ফ্রি কিক থেকে সাইদ এজ্জাতোল্লাহির হেডও রুখে দেন পর্তুগিজ গোলরক্ষক। 

৪৫তম মিনিটে পর্তুগালকে এগিয়ে নেন রিকার্দো কারেসমা। সেদ্রিক সোয়ারেসের সঙ্গে ‘ওয়ান-টু-ওয়ান’ খেলে একটু এগিয়ে গিয়ে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে ডান পায়ের বাঁকানো শটে বল জালে পাঠান এই ফরোয়ার্ড।

রোনালদোর পেনাল্টি কিক ফিরিয়ে দেন ইরানি গোলরক্ষক আলীরেজা বেইরানভান্দ

প্রথমার্ধের তুলনায় দ্বিতীয়ার্ধে বেশ উত্তেজনাপূর্ণ খেলা হয়। ৫১ মিনিটে ডি বক্সে পড়ে গিয়ে ফাউল দাবি করেন রোনালদো। রেফারি প্রথমে তাতে সাড়া দেননি। দুই মিনিট পর ভিএআরের সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির নির্দেশ দেন। সেটা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেনি ইরানি খেলোয়াড়রা। তবে তা থেকে ক্ষতিও হয়নি তাদের। রোনালদোর পেনাল্টি কিক ফিরিয়ে দেন ইরানি গোলরক্ষক আলীরেজা বেইরানভান্দ। 

৫৬ মিনিটে ভালো সুযোগ পেয়েছিল ইরান। এহসান হাজি সাফির বাড়ানো বল কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন পেপে। ৭১ মিনিটে আবার দারুণ সুযোগ পায় ইরান। কিন্তু ফাঁকায় থাকা সতীর্থ পাস না দিয়ে নিজেই লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নিয়ে সে সুযোগ মিস করেন সরদার আজমাউন। 

রোনালদোকে হলুদ কার্ড দেখাচ্ছেন রেফারি

৮১ মিনিটে লাল কার্ড পেতে পারতেন রোনালদো। ইরানি ডিফেন্ডারকে কনুই দিয়ে আঘাত করলে রিভিউ নেন রেফারি। কিন্তু হলুদ কার্ড দেখালে সে যাত্রা বেঁচে যান রিয়াল মাদ্রিদ তারকা। 

নির্ধারিত ৯০ মিনিট খেলা শেষে যোগ করা সময়ে কাঙ্ক্ষিত গোলটি পায় ইরান। এবারও সেই ভিএআরের সাহায্যে। ডি বক্সে কেদ্রিক সয়ারেসের হাতে লাগলে পেনাল্টি পায় এশিয়ার দলটি। তা থেকে গোল পরিশোধ করেন কারিম আনসারিফার্দ। আনসারিফার্দ বুলেট গতির শট ফেরানোর কোনো সুযোগই ছিল না গোলরক্ষকের।

পরের মিনিটেই দলকে এগিয়ে নেয়ার দারুণ সুযোগ এসেছিল মেহদি তারেমির সামনে। খুব কাছে থেকে এই ফরোয়ার্ড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি শট। সামান গোদোসের হেড থেকে একেবারে ফাঁকায় বল পেয়ে যান মেহদি তারেমি। কিন্তু লক্ষ্যে থাকেনি তার শট। বার ঘেঁষে বাইরে চলে গেলে হতাশায় শেষ হয় ইরানের বিশ্বকাপ। গোলটি হলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে যেত ইরান। বিদায় নিতে হতো ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালকে। 

এদিকে, ‘বি’ গ্রুপের অপর খেলায় স্পেনের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে মরক্কো। ৫ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ড নিশ্চিত করেছে স্পেন।

আগামী (শনিবার) নকআউট পর্বে ‘এ’ গ্রুপ সেরা উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলবে পর্তুগাল। পরদিন ‘এ’ গ্রুপের রানার্সআপ রাশিয়ার বিপক্ষে খেলবে স্পেন।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/২৬

ট্যাগ

২০১৮-০৬-২৬ ০৩:০৪ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য