২০১৮-১১-০৭ ০৬:২৮ বাংলাদেশ সময়
  • ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ
    ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ তার দেশের বিরুদ্ধে ‘অবৈধ ও নির্মম’ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার জন্য আমেরিকার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, মার্কিন সরকার তার এই ‘নির্বোধ আচরণের’ জন্য আবারো অনুতপ্ত হবে।

তিনি আজ এক অনলাইন ভিডিও বার্তায় বলেন, মার্কিন প্রশাসন দৃশ্যত মনে করছে অবৈধ ও নির্মম নিষেধাজ্ঞা ইরানকে এতটা যন্ত্রণা দেবে যে, ইরানি জাতি আমেরিকার সব আবদার মেনে নিতে বাধ্য হবে। কিন্তু আমেরিকা একবারও চিন্তা করছে না তার আবদারগুলো কতটা অর্থহীন, বেআইনি ও মৌলিক অধিকার পরিপন্থি।

ইরান-বিরোধী নয়া মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে ‘নির্বিচার আক্রমণ’ হিসেবে অভিহিত করে জারিফ তার বার্তায় আরো বলেন, গত ৪০ বছরে আমেরিকার বিদ্বেষী আচরণের কারণে ইসলামি প্রজাতন্ত্র অনেক ‘কঠিন সময়’ সহ্য করতে পেরেছে শুধুমাত্র তার নিজস্ব সম্পদ ও সম্ভাবনার ওপর নির্ভর করে।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আজও আমরা এবং বিশ্বব্যাপী আমাদের মিত্ররা এই নিশ্চয়তা দিচ্ছি যে, ইরানি জনগণকে সরাসরি টার্গেট করে চালানো এই অর্থনৈতিক যুদ্ধে আমাদের জনগণের তেমন কোনো ক্ষতি হবে না।

ডোনাল্ড ট্রাম্প

ছয় মাস আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেয়া এক ঘোষণা অনুযায়ী গত সোমবার থেকে ইরানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা। এবারের নিষেধাজ্ঞায় ইরানের তেল রপ্তানি ও বহির্বিশ্বের সঙ্গে ইরানের ব্যাংকিং লেনদেনকে টার্গেট করা হয়েছে।

২০১৫ সালে আমেরিকাসহ ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার ভিত্তিতে এসব নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়েছিল। গত মে মাসে ট্রাম্প ওই সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে তার দেশকে বের করে নেন।

ওয়াশিংটন এর আগে হুমকি দিয়েছিল, ইরানের তেল রপ্তানি শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে চায় তারা। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার দু’দিন আগে মার্কিন সরকার তুরস্ক, চীন, ভারত, ইতালি, গ্রিস, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও তাইওয়ানকে ইরানের কাছ থেকে তেল কেনার অনুমতি দিয়েছে ওয়াশিংটন। #

পার্সটুডে/মুজাহিদুল ইসলাম/৭

ট্যাগ

মন্তব্য