• ইসমাইল কাসেমি (বামে) ও ওয়াহিদ মাযলুমিন (ডানে)
    ইসমাইল কাসেমি (বামে) ও ওয়াহিদ মাযলুমিন (ডানে)

ইরানে 'স্বর্ণমুদ্রার সুলতান' নামে পরিচিত ওয়াহিদ মাযলুমিন ও তার সহযোগী ইসমাইল কাসেমিকে আজ ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। আজ (বুধবার) সকালে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয় বলে বিচার বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সম্প্রতি তাদের বিরুদ্ধে মারাত্মক অর্থনৈতিক দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত ফাঁসির ওই রায় দেয়। নিম্ন আদালতের রায় সুপ্রিম কোর্টেও অপরিবর্তিত থাকে।

ইরানের জাতীয় অর্থ ব্যবস্থায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অসংখ্য অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তারা দেশব্যাপী দুর্নীতির এক বিশাল নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছিল। বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণমুদ্রা লেনদেনে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে মুদ্রা বাজারকে অস্থিতিশীল করার পেছনেও তাদের হাত ছিল বলে প্রমাণ পেয়েছে আদালত। মাযলুমিনের নেতৃত্বাধীন দুর্নীতির ওই নেটওয়ার্ক অবৈধ উপায়ে অসংখ্য অর্থনৈতিক লেনদেনের পাশাপাশি ব্যাপক মুদ্রা পাচার করেছে।

গত জুলাই মাসে যখন ইরানের স্বর্ণমুদ্রা ও বিদেশি মুদ্রা বাজারে অস্থিরতা চলছিল তখন একটি খবর দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে, আর তাহলো এক ব্যক্তি দুই টন স্বর্ণমুদ্রাসহ গ্রেপ্তার হয়েছেন। গ্রেপ্তারকৃত ওই ব্যক্তিই হচ্ছেন ওয়াহিদ মাযলুমিন। এরপর তিনি 'সুলতানে সেক্কে' বা 'স্বর্ণমুদ্রার সুলতান' নামে পরিচিতি লাভ করেন।

কৃত্রিমভাবে বাজারে স্বর্ণমুদ্রার দাম বাড়াতে তিনি ২ টন স্বর্ণমুদ্রা কিনে জমা করেছিলেন। তাকে সহযোগিতা দিয়েছিলেন ইসমাইল কাসেমিসহ বেশ কয়েক জন।#

পার্সটুডে/সোহেল আহম্মেদ/১৪

ট্যাগ

২০১৮-১১-১৪ ১৮:৫৭ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য