২০১৯-০২-১১ ১৭:৩২ বাংলাদেশ সময়
  • তেহরানের আজাদি চত্বরে রচিত হলো নতুন ইতিহাস: বৃষ্টি উপেক্ষা করে মানুষের ঢল

তেহরানের আজাদি চত্বরে আজ নতুন ইতিহাস রচিত হয়েছে। ঠাণ্ডা আবহাওয়া, বৃষ্টি এবং প্রাকৃতিক প্রতিকুল পরিস্থিতির মধ্যে লাখ লাখ মানুষের সমাবেশের মধ্য দিয়ে এ ইতিহাস রচিত হয়েছে।

ইসলামি বিপ্লব বিজয়ের ৪০তম বার্ষিকীকে কেন্দ্র করে মানুষের এই মহাজমায়েত থেকে বজ্রকন্ঠে আওয়াজ উঠেছে -  ‘আমেরিকা ধ্বংস হোক, ‘ইসরাইল নিপাত যাক।

বৃষ্টি এবং প্রতিকুল পরিবেশ সত্ত্বেও মানুষের ঢল

বৃষ্টি এবং প্রতিকুল পরিবেশ সত্ত্বেও শিশু থেকে সব বয়সের নারী-পুরুষকে দেখা গেছে এ সমাবেশে। বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য অনেকে মা শিশুর প্র্যামকে প্ল্যাস্টিকে ঢেকে রেখেছেন।

সমাবেশে ইরানের সাঁজোয়া গাড়ি এবং বিমান বিধ্বংসী ব্যবস্থার প্রদর্শন করা হয়েছে। সমাবেশের মানুষ এ সব সামরিক সরঞ্জাম দেখেছে পরম কৌতূহলে। শিশুরা পরম আনন্দে সাঁজোয়া গাড়িতে চড়েছে। বা বিমান বিধ্বংসী ব্যবস্থা নাড়াচাড়া করেছে। ওগুলোতে চড়ে ছবি তুলেছে। এ ছাড়া, আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইল নিপাত যাক লেখা পতাকা পদদলিত করেছে সমাবেশের মানুষ।

সমাবেশে স্বাস্থ্য পরীক্ষা বিশেষ করে রক্তচাপ মাপা এবং রক্তে শর্করা পরীক্ষা করার ব্যবস্থা ছিল। সেখানেও ভিড় করেছে অনেকে। এ ছাড়া ছিল ছোটমনিদের ছবি আঁকার ব্যবস্থা।

মারজিয়া হাশেমি

আজাদি চত্বরের সমাবেশে ইরানের ইংরেজি চ্যানেল প্রেস টিভির সংবাদ পাঠিকা, উপস্থাপক এবং সঞ্চালক মারজিয়া হাশেমি ছিলেন। ইরানি জনগণ তাকে দেখে হাত নেড়ে আনন্দ প্রকাশ করছিলেন। সম্প্রতি অসুস্থ ভাই এবং পরিবারের সদস্যদের দেখার জন্য আমেরিকা যাওয়ার পর তিনি বিনা অভিযোগ আটক হয়ে বিশ্বের খবরের শিরোনামে উঠে এসেছিলেন।   রেডিও তেহরানকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ৪০ বছর পরে বিপ্লবের প্রতি ইরানি জনগণের আন্তরিকতা এবং উৎসর্গ মনোভাব তাকে শিহরিত করছে।

পার্সটুডে/মূসা রেজা/১১

খবরসহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সব লেখা ফেসবুকে পেতে এখানে ক্লিক করুন এবং নোটিফিকেশনের জন্য লাইক দিন

 

ট্যাগ

মন্তব্য