• হিজহবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ
    হিজহবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ

লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজহবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ বলেছেন, ইহুদিবাদী ইসরাইলের সামরিক আগ্রাসনের ঝুঁকি থেকে দক্ষিণ লেবাননের সীমান্তকে নিরাপদ করেছে হিজবুল্লাহর যোদ্ধারা।

ভাষণে হাসান নাসরুল্লাহ তার সমর্থকদের ও লেবাননবাসীকে হিজবুল্লাহ এবং আমাল আন্দোলনের প্রার্থীদের ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। আগামী ৬ মে লেবাননে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

গতকাল (শনিবার) সন্ধ্যায় লেবাননের তাইয়্যের শহরে জাতীয় নির্বাচনের এক প্রচারণী সভায় হাসান নাসরুল্লাহ একথা বলেন। তার এ ভাষণ টেলিভিশনের মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়। তিনি বলেন, দক্ষিণ লেবানন এখন ইসরাইল-বিরোধী লড়াইয়ের অন্যতম শক্ত ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে। ভাসণে হাসান নাসরুল্লাহ বলেন, ১৯৯৬ সালে হিজবুল্লাহর কমান্ডকে লক্ষ্য করে ইসরাইল বিমান হামলা চালায়। তবে সে সময় ইহুদিবাদীরা হিজবুল্লাহর কমান্ডার মুস্তাফা বদরুদ্দিনকে হত্যা করতে ব্যর্থ হয়।

হিজবুল্লাহ যোদ্ধা

ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোনগুলো প্রতিষ্ঠার পর ফিলিস্তিনিদের প্রতি ইসরাইল আগ্রাসী ভূমিকায় নেমেছে বলে তেল আবিব যে দাবি করে তা নাকচ করে সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ বলেন, ১৯৪৮ সালে অবৈধভাবে সৃষ্টির পর থেকেই ইসরাইল এই আগ্রাসী মনোভাব পোষণ দেখিয়ে আসছে।  

‌ইসরাইল দাবি করে- হিজবুল্লাহর হাতে এক লাখ ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে

হাসান নাসরুল্লাহ আরো বলেন, প্রখ্যাত শিয়া আলেম ইমাম মুসা আস-সাদ্‌র ১৯৬০ সালের দিকেই দক্ষিণ লেবাননের নিরাপত্তা রক্ষার জন্য কার্যকর ভূমিকা নিতে লেবানন সরকারের প্রতি আহ্বান জানান কিন্তু সরকার কোনা ব্যবস্থা নেয় নি এবং তার আহ্বানেরও কোনো জবাব দেয় নি। ইহুদিবাদী শত্রুদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য জনপ্রিয় আন্দোলন গড়ে তোলার কারণে সরকার ইমাম মুসা সাদ্‌রের প্রতি উদাসীন ছিল বলে মন্তব্য করেন হাসান নাসরুল্লাহ।

তিনি আরো বলেন, ২০০০ সালে প্রতিরোধের মুখে দক্ষিণ লেবাননের শহরগুলো থেকে ইহুদিবাদী ইসরাইল সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হলেও বৈরুত সরকার প্রয়োজনীয় সমর্থন দিতে ব্যর্থ হয়। এ অবস্থায় হিজবুল্লাহ দক্ষিণ লেবাননে ইহুদিবাদী বর্বরতার বিরুদ্ধে নিরাপত্তা গড়ে তোলে।#

পার্সটুডে/সিরাজুল ইসলাম/২২

২০১৮-০৪-২২ ১১:৫১ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য