• আলী বিন সামিখ আল মাররি
    আলী বিন সামিখ আল মাররি

জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সদস্যপদ স্থগিত করার আহ্বান জানিয়েছে কাতার। কাতারের জাতীয় মানবাধিকার কমিটির চেয়ারম্যান আলী বিন সামিখ আল মাররি গতকাল (শুক্রবার) জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, সৌদি আরব ও আমিরাত মানবাধিকার লঙ্ঘন অব্যাহত রয়েছে। দেশ দু'টির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

মানবাধিকার লঙ্ঘন বিষয়ক প্রতিবেদন ও বিবৃতিগুলো বিশ্লেষণের পর এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। 

কাতারের জাতীয় মানবাধিকার কমিটির চেয়ারম্যান আরও বলেছেন, কাতারের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ও সর্বাত্মক অবরোধ আরোপের মাধ্যমে যেভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হচ্ছে তা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৮ নম্বর প্রস্তাবের পরিপন্থী। 

তিনি বলেন, কাতারের বিরুদ্ধে যে আচরণ করা হচ্ছে তার কোনো কোনোটি যুদ্ধাপরাধের শামিল। 

২০১৭ সালের ৫ জুন কাতারের সঙ্গে সব ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসর। সেই সঙ্গে স্থল, সমুদ্র ও আকাশপথে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে দেশগুলো। তাদের অভিযোগ, কাতার ‘সন্ত্রাসবাদে’ সহযোগিতা করছে। তবে দোহা বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

এরপর ২০১৭ সালের ২২ জুন অবরোধ আরোপকারী চার দেশ তাদের অবরোধ তুলে নিতে পূর্বশর্ত হিসেবে কাতারের প্রতি ১৩ দফা দাবি জানায়। এর মধ্যে ছিল কাতারভিত্তিক চ্যানেল আল-জাজিরা বন্ধ করে দেওয়া, ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক সীমিত করা এবং তুরস্কের সেনাবাহিনীকে কাতার থেকে বের করে দেওয়া। কিন্তু এসব শর্ত মেনে নেয় নি কাতার।#

পার্সটুডে/সোহেল আহম্মেদ/২৩

 

২০১৮-০৬-২৩ ১৮:৫০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য