ইহুদিবাদী ইসরাইলের দখলদারিত্বের প্রতিবাদে গতকাল (শুক্রবার) ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা সীমান্তে আয়োজিত সমাবেশের ওপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে ইসরাইলি সেনারা। এতে অন্তত ১৩০ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন যার মধ্যে ২৫টি শিশু রয়েছে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আশরাফ কিদরা জানিয়েছেন, ইহুদিবাদী সেনাদের গুলিতে চারজন ডাক্তার ও সাংবাদিকও আহত হয়েছেন। এর আগে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এক বিবৃতিতে ইসরাইলের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির নিন্দা জানিয়ে বলেছিল, তেল আবিবের এ অবস্থানের কারণে আরো বহু ফিলিস্তিনির মৃত্যু হতে পারে। সংস্থাটি বলেছে, ইসরাইলের জিরো টলারেন্স নীতির কারণে মারাত্মকভাবে আশঙ্কা করা হচ্ছে যে, নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলি সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করা হবে যার ফলে অবৈধ হত্যা ও রক্তপাত বেড়ে যাবে।

ইসরাইলি দখলদারিত্ব অবসানের দাবিতে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ

ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইল অপ্রয়োজনীয় ও বাড়াবাড়ি রকমের প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার করছে যা আন্তর্জাতিক আইনের চরম লজ্জানক লঙ্ঘন বলেও উল্লেখ করেছে অ্যামনেস্টি।

গত ৩০ মার্চ থেকে গাজাবাসী ইসরাইলের দখলদারিত্ব অবসানের বিরুদ্ধে প্রতি শুক্রবার বিক্ষোভ-সমাবেশ করে আসছে। এসব বিক্ষোভ-সমাবেশে অংশ নেয়া নিরস্ত্র লোকজনের বিরুদ্ধে ইসরাইল তাদের সেনা লেলিয়ে দিচ্ছে। এ পর্যন্ত ইসরাইলের বর্বরতায় অন্তত ১৯০ জন ফিলিস্তিনি শহীদ ও ২০ হাজার আহত হয়েছেন।#

পার্সটুডে/এসআইবি/২০

ট্যাগ

২০১৮-১০-২০ ১৪:৪১ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য