• খালিদ আল-ফালিহ
    খালিদ আল-ফালিহ

সৌদি আরবের জ্বালানীমন্ত্রী বলেছেন, ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল হওয়ার পর বিশ্ব বাজারে তেলের যে ঘাটতি দেখা দেবে তা রিয়াদের পক্ষে পূরণ করা সম্ভব নয়। রাশিয়ার বার্তা সংস্থা তাস’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ অভিমত প্রকাশ করেন খালিদ আল-ফালিহ।

তিনি বলেন, প্রতিদিন ইরানের ৩০ লাখ ব্যারেল তেলের ঘাটতি উত্তোলনের মাধ্যমে পূরণ করা সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে আমাদেরকে তেলের রিজার্ভে হাত দিতে হবে।

আগামী ৫ নভেম্বর থেকে ইরানের তেল খাতের ওপর আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে। পরমাণু সমঝোতার জের ধরে ওই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হলেও গত মে মাসে মার্কিন প্রেসেডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের ঘোষণা দেন। সে ঘোষণা অনুযায়ী ইরানের তেল ও ব্যাংকিং খাতের ওপর ৫ জানুয়ারি থেকে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।

তাসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সৌদি জ্বালানীমন্ত্রী আরো বলেছেন, নভেম্বরের শুরুতে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল হওয়ার পর তেলের দাম বাড়বে না বলে কোনো গ্যারান্টি সৌদি আরব দিতে পারবে না।

বিজান জাঙ্গানে

চলতি মাসের গোড়ার দিকে ইরানের ওপর তেল নিষেধাজ্ঞা নিয়ে সৌদি যুবরাজ যে মন্তব্য করেছিলেন আল-ফালিহ সম্পূর্ণ তার বিপরীত বক্তব্য দিলেন। মোহাম্মাদ বিন সালমান দাবি করেছিলেন, সৌদি আরব এরইমধ্যে বিশ্ব বাজারে ইরানের তেলের ঘাটতি পূরণ করেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দাবি করেছেন, তিনি ইরানের তেল রপ্তানি শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে চান। সৌদি যুবরাজ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ইরানের তেল বিক্রি শূন্যতে নেমে আসলে সে ঘাটতি তিনি পূরণ করে দেবেন।

এদিকে ইরানের জ্বালানীমন্ত্রী বিজান জাঙ্গানে সোমবার বলেছেন, সৌদি আরব ও রাশিয়া তাদের সর্বোচ্চ সক্ষমতা ব্যবহার করে তেল উৎপাদন করছে এবং এর চেয়ে বেশি তেল উত্তোলন করা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। কাজেই ওই দুই দেশ মিলেও ইরানের তেলের ঘাটতি পূরণ করতে পারবে না।#

পার্সটুডে/মুজাহিদুল ইসলাম/২৩

ট্যাগ

২০১৮-১০-২৩ ০৯:০০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য