২০১৯-০৩-২০ ১৭:১৯ বাংলাদেশ সময়
  • ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি (বামে) ও ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ
    ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি (বামে) ও ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান থেকে জ্বালানি আমদানির জন্য ইরাককে আরো তিন মাস বাড়তি সময় দিয়েছে। এ নিয়ে ইরাককে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনার ক্ষেত্রে  দু দফা ছাড় দিল প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে ইরাকের জন্য প্রথম ছাড় ঘোষণা করে যার মেয়াদ গতকাল ১৯ মার্চ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ইরাক বার বার বলে আসছে দেশের জ্বালানি চাহিদা মেটানোর জন্য ইরান থেকে জ্বালানি আমদানির বিকল্প নেই। ফলে ইরানের কাছ থেকে জ্বালানি আমদানি অব্যাহত রাখার সুযোগ দিতেই হবে।

ইরান থেকে ইরাকে বিদ্যুৎ রপ্তানি

এ প্রসঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বলেছে, যেহেতু এই ছাড় ইরাকের জ্বালানি চাহিদা পূরণের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে সে কারণে বাগদাদ ইরান থেকে আরো ৪৫ দিনের জন্য জ্বালানি আমদানি অব্যাহত রাখতে পারবে। এ বিষয়ে মিত্র ইরাকের সঙ্গে আমেরিকার আলোচনা অব্যাহত থাকবে। মার্কিন ছাড়ের কারণে ইরাক প্রতিবেশী ইরান থেকে তেল ও গ্যাস কিনতে পারবে।

ইরান থেকে গ্যাস আমদানি করে ইরাক তার বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করে। দেশটিতে প্রতিদিন ১৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের প্রয়োজন যার শতকরা ৪৫ ভাগ উৎপন্ন করা হয় ইরানি গ্যাস ব্যবহার করে। এছাড়া, ইরান প্রতিদিন এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানি করে ইরাকে। এছাড়া, খাদ্য থেকে শুরু যন্ত্রপাতি, প্রাকৃতিক গ্যাস, বিদ্যুৎ, ফলমূল ও সাকসবজি- সবকিছুর জন্য ইরানের ওপর নির্ভর করে ইরাক।#

পার্সটুডে/এসআইবি/২০

ট্যাগ

মন্তব্য