• আফগানিস্তানে বোমাবর্ষণ দ্বিগুণ করেও পরিস্থিতি অনুকূলে আনতে ব্যর্থ আমেরিকা

আফগানিস্তানে মার্কিন বিমান বাহিনীর বোমা বর্ষণের হার একমাসে দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে। গত মাসে দেশটিতে গড়ে দৈনিক ১৬টি করে বোমা ফেলা হয়েছে। অথচ জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত দেশটিতে গড়ে দৈনিক ৭টি করে বোমা ফেলা হয়েছিল। দেশটিতে পাঠানো পেন্টাগনের গোলাবারুদের তথ্য থেকে এটি উঠে এসেছে।

তা সত্ত্বেও মার্কিন গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের প্রতিবেদনে স্বীকার করা হয় যে, দেশটির পরিস্থিতি মার্কিনীদের জন্য অবনতি হওয়া অব্যাহত রয়েছে। 

আফগানিস্তানে আমেরিকার শত্রুদের উপর আঘাত হানা হবে বলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘোষণাকে কেন্দ্র করে দেশটিতে মার্কিন বিমান বাহিনীর তৎপরতা নতুন করে চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

মার্কিন বিমান বাহিনীর কেন্দ্রীয় কমান্ড আফগানিস্তানে বোমা বর্ষণের হিসাব গত মাসের ৩১ তারিখে প্রকাশ করেছে। এতে দেখা যাচ্ছে, জানুয়ারি থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত দেশটিতে ১৯৮৪ বোমা ফেলা হয়েছে। মার্কিন বিমান বাহিনীর এফ-১৬ ভাইপার, এমকিউ-৯ রিপার ড্রোন এবং বি-৫২ স্ট্রারেটোফোট্রেস বোমারু বিমান এ সব বোমা ফেলেছে। অর্থাৎ গড়ে প্রতিমাসে ২২৭টি বোমা ফেলা হয়েছে। কিন্তু এক আগস্ট মাসেই এর দ্বিগুণ সংখ্যক অর্থাৎ ৫০৩টি বোমা দেশটিতে ফেলা হয়েছে।

বোমা বর্ষণ বাড়ানো সত্ত্বেও আফগানিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি। বরং ২০১৮ সাল পর্যন্ত সেখানকার পরিস্থিতির অবনতি ঘটা অব্যাহত থাকবে বলেও স্বীকার করেছে মার্কিন ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স। এক প্রতিবেদনে এটি স্বীকার করেন এ সংস্থা প্রধান ড্যানিয়েল কোটস।

তিনি বলেন, মার্কিন গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের মূল্যায়নে দেখা গেছে, আফগানিস্তানে মার্কিন সামরিক তৎপরতা বাড়ানো সত্ত্বেও ২০১৮ সাল পর্যন্ত দেশটির পরিস্থিতির অবনতি ঘটতেই থাকবে।# 

পার্সটুডে/মূসা রেজা/১৪

 

২০১৭-০৯-১৪ ১১:৪৩ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য