• জাতিসংঘ মহাসচিব
    জাতিসংঘ মহাসচিব

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের নাজুক অবস্থার বিষয়ে পুনরায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। গতকাল (সোমবার) ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় আসিয়ানের সম্মেলনে দেয়া ভাষণে জাতিসংঘ মহাসচিব তার উদ্বেগের কথা জানান।

জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, মিয়ানমারে যা ঘটছে তা বিপর্যয়কর ও উদ্বেগজনক। তিনি আরও বলেন, এ সংকট গোটা অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে এবং এর ফলে উগ্রবাদ ছড়িয়ে পড়তে পারে। জাতিসংঘ মহাসচিব গুতেরেস মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর ও ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সুচি'র উপস্থিতিতেই এসব কথা বলেন।

জাতিসংঘ মহাসচিব রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলমানদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার ওপরও গুরুত্ব আরোপ করেন।  এর আগে গত শুক্রবার রাতেও গুতেরেস মিয়ানমারের মুসলমানদের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও জাতিগত শুদ্ধি অভিযানের কথা উল্লেখ করে বলেছিলেন, মিয়ানমারে এখন যা হচ্ছে তা একটি ‘ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়’।

এছাড়া, জাতিসংঘের মানবিক ত্রাণ বিষয়ক প্রধান সমন্বয়কারী মার্ক লোকক সম্প্রতি মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের পরিস্থিতিকে ‘বিপর্যয়কর’ হিসেবে অভিহিত করে বলেছেন, দেশটির সরকার রোহিঙ্গাদের কাছে মানবিক ত্রাণ পৌঁছে দিতে বাধা দিচ্ছে।

রোহিঙ্গা শরণার্থী

গত ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির রাখাইন প্রদেশে বসবাসরত রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ গণহত্যা ও জাতিগত শুদ্ধি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। এসব পাশবিক হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ছয় হাজার রোহিঙ্গা নিহত ও অপর আট হাজার ব্যক্তি আহত হয়েছে।

এ ছাড়া, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর ভয়াবহ হত্যা, ধর্ষণ ও লুটপাটের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান। এর আগে ২০১২ সালে একবার মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর পাশাপাশি উগ্র বৌদ্ধরা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর ভয়াবহ তাণ্ডব চালিয়েছিল।#

পার্সটুডে/সোহেল আহম্মেদ/১৪

 

২০১৭-১১-১৪ ২০:২২ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য