• আমেরিকার জাতীয় প্রতিরক্ষা কৌশল ঘোষণা; আবার টার্গেট ইরান

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নয়া প্রতিরক্ষা কৌশল ঘোষণা করেছে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। এই কৌশলে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানকে আমেরিকার জন্য গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় শুক্রবার দেশটির নয়া জাতীয় প্রতিরক্ষা কৌশলের দলিল প্রকাশ করে। ১১ পৃষ্ঠার ওই দলিলে দাবি করা হয়েছে, ইরান এখনো সন্ত্রাসবাদের সমর্থন দিচ্ছে  এবং মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতার জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে।

মার্কিন নয়া প্রতিরক্ষা কৌশলের অন্য অংশে বলা হয়েছে, ইরান মধ্যপ্রাচ্যে নিজের প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত থাকার পাশাপাশি প্রক্সি যুদ্ধের মাধ্যমে এই অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে তুলছে। এ ছাড়া, ইরান ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির সমৃদ্ধি ঘটিয়ে আঞ্চলিক পরাশক্তি হওয়ার চেষ্টা করছে।

নয়া মার্কিন প্রতিরক্ষা কৌশলে আরো দাবি করা হয়েছে, উত্তর কোরিয়া ও ইরানের মতো দেশগুলোর লাগাম টেনে ধরার চেষ্টা করবে আমেরিকা।

মার্কিন সরকার এমন সময় ইরানকে মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য দায়ী করল যখন ইয়েমেনে চলমান সৌদি আগ্রাসন ও মানবতা বিরোধী অপরাধে আমেরিকায় তৈরি নিষিদ্ধ অস্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে। এ ছাড়া, শুধু মধ্যপ্রাচ্যে নয় বিশ্বের প্রতিটি অঞ্চলের অস্থিতিশীলতার পেছনে আমেরিকার হাত রয়েছে।

পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধর ব্যাপারে হোয়াইট হাউজের দ্বৈত নীতির কারণে সিরিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে তৎপর বেশ কিছু উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠীকে দমন করা যাচ্ছে না।

পর্যবেক্ষকদের মতে, ইরানের দায়িত্বশীল ও সময়োচিত পদক্ষেপের কারণে ইরাক ও সিরিয়া থেকে উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠী দায়েশর মূলোৎপাটন সম্ভব হয়েছে। প্রকৃত সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে ইরানের এই সাফল্যকে ম্লান করে দেয়ার জন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা কৌশলে ইরানকে সন্ত্রাসবাদের সমর্থক দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু আমেরিকার এ প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বিশ্বের সচেতন মহল ইরানকে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধের অগ্রপথিক হিসেবেই বিবেচনা করে যাবে।#

পার্সটুডে/মুজাহিদুল ইসলাম/২০

 

ট্যাগ

২০১৮-০১-২০ ০৭:১৮ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য