• আমেরিকায় ফিলিস্তিনের কূটনৈতিক মিশন
    আমেরিকায় ফিলিস্তিনের কূটনৈতিক মিশন

আমেরিকায় ফিলিস্তিনের কূটনৈতিক মিশন বন্ধ করে দেবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন। মার্কিন প্রশাসন থেকে ফিলিস্তিনি মুক্তি সংস্থা বা পিএলও-কে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ইসরাইলের অপরাধকে সুরক্ষা দিতে এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে মার্কিন সরকার।

আমেরিকায় ফিলিস্তিনের এই দূতাবাসকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে ধরা হয়। পিএলও মহাসচিব সায়েব এরিকাত বলেছেন, তার অফিসকে আমেরিকা জানিয়ে দিয়েছে যে, ওয়াশিংটনে তাদের দূতাবাস বন্ধ করে দেয়া হবে। জবাবে সায়েব এরিকাত বলেছেন, মার্কিন এমন নীতির কাছে তারা মাথা নিচু করবেন না। ইসরাইলের বিরুদ্ধে তারা আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যাওয়া থেকে বিরতও থাকবেন না। সায়েব এরিকাত আরো বলেন, “আমরা বার বার বলেছি, ফিলিস্তিনি মানুষদের অধিকার বিক্রির জন্য নয়।”

ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস

আজ (সোমবার) দিনশেষে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন এ বিষয়ে বক্তব্য দেবেন বলে কথা রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে- তিনি ওয়াশিংটনে ওই দূতাবাস বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দেবেন। মার্কিন সরকারের কথিত শান্তি পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করায় ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে এ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে ওয়াশিংটন। এছাড়া, ইসরাইলের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিলে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে পারে ট্রাম্প প্রশাসন। সে ক্ষেত্রে আইসিসি-কে অর্থ দেয়া বন্ধ করতে পারে আমেরিকা।  

এর আগে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস ট্রাম্পের নীতিকে ফিলিস্তিনিদের জন্য চপেটাঘাত বলে আখ্যায়িত করেছেন। গত ডিসেম্বরে বায়তুল মুকাদ্দাসকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প স্বীকৃতি দেয়ার পর ওই মন্তব্য করেন আব্বাস। তিনি আরো বলেছেন, কথিত শান্তি আলোচনার ক্ষেত্রে আমেরিকা তার নিরপেক্ষতা হারিয়েছে; ফিলিস্তিনিরা আর ওয়াশিংটনকে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে মানবে না।#

পার্সটুডে/এসআইবি/১০

ট্যাগ

২০১৮-০৯-১০ ১৭:১৩ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য