২০১৯-০২-১২ ১৬:১৪ বাংলাদেশ সময়
  • যুবরাজ বিন সালমান ও প্রেসেডন্ট ট্রাম্প
    যুবরাজ বিন সালমান ও প্রেসেডন্ট ট্রাম্প

সৌদি আরবের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতার অবসান ঘটানোর জন্য মার্কিন কংগ্রেসে কোনো প্রস্তাব পাস করা হলে তাতে ভেটো দেয়ার হুমকি দিয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নেতৃত্বাধীন প্রশাসন। ইয়েমেনে গত প্রায় চার বছর ধরে সৌদি আরব যে বর্বর সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে আসছে তার অবসান ঘটাতে মার্কিন কংগ্রেস একটি প্রস্তাব পাস করতে পারে।

 মার্কিন প্রশাসন গতকাল (সোমবার) দাবি করেছে, এ ধরনের প্রস্তাব পাস করা সঠিক হবে না কারণ এতে আমেরিকার আঞ্চলিক স্বার্থ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ট্রাম্প প্রশাসন বলছে, সৌদি সরকারের সঙ্গে নিরাপত্তা চুক্তির কারণে রিয়াদকে সামরিক সমর্থন দেয়া হচ্ছে কিন্তু কোনো সেনা মোতায়েন করা হয় নি। ফলে একে’ সামরিক শক্তির ব্যবহার’ বলে গণ্য করা যাবে না। তবে কংগ্রেস মনে করছে, ইয়েমেনে মার্কিন হস্তক্ষেপের ঘটনা বিদেশি দ্বন্দ্বে সামরিক শক্তি ব্যবহারের একটি দৃষ্টান্ত। এ ধরনের ঘটনায় প্রশাসনের পদক্ষেপ আটকে দিতে কংগ্রেসকে সাংবিধানিক ক্ষমতা দেয়া রয়েছে।

সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যায় সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান নির্দেশ দিয়েছেন বলে ব্যাপকভাবে বিশ্বাস করা হয়

দিকে, সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার জন্য কে নির্দেশ দিয়েছে এবং এ ঘটনায় সৌদি আরবের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা তা সুস্পষ্ট করে জানানোর জন্য কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে শুক্রবার পর্যন্ত সময়সীমা বেধে দিয়েছিল। তবে ট্রাম্প সে সময়সীমা উপেক্ষা করছেন ট্রাম্প।#

পার্সটুডে/এসআইবি/১২

ট্যাগ

মন্তব্য