প্রিয় পাঠক/শ্রোতা! ১৪ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবারের কথাবার্তার আসরে আপনাদের সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। শুরুতেই ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম:

বাংলাদেশের শিরোনাম:

  • নিরাপত্তা পরিষদের সর্বসম্মত বিবৃতি: রাখাইনে সহিংসতা অবিলম্বে বন্ধ কর- দৈনিক যুগান্তর
  • রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে উদ্যোগ নেবেন কূটনীতিকরা- দৈনিক সমকাল
  • রাখাইনে ১৭৬ রোহিঙ্গা গ্রাম জনশূন্য: মিয়ানমার- দৈনিক প্রথম আলো
  • রাখাইনে মানবিক সঙ্কট নিরসনে নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা- দৈনিক নয়াদিগন্ত
  • বিএনপির ২২ ট্রাক ত্রাণ আটকে দিলো পুলিশ- দৈনিক মানবজমিন
  • রোহিঙ্গাদের জন্য বিএনপির ত্রাণ বিতরণ নিছক মায়াকান্না: সেতুমন্ত্রী- দৈনিক ইত্তেফাক
  • মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অবরোধ সামরিক ব্যবস্থাসহ সকল পদক্ষেপ নিতে হবে- দৈনিক ইনকিলাব
  • বিদেশে খালেদার সম্পদের খোঁজ চলছে: প্রধানমন্ত্রী- দৈনিক যায়যায়দিন

ভারতের শিরোনাম:

  • ভারতের কাছে মাথা নত ড্রাগনের, ডোকলাম নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত লালফৌজ- দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
  • মমতার কৌশলে পাহাড়ে একঘরে বিমল-রোশনরা- দৈনিক বর্তমান
  • দায়িত্ব পালনে অক্ষম হলে পদ ছাড়ুন, নেতাদের হুঁশিয়ারি অমিতের- দৈনিক আনন্দবাজার
  • মোদির সম্পদ বেড়েছে ৪১.৮৪ শতাংশ- দৈনিক আজকাল

প্রিয় পাঠক/শ্রোতা! এবারে চলুন, বাছাইকৃত কয়েকটি খবরের বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। প্রথমেই বাংলাদেশ-

নিরাপত্তা পরিষদের সর্বসম্মত বিবৃতি: রাখাইনে সহিংসতা অবিলম্বে বন্ধ কর- দৈনিক যুগান্তর

রাখাইনে সহিংসতা অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর ‘মাত্রাতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগ’ করছে বলে মন্তব্য করেছে সংস্থাটি। একই সঙ্গে এর নিন্দা এবং রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। বুধবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে সর্বসম্মত এক বিরল বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়।

এদিকে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সহিংসতা ও সামরিক অভিযান বন্ধ করতে হবে। তিনি বলেছেন, বেসামরিক লোকদের ওপর হামলা ‘একেবারেই অগ্রহণযোগ্য।’ রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর জাতিগত নির্মূল চলছে বলেও মত দেন তিনি। গুতেরেস বলেছেন, রোহিঙ্গা মুসলিমরা ‘ভয়াবহ মানবিক পরিস্থিতিতে’ পড়েছে। নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আগে মহাসচিব সাংবাদিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে উদ্যোগ নেবেন কূটনীতিকরা- দৈনিক সমকাল

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে নিজ নিজ দেশের সঙ্গে আলাপ করবেন বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা। বুধবার বেলা ১২টায় কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবির পরিদর্শন শেষে তারা এ কথা কথা জানান।

এ সময় কূটনীতিকরা রোহিঙ্গাদের বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান প্রশংসা করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক কূটনীতিকদের সাথে ছিলেন। কূটনীতিকরা সারাদিন আশ্রয়শিবির পরিদর্শন শেষে সন্ধ্যায় ঢাকায় ফিরে আসেন।

রাখাইনে ১৭৬ রোহিঙ্গা গ্রাম জনশূন্য: মিয়ানমার- দৈনিক প্রথম আলো

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ১৭৬টি গ্রাম এখন জনমানবশূন্য। মিয়ানমারের প্রেসিডেন্টের দপ্তরের মুখপাত্রের বরাত দিয়ে ভারতের দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, চলমান সেনা অভিযানে গ্রামগুলোর বাসিন্দারা পালিয়ে গেছে।

প্রেসিডেন্টের দপ্তরের মুখপাত্র জ হতয় এক বিবৃতিতে বলেন, রাখাইন রাজ্যের তিনটি শহরতলি এলাকায় সর্বমোট ৪৭১টি গ্রাম রয়েছে। এর মধ্যে ১৭৬টি গ্রাম এখন জনমানবশূন্য। অন্য ৩৪টি গ্রাম থেকেও কিছু কিছু রোহিঙ্গা পালিয়েছে। তারা দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেছে প্রতিবেশী দেশগুলোতে।

তবে বিবৃতিতে রোহিঙ্গা শব্দটি নামটি ব্যবহার করেননি জ হতয়। তিনি আরও বলেন, পালিয়ে যাওয়া বাসিন্দারা মিয়ানমারে ফিরতে চাইলে অবশ্যই সবাইকে ফিরে আসার অনুমতি দেওয়া হবে না। যাচাইবাছাই করতে হবে। এরপরই মিয়ানমার কেবল তাদের গ্রহণ করতে পারে।

রাখাইনে মানবিক সঙ্কট নিরসনে নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা- দৈনিক নয়াদিগন্ত

নোবেল পুরস্কার জয়ী ১২ জনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ২৭ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি একটি খোলা চিঠিতে মিয়ানমারের রাখাইনে মানবিক সঙ্কট অবসানের লক্ষ্যে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

খোলা চিঠিতে তারা বলেন, রোহিঙ্গা সঙ্কট পর্যালোচনার উদ্দেশ্যে নিরাপত্তা পরিষদের সভা আহ্বান করার জন্য প্রথমে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমরা আবারো মনে করিয়ে দিতে চাই, মিয়ানমারের রাখাইন এলাকায় মানবীয় ট্র্যাজেডি ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ যে ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে- তার অবসানে আপনাদের জরুরি হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। আপনাদের এই মুহূর্তের দৃঢ়সঙ্কল্প ও সাহসী সিদ্ধান্তের ওপর মানবেতিহাসের ভবিষ্যৎ গতিপথ অনেকটাই নির্ভর করছে।

বিএনপির ২২ ট্রাক ত্রাণ আটকে দিলো পুলিশ- দৈনিক মানবজমিন

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ নিয়ে উখিয়ে যেতে পারেনি বিএনপি নেতারা। কক্সবাজার জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বুধবার বিকেল ৫টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানান ত্রাণ নিয়ে যাওয়া বিএনপির প্রতিনিধি দল। সম্মেলন থেকে হোটেলে যাওয়ার পথে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের গাড়িবহরও আটকে দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘বিএনপি এখানে রাজনীতি করতে আসেনি, ত্রাণ দিতে এসেছিল। সেই ত্রাণ বিতরণে বাধা দিয়ে সরকার অপরাধ করেছে। মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পগুলোতে যারা আছেন তাদের কোনো গোসল নেই, পানি নেই, খাদ্য নেই। ওখানে মানবিক বিপর্যয় চলছে। ওখানে গেলে আমরা তা জেনে যাব। সেজন্যই আমাদের সেখানে যেতে দেয়া হয়নি।’

মির্জা আব্বাস আরো বলেন, বিএনপির ত্রাণগুলো সরকারের কাছে (জেলা প্রশাসন) জমা দিতে হবে। তারাই সেটা বিতরণ করবে! আমরা আমাদের ত্রাণ কখনোই সরকারের কাছে জমা দেব না। বিএনপি তো ডিসি ও আওয়ামী লীগের কথা মতো চলবে না। আমাদের ত্রাণ আমরাই দেব। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, সরকার ইচ্ছা করলে আমাদের ত্রাণ সিজ করতে পারে!

রোহিঙ্গাদের জন্য বিএনপির ত্রাণ বিতরণ নিছক মায়াকান্না: সেতুমন্ত্রী- দৈনিক ইত্তেফাক

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ২০দিন পর রোহিঙ্গাদের জন্য বিএনপির ত্রাণ বিতরণ নিছক মায়াকান্না ও প্রতারণা ছাড়া কিছু নয়। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং শরণার্থী শিবির পরিদর্শন ও ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের শিগগিরই মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এটাই আওয়ামী লীগ সরকারের অঙ্গীকার।

সেতুমন্ত্রী ৫ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামিম, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, প্রশান্ত ভূষণ বড়ুয়া, রেজাউল করিম, সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী প্রমুখ।

এর আগে মঙ্গলবার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাখাইন রাজ্যে সহিংসতায়  ২৫ আগস্ট থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে ঠাঁই নিয়েছে। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার মুখপাত্র জোসেফ ত্রিপুরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অবরোধ সামরিক ব্যবস্থাসহ সকল পদক্ষেপ নিতে হবে- দৈনিক ইনকিলাব

মিয়ানমারে গণহত্যা, নারী ধর্ষণ, শিশু হত্যা, বাড়ী-ঘরে অগ্নিসংযোগ ও আগুনে পুড়িয়ে মারার মত বর্বরতার মাধ্যমে জাতিগত নিধনের প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ গতকাল আয়োজিত ঢাকাস্থ মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসুচি পালন করে। এ লক্ষ্যে সকালে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে এক বিশাল সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে দলের আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে মুসলিম গণহত্যা বন্ধে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অবরোধ ও সামরিক ব্যবস্থাসহ সকল পদক্ষেপ নিতে হবে। অর্থনৈতিক অবরোধের অংশ হিসেবে মিয়ানমারের সকল পণ্য বর্জন করতে হবে, এবং মুসলিম বিশ্বকে এ বিষয়ে উদ্ধুদ্ধ করতে হবে।

তিনি বলেন, মিয়ানমার জান্তা রাখাইন রাজ্যে গণহত্যার মাধ্যমে রাখাইন রাজ্যকে মুসলিম শূণ্য করার খেলায় মেতে উঠেছে। বর্মী জান্তা এবং অং সান সুচি বিশ্বসন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। রাখাইনের ইতিহাসের ভয়াবহ হত্যাযজ্ঞ ও নির্মমতা এবং মানবতা ভুলুন্ঠিত হলেও জাতিসংঘ ও মানবাধিকার সংস্থাগুলো এব্যাপারে কার্যকর ভুমিকা রাখছে না। জাতিসংঘের এ ভুমিকায় মুসলিম জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠার অনিবার্যতা আরো জোরালো হচ্ছে। তিনি বলে সময় এসেছে আরাকান দখল করে বাংলাদেশের পতাকা বদলের। তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা থেকে আগত ত্রাণ সুষ্ঠুভাবে বিতরণের দাবি জানিয়ে বলেন, ত্রাণ বিতরণ নিয়ে যেন কোন দুর্নীতি না হয়।

বিদেশে খালেদার সম্পদের খোঁজ চলছে: প্রধানমন্ত্রী- দৈনিক যায়যায়দিন

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশের সম্পদের খোঁজ বের করে তা বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় সংসদের বুধবারের অধিবেশনে জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমামের এক প্রশ্নের উত্তরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর এই ঘোষণা আসে।

ফখরুল ইমাম গ্লোবাল ইনটেলিজেন্স নেটওয়ার্কের এক প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াসহ বিএনপি নেতাদের বিদেশে সম্পত্তির ফিরিস্তি তুলে ধরে সে বিষয়ে সরকারের পদক্ষেপ জানতে চান। ফখরুল ইমাম বলেন, "শুধু দুবাই নয়, অন্তত ১২টি দেশে জিয়া পরিবারের সম্পদ আছে, যার প্রাক্কলিত মূল্য এক হাজার ২০০ কোটি টাকা। সৌদি আরবে জনৈক আহম্মদ আল আসাদের নামে আল আরাফা শপিং মলটির মালিক হলেন খালেদা জিয়া। কাতারে বহুতল বাণিজ্যক ভবন 'টিপরা' এটার মালিকও উনি।"

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'তথ্যগুলো যখন বের হয়েছে, তখন নিশ্চয়ই আমাদের কাছে তা আছে। এটা নিয়ে তদন্ত চলছে। তাছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে মানি লন্ডারিংয়ের জন্য একটি তদন্তের ব্যবস্থা আছে। সেই সূত্রেও তদন্ত করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে এই তদন্তেরর মধ্য দিয়ে সত্যতা যাচাই করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

এবারে কোলকাতার বাংলা দৈনিকগুলোর বিস্তারিত খবর

ভারতের কাছে মাথা নত ড্রাগনের, ডোকলাম নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত লালফৌজ- দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

ডোকলামে ধাক্কা খেয়ে এবার সুর নরম করল ‘ড্রাগন’। ভারতের কড়া অবস্থানে কার্যত ফাটল দেখা যাচ্ছে লালফৌজের অন্দরে। ডোকলাম ইস্যুতে ভারতের বিরুদ্ধে সেনা অভিযানের দাবি তুলেছিল সে দেশের সর্বশক্তিমান কমিউনিস্ট পার্টি ও লালফৌজের যুদ্ধবাজ নেতৃত্ব। কিন্তু আস্ফালন করলেও প্রধানমন্ত্রী মোদির দৌত্যের সামনে শক্তি খুইয়ে শেষমেষ মাথা নত করেছিল ড্রাগন। ডোকলাম থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে একরকম বাধ্যই হয় লালফৌজ। তারপর থেকেই চিনা সরকার ও লালফৌজের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ফাটল তৈরি হয়েছে। দেখা দিয়েছে প্রবল মতানৈক্য।

মমতার কৌশলে পাহাড়ে একঘরে বিমল-রোশনরা- দৈনিক বর্তমান

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কৌশলী পদক্ষেপে পাহাড়ের ‘স্বঘোষিত’ মসিহা বিমল গুরুং আর তাঁর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড রোশন গিরি এখন আরও কোণঠাসা। গোটা পাহাড়জুড়ে আওয়াজ উঠেছে মানুষকে দুর্ভোগে ফেলে কেন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন সস্ত্রীক বিমল গুরুং এবং রোশন গিরি? পাহাড়ের মানুষ যখন না খেয়ে মরছে, তখন একজন সিকিমে, অন্যজন কেন রয়েছেন দিল্লিতে নিরাপদ আশ্রয়ে? জিএনএলএফ, জাপ আর অখিল ভারতীয় গোর্খা লিগের মতো পাহাড়ের রাজনৈতিক দলের অনেকেই আবার বলছেন, এর আগে ১৯৮৫ সালে টানা বনধের সময়ে নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও পাহাড়ে থেকেই আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সুবাস ঘিসিং। তিনি পালিয়ে যাননি! তাহলে বিমল গুরুং ও রোশন গিরি পালাল কেন?

 

বেজিংয়ের ‘যুদ্ধবাজ’দের কার্যত মূর্খ বলে দাবি করেছেন ‘পিপলস লিবারেশন আর্মি’র মেজর জেনারেল কুইয়াও লিয়াং। তাঁর বক্তব্য, “যাঁরা ভারতের সঙ্গে যুদ্ধের দাবি তুলছেন তাঁরা চিনের কৌশলগত অবস্থানের কিছুই বোঝেন না। পরিস্থিতি সম্পর্কে তাঁদের কোনও ধারণাই নেই। অনেকেই মনে করেন, যুদ্ধই হল শক্তি প্রদর্শনের একমাত্র পন্থা। কিন্তু তাঁরা যুদ্ধের পরিণামের কথা ভুলে যান। বিনা যুদ্ধেই সমস্যার সমাধান করা উচিত।”

দায়িত্ব পালনে অক্ষম হলে পদ ছাড়ুন, নেতাদের হুঁশিয়ারি অমিতের- দৈনিক আনন্দবাজার

কলকাতা সফরে এসে বঙ্গ বিজেপি-র নেতাদের সামনে একগুচ্ছ কাজ বেঁধে দিয়ে গেলেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। এবং কড়া সুরে জানিয়ে দিয়ে গেলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দায়িত্ব পালন করতে না পারলে পদ আঁকড়ে থাকা যাবে না। সে তিনি যে পদেই থাকুন না কেন। জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে ফের রাজ্যে এসে এই চার মাসের কাজের খতিয়ান নেবেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি।

আড়াই দিনের দলীয় বৈঠকে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলে গিয়েছেন, সাংগঠনিক ভাবে জেলার সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে। এখন বিজেপি-র সাংগঠনিক জেলা ৩৫টি। তা বাড়িয়ে লোকসভা কেন্দ্র পিছু একটি করে মোট ৪২টি জেলা তৈরি করতে হবে।

মোদির সম্পদ বেড়েছে ৪১.৮৪ শতাংশ- দৈনিক আজকাল

গত দুই অর্থবছরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সম্পদের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে ৪১.৮৪ শতাংশ। প্রধানমন্ত্রীর সম্পদের পরিমাণ ১.৪১ কোটি টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি টাকায়। তবে সম্পদ বৃদ্ধির পরিমাণে প্রধানমন্ত্রীকে টেক্কা দিয়েছেন তাঁরই মন্ত্রিসভার দু’জন সদস্য। এঁরা হলেন কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন ও পঞ্চায়েতিরাজ মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর ও পরিসংখ্যান এবং পরিকল্পনা রূপায়ণমন্ত্রী সদানন্দ গৌড়া। তোমরের সম্পদ বৃদ্ধির পরিমাণ ৬৭.৫ শতাংশ এবং গৌড়ার সম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে ৪২.৩ শতাংশ। এছাড়া প্রায় সব মন্ত্রীর সম্পদের ক্ষেত্রে কিছু না কিছু বৃদ্ধি লক্ষ্য করা গেলেও চমকে দেওয়ার মতো হিসেব পেশ করেছেন দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাওরেকর এবং অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। গত দুই অর্থবছরে তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৫০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে বলে জানিয়েছেন জাওরেকর।

প্রিয় পাঠক/শ্রোতা! আবারও আমরা কথাবার্তার আসর নিয়ে হাজির হবো আগামীকাল। ততক্ষণ পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন।#

পার্সটুডে/মুজাহিদুল ইসলাম/১৪

 

২০১৭-০৯-১৪ ১২:০২ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য