সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা! ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহষ্পতিবারের কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি আমি গাজী আবদুর রশীদ। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম।

বাংলাদেশের শিরোনাম: 

  • ৫ বছরের কারাদণ্ড, জেলে খালেদা জিয়া-দৈনিক ইত্তেফাক
  • মগবাজারে পুলিশ-নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ, কাকরাইলে টিয়ারসেল নিক্ষেপ-আটক
  • এই রায়ের মাধ্যমে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে: আইনমন্ত্রী-দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন
  • নাজিমউদ্দিন রোডের কারাগারে খালেদা জিয়া-দৈনিক প্রথম আলো
  • বাংলাদেশে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা-দ্যা টেলিগ্রাফ-দৈনিক মানবজমিন
  • কারাগারে খালেদা জিয়া, রোববারের আগে আপিল নয়-দৈনিক যুগান্তর
  • গ্রেফতার-আটক বন্ধের আহ্বান হিউম্যান রাইটস ওয়াচের-দৈনিক নয়া দিগন্ত

ভারতের শিরোনাম:

  • দেশে সাম্প্রদায়িক হিংসা বেড়েছে, সবার উপরে উত্তরপ্রদেশ-দৈনিক আনন্দবাজার
  • শিক্ষিকার চড়ে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, বেঘোরে প্রাণ গেল পঞ্চম শ্রেণির পড়ুয়ার-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
  • এক্তিয়ার নিয়ে এবার মুখ খুললেন রাজ্যপাল-দৈনিক আজকাল

পাঠক/শ্রোতা! এবারে চলুন, বাছাইকৃত কয়েকটি খবরের বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। প্রথমেই বাংলাদেশ-

খালেদা জিয়ার মামলার  রায়: ৫ বছরের কারাদণ্ড

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদণ্ড

৫ বছরের কারাদণ্ড-নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো জেলে খালেদা জিয়া- এ খবরটি আজকের সবগুলো জাতীয় দৈনিকের অনলাইন সংস্করণ এবং অনলাইন পোর্টালের লিড নিউজ হিসেবে পরিবেশিত হয়েছে।  খবরটিতে আরো বলা হয়েছে- জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় তারেক রহমানসহ অন্য ৫ আসামির ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

রায়ের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, অন্যায়ভাবে হয়রানি করতে খালেদা জিয়াকে জেলের সাজ দেয়া হয়েছে।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক

আর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এই রায়ের মাধ্যমে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। রিজভী-তার প্রতিক্রিয়ায় কেঁদে বললেন- এই রায়ের প্রতি ধিক্কার জানাচ্ছি। আর খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলেছেন, রায় হয়েছে রাজনৈতিক প্রতিহিংসাবশত। তবে দুদকের আইনজীবীরা এ রায়ে খুশি। আর আওয়ামী লীগ বলেছে-খালেদা জিয়া দুর্নীতিবাজ এটা প্রমাণিত হলো।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে বয়স ও স্বাস্থ্য বিবেচনায় সাজা পাঁচ বছর কম দেওয়া হয়েছে বলে রায়ে উল্লেখ করেছেন আদালত। রায়ে খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের জেল। এছাড়া তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচ আসামির ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও একইসঙ্গে তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

দেশের সার্বিক পরিস্থিতি

রাস্তায় রাস্তায় কড়া চেক

দৈনিক ইত্তেফাক-ঢাকা কার্যত বিচ্ছিন্ন, মানুষ আতঙ্কে-প্রথম আলোর খবরটিতে লেখা হয়েছে, খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে ঘিরে বিএনপি কোনো কর্মসূচি না দিলেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা এবং বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থায় দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা।

বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার

খালেদা জিয়ার মামলার রায় এবং দেশের সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে দৈনিক প্রথম আলোর আরো কয়েকটি খবরে লেখা হয়েছে, দেশে সরকারের অঘোষিত অবরোধ চলছে। সরব বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ, নীরব নয়া পল্টন। নয়া পল্টনে ছাত্রলীগ মহড়া দিয়েছে। মগবাজারে পুলিশ-নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে, কাকরাইলে টিয়ারসেল নিক্ষেপ এবং আটক ১। দৈনিক ইনকিলাবের একটি খবরের শিরোনাম- বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মী আজ রাজপথে নেমেছেন। খুলনায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে, জনমনে আতঙ্ক। এদিকে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত সহকারী শিমুল বিশ্বাকে আটক করা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে প্রথম আলো। আর দৈনিক মানবজমিনে- দ্যা টেলিগ্রাফের একটি রিপোর্ট পরিবেশিত হয়েছে। সেখানে লেখা হয়েছে, বাংলাদেশে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

তবে বাংলাদেশ প্রতিদিনের খবর- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন দেশের এখন পর্যন্ত কোথাও কোন বিশৃঙ্খলা হয়নি এবং হবেও না। আমাদের পুলিশ বাহিনী পেশাদারিত্বের সঙ্গে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত।

গ্রেফতার-আটক বন্ধের আহ্বান হিউম্যান রাইটস ওয়াচের-দৈনিক নয়া দিগন্ত

বাংলাদেশে গ্রেফতার আটক বন্ধে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের আহ্বান

বাংলাদেশে বিরোধী দল বিএনপির নেতা-কর্মীদের ঢালাওভাবে গ্রেফতার বন্ধ করা উচিত বলে এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। বৃহস্পতিবার বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার রায়ের আগে সারা দেশে শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে বাংলাদেশের নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীকে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা কার্যক্রম চালানোর নির্দেশ দেয়া উচিত বাংলাদেশের সরকারের।

জাতিসংঘ শান্তিমিশনে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড নেম: প্রধানমন্ত্রী-দৈনিক প্রথম আলোসহ বেশ কয়েকটি দৈনিকের অনলাইন সংস্করণের খবর

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমাদের সশস্ত্র বাহিনী শুধু দেশ নয়, সারা বিশ্বে এখন প্রশংসিত। জাতিসংঘ শান্তিমিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এখন ব্রান্ড নেম। দেশের উন্নয়ন, প্রাকৃতিক দুর্যোগে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছে।’ সশস্ত্র বাহিনীকে তিনি দেশের গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় প্রস্তুত থাকতেও নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুর সাড়ে ১২টায় বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার লেবুখালীতে শেখ হাসিনা সেনানিবাস উদ্বোধন করার সময় দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সরকার দেশের সশস্ত্র বাহিনীকে আধুনিক, উন্নত ও যুগোপযোগী করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

এবার কোলকাতার দৈনিকগুলোর কয়েকটি খবরের বিস্তারিত

দেশে সাম্প্রদায়িক হিংসা বেড়েছে, সবার উপরে উত্তরপ্রদেশ-দৈনিক আনন্দবাজার

ভারতে সহিংসতা বৃদ্ধি

২০১৬ থেকে ২০১৭সালে ভারতে সাম্প্রদায়িক হিংসার ঘটনা এক লাফে বেড়ে গিয়েছে ১৭ শতাংশ। ২৯ শতাংশ বেড়েছে সাম্প্রদায়িক হিংসার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা। লোকসভায় এক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে এই তথ্য পেশ করল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিজেপি নেতারা প্রায়ই দাবি করেন, তাঁদের সরকার আছে এমন রাজ্যগুলিতে সাম্প্রদায়িক হিংসার ঘটনা কম। কেন্দ্রের পেশ করা তথ্য কিন্তু একদম উল্টো কথাই বলছে। উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় হিংসার ঘটনা ঘটেছে যে ৯টি রাজ্যে, তার মধ্যে ৭টি-তেই বিজেপি একক ভাবে বা জোট করে ক্ষমতায় রয়েছে। সবার উপরে রয়েছে যোগী আদিত্যনাথের উত্তরপ্রদেশ। 

এক্তিয়ার নিয়ে এবার মুখ খুললেন রাজ্যপাল-দৈনিক আজকাল

রাজ্যপালের এক্তিয়ার নিয়ে কয়েকদিন ধরেই সরব হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেংস। তৃণমূলের এই প্রতিবাদ নিয়ে এবার মুখ খুললেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী। ডায়মন্ড হারবারের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানেই কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়ে রাজ্যপাল বলেছেন, ‘কাদা ছোড়া বন্ধ করুন। অনেক কড়া কথা বলেছেন। আগে আয়নায় নিজের মুখ দেখুন, ময়লা পরিষ্কার করুন। তারপর অন্যের দিকে আঙুল তুলবেন’।

শিক্ষিকার চড়ে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, বেঘোরে প্রাণ গেল পঞ্চম শ্রেণির পড়ুয়ার-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

একটি মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে উত্তর প্রদেশের বালিয়ার একটি খ্রিস্টান মিশনারি স্কুলে । ওই স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী শিক্ষিকার প্রশ্নে জবাব দিতে পারেনি। এর জন্য চরম মাশুল দিতে হল পড়ুয়াকে। শিক্ষিকা রজনী উপাধ্যায়ের  চড়ে মস্তিষ্কে রক্তরক্ষণের ফলে বেঘেরো প্রাণ গেল ওই ছাত্রীর। অভিযুক্ত শিক্ষিকা ও স্কুলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে মৃতের পরিবার। শিক্ষিকাকে আটক করেছে পুলিশ।# 

পার্সটুডে/গাজী আবদুর রশীদ/৮
 

২০১৮-০২-০৮ ১৬:৫০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য