বন্ধুরা,আপনাদের অনেক অনেক সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আপনাদেরই চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন। প্রতি আসরের মতো আজও আলোচনা শুরু করবো একটি হাদিস শুনিয়ে। ইমাম হাদি (আ.) বলেছেন, পিতামাতাকে কষ্ট দিলে দারিদ্র নেমে আসে এবং মানুষ চরম অপমান ও বঞ্চনার শিকার হয়।

মূল্যবান হাদিস শুনলাম। আমাদের মধ্যে যাদের বাবা-মা কিংবা তাদের যেকোনো একজন বেঁচে আছেন তারা এ হাদিসের বাণীকে নিজেদের জীবনে কাজে লাগাব- এ আশা ব্যক্ত করে চিঠিপত্রের দিকে নজর দিচ্ছি। প্রথমেই হাতে তুলে নিয়েছি ভারত থেকে আসা একটি চিঠি। পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার জয়কৃষ্ণপুর থেকে এটি পাঠিয়েছেন...

বহলুল: ডা. আব্দুর রশিদ বিশ্বাস এবং সুমন বিশ্বাস।

একদম ঠিক বলেছেন বহলুল ভাই। হ্যাঁ চিঠিটি পাঠানো হয়েছে গত ২১ সেপ্টেম্বর আর এটি সম্প্রতি আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। চিঠিতে লেখা হয়েছে, হজরত ইমাম হাদি (আ.)-এর জন্মবার্ষিকী, হজরত মূসা কাজিম এবং হজরত ইমাম বাকের (আ.)-এর শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রচারিত আলোচনাগুলো ছিল এক কথায় অনবদ্য। এ জন্য রেডিও তেহরানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তারা।

বহলুল: ধন্যবাদ আপনাদেরও। এরপর এ দুই শ্রোতা তাদের চিঠিতে আর কি লিখেছেন?

এ চিঠিতে আরো লেখা হয়েছে,রেডিও তেহরানের স্বাস্থ্যকথার আসরে ব্রংকাইটিস রোগ নিয়ে মূল্যবান আলোচনা, চর্মরোগ ও সর্দিকাশির ওপর টিপস, পানিতে আর্সেনিকের কারণে নানা রোগ বিশেষ করে ক্যান্সার হতে পারে বলে যে সতর্কতা উচ্চারণ করা হয়েছে তা সত্যিই ভালো লেগেছে। স্বাস্থ্যকথার প্রতিটি বিষয়ের ওপর আলোচনা আমার ও বন্ধুদের কাছে শিক্ষণীয় মনে হয়েছে।

বহলুল: স্বাস্থ্যকথা অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্য ধরতে পেরেছেন জেনে ভালো লাগল।

সত্যি কথা বলতে কি, রেডিওর মাধ্যমে তো আর চিকিৎসা করা সম্ভব নয়। বরং সবাইকে সতর্ক ও সচেতন করে তোলাই এ ধরনের অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্য। এ লক্ষ্যে দীর্ঘদিন ধরে এ অনুষ্ঠানটি চলছে এবং চিকিৎসকরা একে এগিয়ে নিতে নিঃস্বার্থভাবে সার্বিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। আর হ্যাঁ ভাই ডা. আব্দুর রশিদ বিশ্বাস ও সুমন বিশ্বাস, বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করে আপনারা বুঝিয়ে দিয়েছেন যে, আপনারা অনুষ্ঠান শোনেন। চিঠি লেখার জন্য আপনাদের দুজনকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। ভবিষ্যতে আরো চিঠি দেবেন এবং সম্ভব হলে ইমেইল করবেন।

আসরের এ পর্যায়ে এক শ্রোতা ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলবো। ইরানে সম্প্রতি যে গোলযোগের চেষ্টা হয়েছে তাতে আমেরিকা,ইহুদিবাদী ইসরাইল এবং সৌদি আরবের হাত রয়েছে বলে জানিয়েছে তেহরান। আর এ প্রসঙ্গে রেডিও তেহরানের কাছে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শ্রোতা ভাই মোঃ মোখতার হোসেন। তিনি বলেন..

ধন্যবাদ ভাই মোঃ মোখতার হোসেন। এতক্ষণ পশ্চিমবঙ্গের পুরনো শ্রোতা ভাই মোখতার হোসেনের প্রতিক্রিয়া শুনছিলেন। একই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে পারেন আপনিও।  টেলিফোন নম্বর দিলে আমরাই আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবো। কিংবা অনায়াসে ভয়েস মেইলও পাঠাতে পারেন আপনারা। আমরা আপনাদের প্রতিক্রিয়া শোনার অপেক্ষায় রইলাম।

বহলুল.  আসরের এ পর্যায়ে আর কোনো চিঠি নয়। পাঠক বন্ধুদের মন্তব্যের দিকে নজর দেবো

মানে এবারে রেডিও তেহরানের ফেসবুক গ্রুপ এবং ওয়েবসাইটে প্রকাশিত খবরে শ্রোতাবন্ধুরা যে সব মন্তব্য করেছেন সে দিকে নজর দিতে হবে, সে কথাই কি বললেন?

বহলুল: একেবারে একশ ভাগ ঠিক বুঝতে পেরেছেন। তা হলে আর বিলম্ব নয়..

হ্যাঁ  দেখুন সেজন্য আমি প্রস্তুত হয়েই বসে আছি।  গ্যাস পাইপ লাইন চালুর ক্ষেত্রে পাকিস্তান সহযোগিতা করছে না: ইরান- শীর্ষক খবরটি প্রকাশিত হয়েছে ৩০ জানুয়ারি। এ খবরে বলা হয়েছে, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের তেলমন্ত্রী বিজান জাঙ্গানে বলেছেন,গ্যাস পাইপ লাইন চালুর বিষয়ে পাকিস্তান সহযোগিতা করছে না। এ ক্ষেত্রে আমেরিকা ও সৌদি আরবের নাশকতা থাকতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

ফেসবুকের রেডিও তেহরান গ্রুপে এ খবরটি বেশ আলোচিত হয়েছে। মোহাম্মদ নুরুল আলম লিখেছেন, সব মুসলিম রাষ্ট্র যদি এক হয়ে কাজ করে তবে শুধু আমেরিকা নয় কোন কিছুই পাত্তা পাবে না। অন্যদিকে  মোঃ আজহার রুবেল পাকিস্তানের কথা উল্লেখ করে লিখেছেন, মনে রাখতে হবে ওরা আমেরিকার পুরনো সহযোগী এবং তাদের নিজেদের দেশেও আমেরিকা হামলা করলে ওরা নীরব থাকে।

এদিকে বোকামি করবেন না,সেনাবাহিনী গুঁড়িয়ে দেয়ার অস্ত্র আমাদের রয়েছে: ইসরাইলকে হিজবুল্লাহ- শীর্ষক খবরটি প্রকাশিত হয়েছে ৩০ জানুয়ারি। এ খবরে বলা হয়েছে, ইরানের সঙ্গে যৌথভাবে ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির কারখানা নির্মাণের দাবি নাকচ করেছে লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহ। ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এ খবরে মন্তব্য করেছেন ভাই লুৎফর রহমান।  তিনি লিখেছেন, লেবানন তুমি এগিয়ে চলো। আর এ.এইচ.কিউ. নামের বন্ধু মন্তব্য করেছেন, চমৎকার ভাষণ। লেবানন দীর্ঘজীবী হোক।

চমৎকার মন্তব্য। লেবানন এবং হিজবুল্লাহকে একে অপরের সমার্থক মনে করেছেন এ বন্ধুরা।

বহলুল: বিষয়টা বেশ মজার বলেই মনে হচ্ছে। এবারে কিন্তু বিদায় নেবার পালা।

হ্যাঁ, ভাই বোনেরা,যারা ইমেইল করেছেন,চিঠি লিখেছেন এবং এতক্ষণ সময় দিয়েছেন তাদের সবাইকে আবারো আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আপনারা ইরানের একটি বিপ্লবী গান শুনতে থাকুন আর আমরা বিদায় নেই প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে। #

২০১৮-০৩-০৬ ১৮:৪৭ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য