প্রিয় পাঠক/শ্রোতা! ৯ সেপ্টেম্বর রোববারের কথাবার্তার আসরে আপনাদের সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি। আশা করছি আপনার প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতেই দেখে নেব ঢাকা ও কোলকাতা থেকে প্রকাশিত প্রধান প্রধান বাংলা দৈনিকের গুরুত্বপূর্ণ কিছু শিরোনাম:

বাংলাদেশের শিরোনাম:

  • বাংলাদেশ একটি মানবিক সংকট মোকাবেলা করছে: প্রধানমন্ত্রী- দৈনিক যুগান্তর
  • আ.লীগের ৮০-১০০ সাংসদ মনোনয়ন নাও পেতে পারেন- দৈনিক প্রথম আলো
  • কারাগারে আদালত বসানোর তদন্ত চান খালেদার আইনজীবীরা- দৈনিক ইত্তেফাক
  • মুক্ত খালেদাকে নিয়েই নির্বাচনে যাবে বিএনপি: মোশাররফ- দৈনিক মানবজমিন
  • বিএনপির পছন্দ আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন: হানিফ- দৈনিক সমকাল
  • ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : হর্ষবর্ধন শ্রিংলা- দৈনিক নয়াদিগন্ত
  • মানববন্ধনের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি- দৈনিক ইনকিলাব

ভারতের শিরোনাম:

  • ‘সুপ্রিম কোর্ট আমাদের, রাম মন্দির হবেই’, বললেন যোগী মন্ত্রিসভার সদস্য- দৈনিক আনন্দবাজার
  • বৈঠকে যোগ দিতে অস্বীকার, ৩৫ জন গ্রামবাসীকে বেধড়ক মারধর মাওবাদীদের- দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
  • সোদপুরে যাত্রী বিক্ষোভ, ভাঙচুর, রেল অবরোধ: ঘোষণা বিভ্রাটের জের- দৈনিক বর্তমান

প্রিয় পাঠক/শ্রোতা‍! এবারে চলুন বাছাই করা কয়েকটি খবরের বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। প্রথমেই বাংলাদেশ:

বাংলাদেশ একটি মানবিক সংকট মোকাবেলা করছে: প্রধানমন্ত্রী- দৈনিক যুগান্তর

রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমানে বাংলাদেশ একটি মানবিক সংকট মোকাবেলা করছে। রোহিঙ্গাদের আমরা আশ্রয় দিয়েছি। এতে আমাদের স্থানীয় লোকদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। রোববার সকালে রাজধানীর রেডিসন হোটেলে ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) আঞ্চলিক প্রধান কার্যালয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করে আমরা তাদের আশ্রয় ও খাদ্য দিয়ে যাচ্ছি। আমরা তাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে পাঠাতে চাই। এ নিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি হয়েছে। মিয়ানমারকে চুক্তি বাস্তবায়নে চাপ অব্যাহত রাখার জন্য আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

আ.লীগের ৮০-১০০ সাংসদ মনোনয়ন নাও পেতে পারেন- দৈনিক প্রথম আলো

২০১৭ সালের মে মাসের ছবি

দুই মেয়াদে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। এই সময়ে দলটির সাংসদদের কেউ কেউ বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন। কারও বয়স হয়েছে। কেউ কেউ দলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিতর্কিত হয়েছেন। অনেকের বিরুদ্ধে আছে দুর্নীতি ও মাদক ব্যবসার অভিযোগ। তা ছাড়া আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করছে, এবারের নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে। এ কারণে বিএনপি নির্বাচনে না আসায় গতবার ভোটে জেতা আওয়ামী লীগের জন্য যতটা সহজ ছিল, এবার জয়লাভ করা ঠিক ততটাই কঠিন হবে। এসব কারণে বর্তমান সংসদের সরকারদলীয় অনেক সাংসদের মনোনয়নই ঝুঁকিতে পড়তে পারে।

তবে দলের দায়িত্বশীল নেতারা এও বলছেন, স্থানীয় বা জাতীয়ভাবে সুখ্যাতি না থাকলেও দলের প্রয়োজনে বেশ কয়েকজন বিতর্কিত ব্যক্তি শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন-দৌড়ে টিকে যেতে পারেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের একজন সদস্য বলেছেন, তৃণমূল থেকে আসা নামের ভিত্তিতে মনোনয়ন দেওয়া হবে। তবে দলীয় প্রধান বিভিন্ন উৎস থেকে একটা ধারণা নিয়ে রেখেছেন। সেখানে সংসদের এক-তৃতীয়াংশের বেশি সাংসদ, মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী স্থানীয়ভাবে দলে ও সাধারণ মানুষের কাছে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছেন বলে ধারণা পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, এ কারণে প্রধানমন্ত্রী সাংসদদের স্থানীয়ভাবে জনপ্রিয়তা প্রমাণের জন্য মৌখিকভাবে বলে দিয়েছেন। নয়তো এঁরা মনোনয়ন পাবেন না।

কারাগারে আদালত বসানোর তদন্ত চান খালেদার আইনজীবীরা- দৈনিক ইত্তেফাক

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার বিচারের জন্য কারাগারে আদালত বসানোর তদন্ত চেয়েছেন তার আইনজীবীরা। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সঙ্গে সাক্ষাত করে লিখিতভাবে এ দাবি জানানো হয়।

আবেদনে বলা হয়, বিচার বিভাগ পৃথকীকরনের পর অধস্তন আদালতের নিয়ন্ত্রণ সুপ্রিম কোর্টের। কিন্তু প্রশাসনিক আদেশ দ্বারা জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারে আদালত কারাগারে স্থাপন করা হয়েছে। এটা সুপ্রিম কোর্টের কর্তৃত্বকে খর্ব করেছে।

আজ রবিবার বেলা দেড়টায় প্রধান বিচারপতির সঙ্গে তার খাসকামরায় গিয়ে সাক্ষাত করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, এজে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন, এম মাহবুবউদ্দিন খোকন প্রমুখ। সাক্ষাতে খালেদা জিয়ার অসুস্থতার বিষয়টিও উঠে আসে।

মুক্ত খালেদাকে নিয়েই নির্বাচনে যাবে বিএনপি: মোশাররফ- দৈনিক মানবজমিন

মুক্ত খালেদা জিয়াকে নিয়েই বিএনপি নির্বাচনে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। আজ রোববার বেলা মহিলা দলের ৪০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, প্রয়াত প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, এই নির্বাচন হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করে, সংসদ ভেঙে দিয়ে এবং সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে নিয়ে আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নেব। খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে উল্লেখ করে  তিনি বলেন, তাকে দ্রুত মুক্তি দিয়ে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার উদ্যোগ নিতে হবে।

মোশাররফ অভিযোগ করেন, সারাদেশে নতুন করে গণগ্রেপ্তার শুরু হয়েছে। আমাদের কোন আন্দোলন-কর্মসূচি নেই এবং রাজপথে কোন কর্মী নেই। কিন্তু এখন কেনো গণগ্রেপ্তার চলছে? উদ্দেশ্য হচ্ছে, খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে, আমাদেরকে আদালতের কাঠগড়ায় রেখে এবং বিএনপি ও ২০ দলকে বাইরে রেখে সরকার নির্বাচন করতে চায়।

বিএনপির পছন্দ আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন: হানিফ- দৈনিক সমকাল

বিএনপির আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন পছন্দ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেছেন, বিএনপির কাছে সবচেয়ে যোগ্য নির্বাচন কমিশনার হচ্ছে এম এ আজিজ। যিনি তাদের ক্ষমতায় আনতে এক কোটি ত্রিশ লাখ ভুয়া ভোটার বানিয়েছিলেন। এর বাইরে কোনো নির্বাচন কমিশনার তাদের পছন্দ হওয়ার কথা নয়।

রোববার বেলা ১২টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই রোডে নিজ বাসভবনে দলীয় নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। হানিফ বলেন, এই নির্বাচন কমিশন নিয়ে যারা বিতর্ক সৃষ্টি করতে চায়, তারা আসলে নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার জন্য ও নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করছে।

জনগণ কাদের সঙ্গে আছে তা ইতিমধ্যেই প্রমাণিত হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগ ও উন্নয়নের পক্ষে রায় দিয়েছে। যে দলের পক্ষে শতকরা ৬৬-৭০ ভাগ মানুষ আছে সেই আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হবে এই ধরনের বক্তব্য পাগলের প্রলাপ ছাড়া কিছু নয়। বিএনপির অবলম্বন হলো মিডিয়ার মাধ্যমে অযৌক্তিক কথাবার্তা বলে জনগণের কাছে তাদের অবস্থান টিকিয়ে রাখা।

মানববন্ধনের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি- দৈনিক ইনকিলাব

ফাইল ছবি

কারাগারে আদালত স্থানান্তরের প্রতিবাদে মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে বিএনপি। রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে মানববন্ধনের অনুমতি পেয়েছে দলটি। আজ রোববার দুপুরে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নাল আবদীন ফারুক, আব্দুস সালাম ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশ কমিশনারের সাথে সাক্ষাৎ করে অনুমতি চাইলে মৌখিক অনুমতি দেয়া হয় বলে জানিয়েছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : হর্ষবর্ধন শ্রিংলা- দৈনিক নয়াদিগন্ত

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক চিরদিন অবিচ্ছেদ্য থাকবে। ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশেই থাকবে। এছাড়া বাংলাদেশের উন্নয়নেও ভারত সহযোগিতা করবে।

আজ রবিবার সকালে ঝালকাঠি ও পিরোজপুরের কুড়িয়ানা ও ভিমরুলীর ভাসমান পেয়ারার বাজার পরিদর্শন শেষে কুড়িয়ানা ইউনিয়নের কবিগুরু বরীন্দ্রনাথ ডিগ্রী কলেজ মিলনায়তনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দ্রিরা গান্ধীর নেতৃত্বে বাংলাদেশে-ভারতের মাধ্যে সুসম্পর্কের বীজ বপণ করা হয়েছিলো। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে তা আরও সুদৃঢ় হয়েছে।এ সয়ম ভারতীয় হাই কমিশনের ফাস্ট সেক্রেটারী রাজেশ উকে এবং নবনীতা চক্রবর্তীও তার সঙ্গে ছিলেন। পিরোজপুর ও ঝালকাঠির জেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় সুশিল সমাজের নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এবারে কোলকাতার বাংলা দৈনিকগুলোর বিস্তারিত খবর:

‘সুপ্রিম কোর্ট আমাদের, রাম মন্দির হবেই’, বললেন যোগী মন্ত্রিসভার সদস্য- দৈনিক আনন্দবাজার

উপ-মুখ্যমন্ত্রীর পর এবার সমবায় মন্ত্রী। ফের রাম মন্দির তৈরি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য উত্তরপ্রদেশের বিজেপি নেতার। এবার সরাসরি সুপ্রিম কোর্টকে জড়িয়ে। যোগী আদিত্যনাথ মন্ত্রিসভার সমবায় মন্ত্রী মুকুট বিহারী বর্মা বলেন, অযোধ্যায় রাম মন্দির হবেই। কারণ সুপ্রিম কোর্ট আমাদের। মন্ত্রীর এই মন্তব্যের পরই শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক। বিরোধীদের তোপ তো রয়েছেই, সঙ্গে মুকুট বিহারী আদালত অবমাননার দায়ে পড়তে পারেন বলে মনে করছেন আইনজ্ঞদের একটা বড় অংশ।

শনিবার উত্তরপ্রদেশের বাহরাইচ জেলায় একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন মন্ত্রী মুকুট বিহারি বর্মা। সেখানেই তিনি বলেন, ‘‘অযোধ্যায় রাম মন্দির তৈরি করা আমাদের শপথ। সুপ্রিম কোর্ট আমাদের। আইন ব্যবস্থা, এই দেশ এবং রাম মন্দিরও আমাদের।’’ সাংবাদিকদের তিনি আরও বলেন, উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিজেপি ক্ষমতায় এসেছিল ঠিকই, কিন্তু একই সঙ্গে অযোধ্যায় রাম মন্দির তৈরি করতেও বদ্ধপরিকর তাঁদের দল।

মন্ত্রীর এই মন্তব্যের পরই বিতর্কের ঝড় ওঠে। মুসলিম কট্টরপন্থী সংগঠন ও নেতারা মন্ত্রীর সমালোচনায় সরব হন। সোশ্যাল মিডিয়াতেও মন্ত্রীর সমালোচনায় সরব হন নেটিজেনরা। তার পর অবশ্য চাপে পড়ে অন্য একটি ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন মন্ত্রী। মন্ত্রীর সাফাই, ‘‘সুপ্রিম কোর্ট ‘আমাদের’ বলতে আমি বোঝাতে চেয়েছি, ‘আমাদের দেশের’। কখনওই বলতে চাইনি, শীর্ষ আদালত বিজেপি সরকারের।’’ কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে যখন রাম মন্দির মামলা বিচারাধীন, তখন মন্ত্রীর এই মন্তব্যে নতুন করে বিতর্কে ইন্ধন জুগিয়েছে।

সোদপুরে যাত্রী বিক্ষোভ, ভাঙচুর, রেল অবরোধ: ঘোষণা বিভ্রাটের জের- দৈনিক বর্তমান

শনিবার রণক্ষেত্রের চেহারা নিল সোদপুর স্টেশন চত্বর। ভুল ঘোষণার অভিযোগ তুলে যাত্রীরা রেললাইনে নেমে অবরোধ শুরু করেন। স্টেশনের এক নম্বর প্ল্যাটফর্মের উপর দোতলায় কেবিনে উঠে সমস্ত আসবাবপত্রে ভাঙচুর চালায়। কাচের জানলা ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। সিগন্যাল প্যানেল বোর্ড ভেঙে ফেলা হয়। গুরুত্বপূর্ণ নথি ছিঁড়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়। হামলারকারীদের আক্রমণে স্টেশন ম্যানেজার এস মারাণ্ডি জখম হন। তাঁর মাথায় চোট লাগে। এরপর আরপিএফ, জিআরপি এবং খড়দহ থানার পুলিস র‌্যাফ নিয়ে স্টেশনে হাজির হয়। অফিস টাইমে ঘণ্টাতিনেকের অবরোধে চরম ভোগান্তির মুখে পড়তে হয় যাত্রীদের। টানা অবরোধে তিতিবিরক্ত হয়ে ট্রেনে আটকে থাকা যাত্রীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। শেষে তাঁরাই জোটবদ্ধ হয়ে রেললাইনে নেমে অবরোধকারীদের হটিয়ে দিয়ে ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা করেন।

রেলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বারাকপুর-ইছাপুরে ইন্টারলকিং সিস্টেমের জন্য ট্রেন দেরিতে চলাচলের কথা আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এ সংক্রান্ত খবরও হয়েছে সংবাদমাধ্যমে। এদিন যাত্রীরা সোদপুরে রেল অবরোধে শামিল হয়। সকাল ৯টা ৪৬ মিনিট নাগাদ অবরোধ শুরু হয়। বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ অবরোধ উঠে যায়। অবরোধের জেরে তিনটি আপ এবং ২১টি ডাউন ট্রেন প্রায় আড়াই ঘণ্টা দেরিতে চলে। এছাড়া ২০টি ইএমইউ লোকাল বাতিল করা হয়েছে। একটি এক্সপ্রেস, তিনটি প্যাসেঞ্জার ট্রেন দু’ঘণ্টা দেরিতে চলাচল করেছে।

বৈঠকে যোগ দিতে অস্বীকার, ৩৫ জন গ্রামবাসীকে বেধড়ক মারধর মাওবাদীদের- দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

মাওবাদী

ছত্তিশগড়ের দান্তেওয়াড়ায় ফের মাওবাদীদের দাপট। নিরীহ গ্রামবাসীদের উপর মাও অত্যাচার নতুন মাত্রা নিল। মাওবাদীদের ডাকা বৈঠকে যোগ দিতে অস্বীকার করায় বহু গ্রামবাসীকে বেধড়ক মারধর করল উগ্রপন্থীরা। ঘটনায় অন্তত ৩৫ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর অন্তত ১০।

ছত্তিশগড়ের সুকমা, দান্তেওয়াড়ার মতো জেলাগুলিতে এখনও মাওবাদীদের দাপট কায়েম। শুধু দাপট বললে ভুল হবে, এই এলাকাগুলিতে রীতিমতো সমান্তরাল শাসনব্যবস্থা চালু রেখেছে উগ্র বামপন্থীরা। সুকমা, দান্তেওয়াড়ার বিস্তির্ণ এলাকায় এখনও আইনের শাসন পুরোপুরি পৌঁছাতে পারেনি। দীর্ঘদিন ধরেই এই গ্রামগুলিতে ইচ্ছেমতো অরাজকতা চালাচ্ছে মাওবাদীরা। কিন্তু এবার যা ঘটল তা রীতিমতো অবিশ্বাস্য।

মাও নেতারা বক্তব্য রাখবেন, তাই হাজির থাকতে হবে গ্রামবাসীদের, জঙ্গল লাগোয়া কয়েকটি গ্রামে এই ফরমান জারি করেছিল মাওবাদীরা। পুলিশ সুত্রের খবর, স্থানীয় কুয়াকোন্দা থানার অন্তর্গত ফুলপাড় গ্রামের জনা ৩৫ বাসিন্দা সেই ফরমান মানতে রাজি হননি। মাওবাদীদের ডাকা বৈঠক বয়কটের সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। আদেশ না মানায় ক্ষুব্ধ উগ্রপন্থী সংগঠনের নেতারা গ্রামবাসীদের তুলে নিয়ে যায়। গাছের সঙ্গে বেঁধে পাশবিক অত্যাচার করে ওই ৩৫ জনের উপর। তাঁরা প্রত্যেকেই জখম হয়েছেন। এদের মধ্যে অন্তত ১০ জনের আঘাত গুরুতর।

তো শ্রোতাবন্ধুরা! কথাবার্তার আজকের আসর এ পর্যন্তই। এ আসর নিয়ে আবার আমরা হাজির হব আগামীকাল।#

পার্সটুডে/মুজাহিদুল ইসলাম/৯

২০১৮-০৯-০৯ ১৭:৫৭ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য