২০১৮-১১-১৫ ২০:২০ বাংলাদেশ সময়

পাঠক ! সালাম ও শভেচ্ছা নিন। আশা করি ভালোই আছেন আপনারা।

আপনাদের মনে আছে নিশ্চয়ই মুহাম্মাদ এবং রমিন ১৯৮০ খ্রিষ্টাব্দে ইরানের ওপর সাদ্দামের চাপিয়ে দেওয়া যুদ্ধ নিয়ে কথা বলছিল। ইরানের ইসলামী বিপ্লব বিজয়ের মাত্র দেড় বছরের মাথায় এই যুদ্ধ শুরু হয়েছিল। ইরানের সশস্ত্র বাহিনীকে পুনর্গঠিত করার কাজটিও শেষ হয় নি। এমনকি ইরান সমরাস্ত্রের দিক থেকে ছিল খুবই দুর্বল অবস্থানে। অথচ ইরাক তখন পশ্চিমা দেশগুলোর সহায়তায় অত্যাধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সুসজ্জিত ছিল। এই যুদ্ধে অম্লমধুর বহু দুর্ঘটনা ঘটেছিল। তিক্ত ঘটনার মধ্যে একটি ছিল ইরাকের পক্ষ থেকে রাসায়নিক অস্ত্রের বহুল ব্যবহার। এই গণবিধ্বংসী মারণাস্ত্রটি পশ্চিমা দেশগুলো সাদ্দামকে দিয়েছিল। এই অস্ত্র ব্যবহারের ফলে বহু মানুষ যেমন মারা গিয়েছিল তেমনি হাজার হাজার মানুষ মারাত্মকভাবে আঘাত পেয়েছিল। রাসায়নিক বোমা ব্যবহারের বহু তিক্ত নিদর্শন এখনো ইরানের বিভিন্ন স্থানে লক্ষ্য করা যাবে। যাই হোক পাঠক ! শুরুতেই বরং আজকের আসরে ব্যবহৃত নতুন শব্দগুলোর সাথে পরিচিত হওয়া যাক।

بد - بدتر - بدترین - روز - روزها - جنگ - چه روزهایی - به نظر من - تلخ - تلخ ترين - شيرين - آن داشت - ولي - خوب - چه بود - رويداد - استفاده - رژيم - رژيم صدام - سلاح - شیمیایی - بمب - او استفاده کرد - جبهه - جبهه هاي جنگ - نيرو - نيروها - شكست - آن شكست خورد - حتما" - اثر - آثار - حمله - حملات - هنوز - باقي - آن باقي است - بیمارستان - تو بروي - براي نمونه - عمو - تو می بینی - مجروح - مثل ( مانند ) - بسیاری از - مرد - مردان - جبهه - او رفت - او مجروح شد - واقعا" - دردناک - هم اكنون - حدود - ২০ - سال - آن تمام شده ( است ) - بيمار - او بيمار است - چه مشکلی - او دارد - او نفس می کشد - او نمی تواند نفس بکشد - به راحتی - بیماری - پوستی - شدید - او دارد -

খারাপ / খারাপতরো / খারাপতম / দিন / দিনগুলো / যুদ্ধ / কোন্ দিনগুলো/ আমার দৃষ্টিতে / তিক্ত / তিক্ততম / মিষ্টি / তা ছিল / কিন্তু / ভালো / কী ছিল / ঘটনা / ব্যবহার / সরকার (মন্দ অর্থে) / সাদ্দাম সরকার / অস্ত্র / রাসায়নিক / বোমা / সে ব্যবহার করেছিল / রণাঙ্গন/ যুদ্ধের ময়দানগুলো / শক্তি বা সেনা / সেনারা / পরাজয় / তারা পরাজিত হয় / অবশ্যই / প্রভাব / নিদর্শন / হামলা / হামলাগুলো / এখন পর্যন্ত / বাকি / ওটা বাকি ছিল / হাসপাতাল / তুমি যাও / দৃষ্টান্ত হিসেবে / চাচা / তুমি দেখবে / আহত / মতো / অনেক / পুরুষ / পুরুষেরা / সে গেছে / সে আহত হয়েছে / সত্যিই / দুঃখজনক / এখন / সংখ্যা বোঝাতে ব্যবহৃত হয় / বিশ / বছর / তা শেষ হয়েছে / রোগী / সে রোগী / কী সমস্যা / তার আছে / সে দম নিচ্ছে / সে নিঃশ্বাস নিতে পারছে না / সহজে / রোগ / চর্মের / কঠিন।

নতুন শব্দগুলোর অর্থ শুনলেন এতোক্ষণ। এবারে রমিন এবং মুহাম্মাদের মধ্যকার কথোপকথনগুলো শোনা যাক। প্রথমেই যথারীতি বাংলায় অনুবাদ করে দিচ্ছি। মনোযোগ সহকারে শুনুন।

محمد - بدترین روزهای جنگ چه روزهایی بود ؟ رامین - به نظر من جنگ ، روزهاي تلخ و شيريني داشت . ولی از همه بدتر ...محمد - خوب . از همه بدتر چه بود ؟ رامین - تلخ ترین رويداد جنگ ، استفاده رژيم صدام از سلاح هاي شیمیایی بود . محمد - چرا رژيم صدام از بمب شیمیایی استفاده کرد ؟رامين - چون در جبهه هاي جنگ ، از نيروهاي ايران شكست خورد .محمد - حتما" آثار حملات شيميايي هنوز باقي است . رامین - بله . اگر به بیمارستان بروی ، براي نمونه عموی سعید را مي بینی . محمد - عموی سعید مجروح شیمیایی است ؟رامین - بله . او مثل بسیاری از مردان ایرانی به جبهه رفت و مجروح شیمیایی شد . محمد - واقعا" دردناک است . او هم اكنون در بیمارستان است ؟رامین - بله . حدود ২০ سال است که جنگ تمام شده ، ولی او هنوز بیمار است . محمد - او چه مشکلی دارد ؟رامین - عموی سعید نمی تواند به راحتی نفس بکشد و بیماری پوستی شدید هم دارد .

 

মুহাম্মাদ : যুদ্ধের সময় কোন্ দিনগুলো সবচেয়ে খারাপ ছিল?রমিন : আমার দৃষ্টিতে,যুদ্ধের দিনগুলোতে ভালো-মন্দ দুই-ই ছিল। তবে সবচেয়ে খারাপতরো........মুহাম্মাদ : জ্বি! সবচেয়ে খারাপতরো কী ছিল?রমিন : যুদ্ধের সময় সবচেয়ে তিক্ততম ঘটনা ছিল সাদ্দাম সরকারের রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার।মুহাম্মাদ : সাদ্দাম সরকার কেন রাসায়নিক বোমা ব্যবহার করেছিল?রমিন : কেননা যুদ্ধের ময়দানে তারা ইরানী সেনাদের কাছে পরাজিত হয়েছিল।মুহাম্মাদ : রাসায়নিক বোমা হামলার নিদর্শন এখনো নিশ্চয়ই অবশিষ্ট আছে।রমিন : হ্যাঁ। যদি হাসপাতালে যাও তাহলে দৃষ্টান্ত হিসেবে সাঈদের চাচাকে দেখে এসো। মুহাম্মাদ : সাঈদের চাচা কি রাসায়নিক বোমায় আহত হয়েছিল?রমিন : হ্যাঁ। সে ইরানের বহু লোকের মতোই রণাঙ্গনে গিয়েছিল এবং রাসায়নিক বোমার আঘাতে আহত হয়েছিল।মুহাম্মাদ : সত্যিই দুঃখজনক। সে এখনো হাসপাতালে?রমিন : হ্যাঁ। যুদ্ধ শেষ হয়েছে প্রায় বিশ বছর,কিন্তু সে এখনো অসুস্থ।মুহাম্মাদ : তার সমস্যাটা কী?রমিন : সাঈদের চাচা সহজে নিঃশ্বাস নিতে পারে না এবং কঠিন চর্মরোগও আছে।

 

এই ছিল রমিন এবং মুহাম্মাদের মধ্যকার কথাবার্তা। এবার চলুন তাদের মূল কথোপকথনটি ফার্সীতে শোনা যাক। মনোযোগ দিন,বোঝার চেষ্টা করুন।

محمد - بدترین روزهای جنگ چه روزهایی بود ؟ رامین - به نظر من جنگ ، روزهاي تلخ و شيريني داشت . ولی از همه بدتر ...محمد - خوب . از همه بدتر چه بود ؟ رامین - تلخ ترین رويداد جنگ ، استفاده رژيم صدام از سلاح هاي شیمیایی بود . محمد - چرا رژيم صدام از بمب شیمیایی استفاده کرد ؟رامين - چون در جبهه هاي جنگ ، از نيروهاي ايران شكست خورد .محمد - حتما" آثار حملات شيميايي هنوز باقي است . رامین - بله . اگر به بیمارستان بروی ، براي نمونه عموی سعید را مي بینی . محمد - عموی سعید مجروح شیمیایی است ؟رامین - بله . او مثل بسیاری از مردان ایرانی به جبهه رفت و مجروح شیمیایی شد . محمد - واقعا" دردناک است . او هم اكنون در بیمارستان است ؟رامین - بله . حدود ২০ سال است که جنگ تمام شده ، ولی او هنوز بیمار است . محمد - او چه مشکلی دارد ؟رامین - عموی سعید نمی تواند به راحتی نفس بکشد و بیماری پوستی شدید هم دارد .

কথোপকথনটি শুনলেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। মুহাম্মাদ এবং রমিনের কথাবার্তায় যেমনটি শুনলেন যে সাদ্দামের সেনারা ইরানী জনগণ এবং যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক রাসায়নিক বোমা ব্যবহার করেছিল। ঐ বোমায় হাজার হাজার মানুষ শহীদ হয়েছিল। বিশেষ বিশেষ হাসপাতালগুলোতে এখনো রাসায়নিক বোমায় আহত রোগীদের অনেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। রাসায়নিক বোমায় আহতরা শ্বাস-প্রশ্বাস সমস্যা ও কঠিন চর্মরোগে ভুগছেন। তাছাড়া  স্নায়ু ও মনোরোগেও ভুগছেন অনেকে। এছাড়াও আরো অনেক পরিবার রাসায়নিক বোমার প্রতিক্রিয়ায় বিভিন্ন রকম সমস্যায় ভুগছেন। এ কারণে ইরান সরকার এবং রাসায়নিক বোমার প্রতিক্রিয়ায় ভুক্তভুগিদের একটি দল আন্তর্জাতিক সমাজের কাছে অভিযোগ করে বলেছে-যারা এবং যেসব সরকার এই রাসায়নিক অস্ত্র সাদ্দামকে দিয়েছে এবং যারা নেপথ্যে যারা চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে,তাদের যেন বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়। আমরা আশা করি একদিন সমগ্র বিশ্ব থেকে যুদ্ধ নির্মূল হয়ে যাবে এবং বিশ্বজুড়ে প্রতিষ্ঠিত হবে শান্তি আর বন্ধুত্ব।#

 

পার্সটুডে/নাসির মাহমুদ/মো.আবুসাঈদ/  ১৫

 খবরসহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সব লেখা ফেসবুকে পেতে এখানে ক্লিক করুন এবং নোটিফিকেশনের জন্য লাইক দিন

ট্যাগ

মন্তব্য