শুরুতেই যথারীতি একটি হাদিস। ইমাম রেজা (আ.) বলেছেন, বিপদাপদে ধৈর্য ধরা একটি সুন্দর গুণ ও বৈশিষ্ট্য। আর এর চেয়েও উত্তম হচ্ছে হারাম বিষয়াদির বিপরীতে ধৈর্যধারণ করা।

অর্থাৎ ধৈর্য্য সহকারে হারামগুলো থেকে দূরে থাকা এবং সেগুলো বর্জন করা। সব হারাম বর্জন ও পরিহার করা ফরয তথা অপরিহার্য ও জরুরী।

আসরেরর শুরুতেই যে চিঠি হাতে তুলে নিয়েছি তা এসেছে বাংলাদেশ থেকে। সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরের সূচনা সমাজ কল্যাণ সংঘ থেকে এটি পাঠিয়েছেন এ সংঘের সভাপতি মিজানুর রহমান। এটিকে চিঠি বলার বদলে বরং শ্রবণমান প্রতিবেদন বলা যায়।  এ প্রতিবেদনে গত ১ অক্টোবর প্রচারিত রেডিও তেহরানের শ্রবণ মানকে মোটামুটি ভাল বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া, সামান্য 'নয়েজ' ছিল বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ভাই মিজানুর রহমান পরিশ্রম করে এবং মূল্যবান সময় ব্যয় করে শ্রবণ প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। ভবিষ্যতে আরো চিঠি দেবেন।

বহলুল: আর হ্যা অনুষ্ঠান সম্পর্কেও মতামত জানাবেন বলে আশা করছি। থামুন, থামুন এবারে চিঠি হাতে তুলে নেয়ার আগে একটু কথা শুনুন। হ্যা দেখুন গত আসরে পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমান জেলার পুরনো শ্রোতা ভাই হাফিজুর রহমানের সঙ্গে অনেক কথা হয়েছিল। তার মধ্যে বোধহয় একটা গল্পও শুনিয়েছিলেন।

বহলুল ভাই,শ্রোতাদের বিষয়ে কিছুই ভোলেন না দেখছি। আসলে ভাই হাফিজুর রহমান গল্প বলেছিলেন ঠিকই কিন্তু সময়ে না কুলানোয় গত আসরে সে গল্প প্রচার করা হয়নি। হ্যাঁ আপনি এ ধরণের প্রশ্ন করতে পারেন ভেবেই বিশিষ্ট শিক্ষক হাফিজুর রহমানের সে গল্প আজ শুনবো বলে ঠিক করেছি।

তা হলে আর বিলম্ব কেন। শুনি সে গল্প......   

বহলুল: সত্যি ছোটো-বড়ো সবাই গল্পের ভক্ত। তবে রংধনুর গল্প শুনে দস্যি ছেলেদের ভালো হওয়ার গল্প শুনে সত্যিই মজা পেলাম। দেখেন এ জন্যেই আমি গল্প করি। এই দেখুন না একবার হয়েছে কি..

বহলুল ভাই গল্প শুনতে ভালো লাগে না এমন কথা আমরা কেউ কখনোই বলিনি। তবে এখানে বসে এখন গল্প করলে শ্রোতাবন্ধুদের সঙ্গে আমাদের আলাপ করা সম্ভব হবে না।

হ্যাঁ এবারে ফেসবুক গ্রুপ এবং রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটর খবরে যে সব মন্তব্য হয়েছে সে দিকে নজর দেবো।

বহলুল: আমার একটু তাড়া আছে আমাকে এখন চলে যেতে যাচ্ছে।

না। না। আরেকটু অপেক্ষা করুন। তারপর না হয় একত্রেই যাবো। তাহলে আমিই শুরু করছি। হ্যাঁ  কথিত বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের ফের ‘উইপোকা’ বললেন অমিত শাহ- এই শিরোনামের খবরে বলা হয়েছে, ভারতের বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ কথিত বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের ফের ‘উইপোকা’ বলে অভিহিত করেছেন। বিজেপি-শাসিত মধ্য প্রদেশে দলীয় সমাবেশে ভাষণ দেয়ার সময় তিনি ওই মন্তব্য করেন।

রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এ খবরে পুরনো পাঠক ভাই মন্তব্য করেছেন, উইপোকা বাদ দিলে ভারত যে আর ভারত থাকে না,অমিত বাবু? উইপোকার ঢিবি-গজানো বাল্মিকী বিহনে ভারতের ঐতিহ্য কৃষ্টি সংস্কৃতির প্রাণপ্রবাহ যে হেজে মজে যাবে! হেজেমরে যাওয়া মৃত ভূখণ্ডের কোন্ শ্মশানচারী প্রেত কি আপনি! এদিকে আরেক পুরানো পাঠক ভাই জাফর পাঠান একই খবরে লিখেছেন, বৃটিশদের বহু আগে- মুসলিমরা যখন সিন্ধু বিজয়ের মাধমে এই উপমহাদেশে পদার্পণ করেন- তখন এই উপমাদেশ শত শত খন্ড খন্ড রাষ্ট্রে বিভক্ত ছিল।

তিনি আরো লিখেছেন, মুসলমানরাই পর্যায়ক্রমে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাষ্ট্রগুলি দখল করে বৃহত্তর ভারত প্রতিষ্ঠা করেন এবং শাসন করেন হাজার বছর। তাই বৃহত্তর ভারত বলতে বিজেপিরা বা ভারতীয়রা যা ভাবছে তা সঠিক নয়। মুসলিম নাগরিকদেরকে সম্মান করা উচিৎ ভারতীয় অন্যান্য জাতিগোষ্ঠির- বর্তমান বৃহত্তর ভারত উপহার দেয়ার জন্য।

বহলুল: পাঠক-শ্রোতা ভাইদের ইতিহাস এবং সত্য জ্ঞান সত্যিই আমাদের মোহিত করেছে। ধন্যবাদ ভাইয়েরা।

এদিকে আকাশ প্রতিরক্ষায় ইরান এখন একটি বড় শক্তি- শীর্ষক খবরটি প্রকাশিত হয়েছে ৯ অক্টোবর। এ খবরে বলা হয়েছে, আকাশ প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে ইরান এখন একটি বড় শক্তিতে পরিণত হয়েছে। একথা বলেছেন ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির হাতামি। ফেসবুক গ্রুপে এ খবরে বেশ আলোড়ন তুলেছে।

বহলুল: এ ধরণের খবর যে পাঠকবন্ধুরা খুবই পছন্দ করেন তা আগেও দেখেছি।

জ্বি বহলুল ভাই, এই দেখুন না পাঠক ভাই আলী আকবর এ খবরে মন্তব্য করেছেন আলহামদুলিল্লাহ। অন্যদিকে ভাই শাহ মজিবর রহমান লিখেছেন মাশাল্লাহ্! আরও নিরাপদ হোক ইরানের আকাশ। এ ছাড়া, আরেক ভাই লিখেছেন, আল্লাহ! ইরানের আকাশ শত্রুমুক্ত হোক।

বহলুল: নিশ্চয়ই আল্লাহ তাদের এ আকুল আহ্বান শুনবেন। আসলে বিশ্বের ভালো এবং মজলুম মানুষেরা ইরানের জন্য প্রাণ খুলে দোয়া করেন। এ নিয়ে সন্দেহের অবকাশ মাত্র নেই।

সত্যিই বলেছেন বহলুল ভাই। এদিকে আসরের সময় শেষ হয়ে এসেছে। যারা চিঠি লিখেছেন, ইমেইল করেছেন, আমাদের খবরে মন্তব্য করেছেন, সাক্ষাৎকার দিয়েছেন সবাইকে আবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

সবাই ভাল থাকবেন এবং ওয়েবপেইজের খবরে বেশি বেশি করে মন্তব্য করবেন এই কামনা করে প্রিয়জনের আসর থেকে গানে গানে এখানেই বিদায় চাইছি। ......

খবরসহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সব লেখা ফেসবুকে পেতে এখানে ক্লিক করুন এবং নোটিফিকেশনের জন্য লাইক দিন    

ট্যাগ

২০১৮-১২-০৩ ২০:৩৮ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য