• দ্য ম্যাসেজ ছায়াছবিতে ঐতিহাসিক বদর যুদ্ধের একটি দৃশ্য। এতে আলী (আ.)-্এর কেবল দ্বিধারী তরবারিটি দেখানো হয়েছে।
    দ্য ম্যাসেজ ছায়াছবিতে ঐতিহাসিক বদর যুদ্ধের একটি দৃশ্য। এতে আলী (আ.)-্এর কেবল দ্বিধারী তরবারিটি দেখানো হয়েছে।

ইসলামের স্মরণীয় যুদ্ধগুলোর মধ্যে বদর অন্যতম। এ যুদ্ধ সংক্রান্ত নানা ঐতিহাসিক তথ্য ও ঘটনা-প্রবাহের প্রথম পর্ব তুলে ধরার পর ওই নিবন্ধের দ্বিতীয় পর্ব এখানে দেয়া হল:

অন্যদিকে মহানবী (সা.) বদরের যে প্রান্তে অবস্থান গ্রহণ করেছিলেন সেখানে বৃষ্টির কোন নেতিবাচক প্রভাব ছিল না। এ প্রান্তটি‘ উদওয়াতুদ দুনিয়া’ নামে প্রসিদ্ধ।

বদর অঞ্চলটি একটি বিস্তৃত ভূমি যার দক্ষিণ প্রান্ত উঁচু ও‘ উদওয়াতুল কাছওয়া’ নামে পরিচিত এবং উত্তর প্রান্তটি নিচু ও ঢালু। এ প্রান্তটি‘ উদওয়াতুদ দুনিয়া’ নামে পরিচিত। এ বিস্তৃত ভূমিতে বিভিন্ন ধরনের কূপ থাকার কারণে পর্যাপ্ত পানির সরবরাহ ছিল এবং সব সময় কাফেলাসমূহ এ স্থানে অবতরণ করে বিশ্রাম নিত।

হাব্বাব ইবনে মুনযার নামক এক মুসলিম সেনাপতি রাসূল (সা.)-কে বললেন, “হে আল্লাহর রাসূল! আপনি কি আল্লাহর নির্দেশে এখানে অবস্থান নিয়েছেন নাকি এ স্থানে অবস্থান গ্রহণ যুদ্ধের জন্য উপযোগী মনে করে অবস্থান করছেন?” মহানবী (সা.) বললেন,“ এ বিষয়ে বিশেষ কোন নির্দেশ অবতীর্ণ হয় নি। যদি তোমার মতে অন্য কোন স্থান এটি হতে উপযোগী হয় তা বলতে পার। যদি যুদ্ধের জন্য অধিকতর উপযোগী স্থান পাওয়া যায়,আমরা সেখানে স্থানান্তরিত হব।”

হাব্বাব বললেন,“ আমরা শত্রুর নিকটবর্তী পানির কিনারে অবস্থান নিলে ভালো হবে। সেখানে বড় চৌবাচ্চা তৈরি করলে আমাদের এবং চতুষ্পদ প্রাণীগুলোরও সার্বক্ষণিক পানির ব্যবস্থা হবে।” মহানবী (সা.) তাঁর কথা পছন্দ করলেন এবং সকলকে ঐ স্থানের দিকে যাত্রার নির্দেশ দিলেন। এ ঘটনাটি প্রমাণ করে যে,রাসূল সামাজিক বিষয়ে সব সময় জনমত ও সার্বিক পরামর্শের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিতেন।

নেতৃত্ব মঞ্চ

সা’ দ ইবনে মায়ায মহানবী (সা.)-এর নিকট প্রস্তাব করলেন,“ আপনার জন্য উঁচু টিলার ওপর তাঁবু তৈরি করি যেখান থেকে সমগ্র প্রাঙ্গণের ওপর আপনি দৃষ্টি রাখতে পারবেন। তদুপরি আপনার জন্য কয়েকজন রক্ষী নিয়োজিত করি যাতে করে তারা আপনার নিরাপত্তার প্রতি লক্ষ্য রাখতে পারে এবং আপনার নির্দেশসমূহ যুদ্ধে নিয়োজিত সেনাপতিদের নিকট পৌঁছাতে পারে।

সর্বোপরি যদি এ যুদ্ধে মুসলমানগণ জয়ী হন তবে তো কথাই নেই। আর যদি পরাজিত হন ও সকলে নিহত হন,হে নবী! আপনি দ্রুতগামী উটের সাহায্যে মদীনার দিকে রওয়ানা হয়ে যাবেন। আপনার দেহরক্ষী সৈন্যরা কৌশল অবলম্বন করে যুদ্ধের গতিকে শিথিল করে দিয়ে শত্রুর অগ্রযাত্রাকে প্রতিহত করবে এবং এ সুযোগে আপনি মদীনায় পৌঁছে যাবেন। মদীনায় অনেক মুসলমান রয়েছেন যাঁরা আমাদের অবস্থা সম্পর্কে অনবগত। যখন তাঁরা আমাদের অবস্থা সম্পর্কে অবহিত হবে তখন আপনাকে পূর্ণরূপে সহায়তা দেবে এবং আপনার সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কাজ করবে।

মহানবী (সা.) সা’ দ ইবনে মায়াযের জন্য দোয়া করলেন এবং নির্দেশ দিলেন তাঁর জন্য টিলার ওপর নিরাপত্তা তাঁবু স্থাপন করার যাতে করে সমগ্র প্রাঙ্গণের অবস্থার ওপর দৃষ্টি রাখতে পারেন। মহানবী (সা.)-এর কথা অনুযায়ী নেতৃত্ব মঞ্চ স্থানান্তরিত করা হলো।

নিরাপদ নেতৃত্ব মঞ্চের ওপর দৃষ্টিপাত

মহানবী (সা.)-এ জন্য নিরাপদ নেতৃত্ব মঞ্চ প্রস্তুত ও সা’ দ ইবনে মায়ায ও অন্যান্য আনসার যুবক কর্তৃক তাঁর প্রহরার বিষয়টি তাবারী ইবনে ইসহাক থেকে বর্ণনা করেছেন এবং অন্যরাও তাঁর অনুসরণে তা তাঁদের ইতিহাস গ্রন্থে এনেছেন। কিন্তু নিম্নোক্ত যুক্তিসমূহের ভিত্তিতে বলা যায় যে,এ বিষয়টি গ্রহণযোগ্য নয়।

প্রথমত এ বিষয়টি সৈন্যদের মনোবলকে নিঃসন্দেহে কমিয়ে দেবে এবং তাদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। যদি কোন সেনানায়ক শুধু নিজের জীবন ও নিরাপত্তার কথাই চিন্তা করেন তাঁর অনুগত সেনাদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেন না,সেরূপ সেনানায়ক তাঁর অনুগত সেনাদের প্রভাবিত করতে সক্ষম নন।

দ্বিতীয়ত এ কাজটি মহানবী (সা.) কর্তৃক প্রাপ্ত ঐশী আয়াতে উল্লিখিত সুসংবাদের সঙ্গে মোটেও সামঞ্জস্যশীল নয়। তিনি কুরাইশদের মুখোমুখি হওয়ার পূর্বেই তাঁর সঙ্গীদের সুসংবাদ দিয়ে বলেছিলেন,“ স্মরণ কর যখন আল্লাহ্ তোমাদের নিশ্চিত প্রতিশ্রুতি দান করলেন যে,দুই দলের (বাণিজ্য কাফেলা ও কুরাইশদের সাহায্যকারী দলের) একদলের মুখোমুখি হওয়ার যাতে তোমাদেরই জয় হবে।”

তাবারীর মতে এরূপ সুসংবাদ পাওয়ার পরও যখন বাণিজ্য কাফেলা হাতছাড়া হয়েছিল ও সাহায্যকারী দলটি সামনে উপস্থিত হয়েছিল তখন মহানবী (সা.)-এর জন্য নিরাপদ নেতৃত্ব মঞ্চ তৈরি হয়েছিল। এ সুসংবাদ মতে মুসলমানরা বিজয়ী হবেন এ কথা আগেই জেনেছিলেন। তাই পরাজিত হওয়ার শঙ্কা তাঁদের ছিল না এবং সে আশংকায় নবী (সা.)-এর জন্য নিরাপত্তা মঞ্চ তৈরি ও দ্রুতগামী উট প্রস্তুত রাখার বিষয়টি অর্থহীন ছিল।

ইবনে সা’ দ তাঁর তাবাকাত গ্রন্থে হযরত উমর ইবনে খাত্তাবের নিকট হতে বর্ণনা করেছেন,“ যখন নিম্নোক্ত আয়াতটি অবতীর্ণ হয় এবং একটি দলের পরাজয়ের কথা বলা হয় তখন আমি মনে মনে বললাম : এ আয়াতটিকে কোন্ দলের পরাজয়ের কথা বলা হয়েছে? বদর যুদ্ধের দিন দেখলাম রাসূল (সা.) যুদ্ধের পোশাক পরিধান করেছেন ও জোশের সঙ্গে এ আয়াতটি পড়ছেন। তখন বুঝতে পারলাম আমাদের প্রতিপক্ষ এ দলের পরাজয়ের কথাই এতে বলা হয়েছে।”

ইতিহাসের এ অংশটি লক্ষ্য করেও কি আমরা মহানবী (সা.) ও মুসলমানদের অন্তরে পরাজয়ের শঙ্কা ছিল বলে মনে করব?

তৃতীয়ত হযরত আলী (আ.) যুদ্ধক্ষেত্রে মহানবী (সা.)-এর যে রূপ বর্ণনা করেছেন তার সঙ্গে এ কৌশলটি সংগতিশীল নয়। তিনি হযরত মুহাম্মদ সম্পর্কে বলেছেন,“ যুদ্ধক্ষেত্রে যখনই যুদ্ধ ভয়াবহ রূপ লাভ করত আমরা মহানবীর পশ্চাতে আশ্রয় গ্রহণ করতাম। তখন কোন ব্যক্তিই মহানবী (সা.) হতে শত্রুর নিকটবর্তী থাকত না।” যে ব্যক্তির অবস্থাকে তাঁর প্রথম ছাত্র এভাবে বর্ণনা করেন তাঁর সম্পর্কে কিরূপে আমরা এ সম্ভাবনার কথা বলব যে,তিনি মুসলমানদের প্রথম যুদ্ধে রক্ষণাত্মক ও পলায়নের কৌশল গ্রহণ করেছিলেন।

তাই আমরা ধরে নিতে পারি,নেতৃত্ব মঞ্চটি নিরাপত্তার দৃষ্টিতে নয়,বরং নেতৃত্বের দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করেই প্রস্তুত করা হয়েছিল যাতে করে তিনি সমগ্র রণক্ষেত্রের ওপর দৃষ্টি রাখতে পারেন। কারণ যদি সমরনায়ক সমগ্র রণক্ষেত্রের ওপর নজর রাখতে না পারেন তাহলে তাঁর পক্ষে যুদ্ধকে সঠিকভাবে পরিচালনা করা সম্ভব নয়।

কুরাইশ গোত্রের কার্যক্রম

দ্বিতীয় হিজরীর রমযান মাসের সতের তারিখের সকালে কুরাইশগণ টিলার ওপর হতে বদরের সমতল প্রান্তরে নেমে আসে। যখন মহানবী (সা.) তাদেরকে টিলার ওপর হতে নিচে নামতে দেখলেন তখন আকাশের দিকে তাকিয়ে বললেন,“ হে আল্লাহ্! আপনি জানেন কুরাইশরা অহংকার ও গর্বের সাথে আপনার দীনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে এসেছে,তারা আপনার রাসূলকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছে। হে প্রভু! আমাকে সাহায্যের যে প্রতিশ্রুতি আপনি দিয়েছেন তা কার্যকরী করুন ও আমার শত্রুদের আজ ধ্বংস করুন।”

কুরাইশদের পরামর্শ সভা

কুরাইশরা বদর এলাকার এক প্রান্তে অবস্থান নিলেও মুসলমানদের সংখ্যা ও শক্তি সম্পর্কে অবহিত ছিল না। তাই মুসলমানদের সৈন্য-সংখ্যা সম্পর্কে অবগত হওয়ার উদ্দেশ্যে কোন সমাবেশের লোকসংখ্যা নির্ণয়ে অভিজ্ঞ উমাইর ইবনে ওয়াহাব নামের এক সাহসী ব্যক্তিকে প্রেরণ করল। সে একটি অশ্বে আরোহণ করে মুসলমানদের সেনা-ছাউনীর চারিদিকে ঘুরে এসে জানাল তাদের সংখ্যা প্রায় তিনশ’ । তবে সে এও বলল,আরো একবার ঘুরে দেখে আসা উত্তম,কেননা হতে পারে পেছনে অন্য কেউ লুকিয়ে আছে অথবা কোন সাহায্যকারী দল অবস্থান নিয়ে থাকতে পারে।

সে সমগ্র বদর প্রান্তরে একবার ভালোভাবে অনুসন্ধান চালিয়ে আতঙ্কজনক খবর আনয়ন করল। সে বলল,“মুসলমানদের পেছনে কোন আশ্রয়স্থল নেই,কিন্তু তোমাদের জন্য মদীনা হতে আগত মৃত্যুর বার্তা বহনকারী উটসমূহকে আমি দেখেছি।” অতঃপর বলল,“ মুসলমানদের এক দলকে দেখলাম তাদের তরবারি ছাড়া আর কোন আশ্রয়স্থল নেই। তাদের প্রত্যেকে তোমাদের এক ব্যক্তিকে হত্যা না করা পর্যন্ত নিহত হবে না। যদি তারা তোমাদের হতে তাদের সমসংখ্যক ব্যক্তিকে হত্যা করে তবে তোমাদের জীবনের মূল্য কি? চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের পূর্বে ভেবে দেখ।”

ওয়াকেদী ও আল্লামা মাজলিসী তার বক্তব্যে নিম্নোক্ত কথাগুলোও ছিল বলে উল্লেখ করেছেন:“ তোমরা কি লক্ষ্য করেছ তারা নীরব ও কোন কথা বলছে না,কিন্তু তাদের ইচ্ছাশক্তি ও দৃঢ়তা তাদের চেহারায় স্পষ্ট। তারা বিষাক্ত সাপের মতো জিহ্বাকে মুখের চারিদিকে আবর্তন করাচ্ছে ও ছোবল হানার জন্য প্রস্তুত হয়ে রয়েছে।”

কুরাইশরা দু’ দলে বিভক্ত

এই সাহসী বিচক্ষণ সৈনিকের কথা কুরাইশদের ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলল। আতঙ্ক ও ত্রাস সমগ্র সেনাদলকে আচ্ছন্ন করল। হাকিম ইবনে হাজাম উতবার নিকট গিয়ে বলল,“ উতবা! তুমি কুরাইশদের নেতা। কুরাইশ তাদের বাণিজ্য-পণ্য রক্ষার জন্য মক্কা থেকে এসেছিল। তাদের বাণিজ্য-পণ্য রক্ষা হয়েছে। তাদের অবস্থানও পূর্ণরূপে সুরক্ষিত। এ অবস্থায় হাদরামীর (হাজরামীর) হত্যা ও রক্তপণ এবং মুসলিমদের মাধ্যমে তার সম্পদ লুণ্ঠন ব্যতীত আর কোন সমস্যা নেই। তাই তোমরা হাদরামীর রক্তপণ নিজেরাই আদায় করে মুহাম্মদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হওয়া থেকে বিরত হও।” হাকিমের বক্তব্য উতবার ওপর আশ্চর্য প্রভাব ফেলল। সে দাঁড়িয়ে জনতার উদ্দেশে আকর্ষণীয় বক্তব্যে বলল,“ হে লোকসকল! তোমরা মুহাম্মদের ব্যাপারটি আরবদের ওপর ছেড়ে দাও। যখন আরবরা তার আনীত ধর্মের মূলোৎপাটন করবে ও তার শক্তির ভিতকে উপড়ে ফেলবে তখন আমরাও তার হাত থেকে মুক্তি পাব। আর যদি মুহাম্মদ সফলও হয় সে আমাদের কোন ক্ষতি করবে না। কারণ আমরা আমাদের সর্বোচ্চ ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তার সঙ্গে যুদ্ধ না করে ফিরে যাব। উত্তম হলো আমরা যে পথে এসেছি সে পথে ফিরে যাই।”

হাকিম উতবার কথাটি আবু জাহলকে জানাল। সে সময় আবু জাহল যুদ্ধের বর্ম পরিধান করছিল। উতবার কথা শুনে সে খুবই রাগান্বিত হলো। সে এক ব্যক্তিকে হাদরামীর ভ্রাতা আমের হাদরামীর নিকট পাঠিয়ে জানাল,“ যখন তুমি তোমার ভ্রাতার রক্ত ঝরতে দেখছ তখন তোমার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ উতবা জনতাকে তোমার ভাইয়ের রক্তের বদলা নিতে বিরত থাকার আহবান জানাচ্ছে। তাই কুরাইশদেরকে তোমার ভ্রাতার রক্তের বদলা নেয়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তা স্মরণ করিয়ে দাও ও তোমার ভ্রাতার মৃত্যুর জন্য মর্সিয়া পড়।”

আবু আমের তার মাথাকে অনাবৃত করে সাহায্যের আহবান জানিয়ে আর্তনাদ করে বলল,“ হায় আমের! হায় আমের!”

আবু আমেরের আর্তনাদ ও মর্সিয়া কুরাইশদের ধমনীতে আত্মসম্মানবোধের শোণিতধারা প্রবাহিত করল। তারা যুদ্ধের জন্য সংকল্পবদ্ধ হলো। উতবার আহবান তাদের জোশে স্তিমিত হয়ে গেল। এমনকি গোত্রপ্রীতি ও সম্মানবোধের এ সার্বিক অনুভূতি উতবাকেও প্রভাবিত করল। সেও উজ্জীবিত হয়ে যুদ্ধের পোশাক পরিধান করে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হলো।

কখনো কখনো যে,ভিত্তিহীন উত্তেজনা ও অনুভূতি চিন্তা ও বুদ্ধিবৃত্তির আলোকে নির্বাপিত করে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের আশাকে নস্যাৎ করে দেয় এটি তার একটি দৃষ্টান্ত। যে ব্যক্তি কিছুক্ষণ পূর্বেও শান্তি ও সমঝোতাপূর্ণ সহাবস্থানের আহবান জানাচ্ছিল,সেই গোত্রপ্রীতির গোঁড়ামির অনুভূতিতে সাড়া দিয়ে যুদ্ধের ময়দানে অগ্রগামী হলো।

যে ঘটনা যুদ্ধকে অবশ্যম্ভাবী করে তুলল

আসওয়াদ মাখযুমী একজন রুক্ষ মেজাজের লোক ছিল। তার দৃষ্টি যখন মুসলমানদের নির্মিত হাউজের (চৌবাচ্চা) ওপর পড়ল সে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নিল এ হাউজ থেকে পানি পান করার অথবা সেটি নষ্ট করার। এজন্য সে প্রাণ বিসর্জন দিতেও কুণ্ঠিত ছিল না। তাই মুশরিকদের ছাউনি থেকে বেরিয়ে সে হাউজের নিকটে এল। সে সময় ইসলামের মহান সৈনিক হযরত হামযাহ্ (রা.) সেখানে প্রহরারত ছিলেন। সে পানির নিকট পৌঁছে তাঁর সঙ্গে যুদ্ধে রত হলে তিনি তরবারির এক আঘাতে তার এক পা বিচ্ছিন্ন করলেন। এ অবস্থায়ই সে তার উদ্দেশ্য চরিতার্থ করতে পানির দিকে অগ্রসর হলে হযরত হামযাহ্ সেখানে তাকে হত্যা করলেন।

এ ঘটনাটি যুদ্ধকে অবশ্যম্ভাবী করে তুলল। কারণ কোন দলকে যুদ্ধে উদ্দীপিত করার জন্য হত্যা অপেক্ষা উত্তম কোন ইস্যু থাকতে পারে না। কুরাইশদের যে দলটির অন্তরে বিদ্বেষের আগুন জ্বলছিল ও যুদ্ধের জন্য বাহানা খুঁজছিল এজন্য উত্তম বাহানা হাতে পেল। এরূপ অস্ত্র হাতে পেয়ে তারা যুদ্ধকে অবশ্যম্ভাবী করে তুলল।

মল্লযুদ্ধের শুরু

আরবের প্রাচীন যুদ্ধরীতি ছিল মল্লযুদ্ধের মাধ্যমে শুরু হওয়া। অতঃপর সম্মিলিত যুদ্ধ শুরু হতো।

আসওয়াদ মাখযুমী নিহত হওয়ার পর কুরাইশের তিন প্রসিদ্ধ বীর সামনে এগিয়ে এসে মুসলমানদের উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিল। এরা তিনজন হলো রাবীয়ার পুত্র উতবা ও শাইবা এবং উতবার পুত্র ওয়ালিদ। সুসজ্জিত এ তিন বীর। এরা যুদ্ধের ময়দানের মাঝে অশ্বের পদশব্দ তুলে প্রতিদ্বন্দ্বী আহবান করল। আনসারদের মধ্য হতে তিন সাহসী যুবক আওফ,সাউয ও আবদুল্লাহ্ ইবনে রাওয়াহা মুসলমানদের সৈন্য-ছত্র হতে বেরিয়ে এসে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলেন। কিন্তু উতবা যেহেতু জানত এরা মদীনার আনসার সেহেতু তাদের উদ্দেশে বলল,“ তোমাদের সঙ্গে আমাদের কোন কাজ নেই।”

অতঃপর এক ব্যক্তি চিৎকার করে বলল,“ হে মুহাম্মদ! আমাদের সমমর্যাদার ও সমগোত্রীয় কোন ব্যক্তিকে প্রেরণ কর।” রাসূল (সা.) উবাইদাহ্ ইবনে হারেস ইবনে আবদুল মুত্তালিব,হামযাহ্ এবং আলীকে সামনে এগিয়ে আসার নির্দেশ দিলেন। এ তিন সাহসী বীর নিজ মুখমণ্ডল আবৃত করে সামনে এসে দাঁড়ালেন এবং নিজ নিজ পরিচয় দান করলেন। উতবা এ তিন ব্যক্তিকে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে গ্রহণ করে বলল,“ তোমরা আমাদের সমকক্ষ।”

কেউ কেউ বলেছেন,এ মল্লযুদ্ধে প্রত্যেকে তাঁর সমবয়সীর সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিলেন। সবচেয়ে তরুণ আলী (আ.) মুয়াবিয়ার মামা ওয়ালিদের সঙ্গে,মধ্যবয়সী হামযাহ্ মুয়াবিয়ার নানা উতবার সঙ্গে এবং বৃদ্ধ উবাইদাহ্ শাইবার সঙ্গে দ্বন্দ্বযুদ্ধে অবতীর্ণ হন। অবশ্য ইবনে হিশাম শাইবাকে হযরত হামযার এবং উতবাকে হযরত উবাইদার প্রতিদ্বন্দ্বী বলেছেন। এখন আমরা দেখব কোন্ মতটি সঠিক। দু’ টি বিষয়কে বিশ্লেষণ করলে সত্য আমাদের নিকট স্পষ্ট হবে।

প্রথমত ঐতিহাসিকগণ উল্লেখ করেছেন,আলী ও হামযাহ্ তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বীকে প্রথম আক্রমণেই পরাস্ত করতে সক্ষম হন। তাঁরা তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বীকে হত্যার পরই উবাইদার সাহায্যে এগিয়ে যান ও তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীকে হত্যা করেন।

দ্বিতীয়ত আমীরুল মুমিনীন আলী (আ.) মুয়াবিয়ার প্রতি প্রেরিত তাঁর পত্রে বলেছেন,

و عندی السّیف الّذی اعضضته بجدّک و خالک و أخیک فی مقام واحد

“ আমার নিকট সেই তরবারি রয়েছে যার দ্বারা তোমার নানা (হিন্দার পিতা উতবা),মামা (ওয়ালিদ ইবনে উতবা) এবং ভ্রাতাকে (হানযালা ইবনে আবি সুফিয়ান)-কে হত্যা করেছি। আমি এখনও সেই রূপ শক্তির অধিকারী।”

এ পত্র হতে স্পষ্ট যে,হযরত আলী (আ.) মুয়াবিয়ার নানা উতবার হত্যায় অংশগ্রহণ করেছেন। অন্যদিকে আমরা জানি হযরত আলী ও হামযাহ্ তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বীকে কোন প্রতি-আক্রমণের সুযোগ না দিয়েই হত্যা করেছিলেন।

যদি উতবা হযরত হামযার প্রতিদ্বন্দ্বী হতো তবে হযরত আলী বলতেন না,‘ আমি তরবারির আঘাতে তোমার নানাকে হত্যা করেছি’ । সুতরাং স্পষ্ট যে,হযরত হামযার প্রতিদ্বন্দ্বী শাইবা ছিল এবং হযরত উবাইদার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল উতবা। তাই হযরত আলী ও হামযাহ্ স্বীয় প্রতিদ্বন্দ্বীকে হত্যার পর উতবাকে হত্যায় অংশ নিয়েছিলেন।

সম্মিলিত আক্রমণ শুরু হলো

কুরাইশদের প্রসিদ্ধ যোদ্ধারা পরাস্ত হলে সম্মিলিত যুদ্ধ শুরু হলো। মহানবী (সা.) তাঁর নেতৃত্বের স্থান হতে নির্দেশ দিলেন মুসলিম যোদ্ধারা যেন সম্মিলিত যুদ্ধ শুরুর পূর্বে মুশরিকদের অগ্রাভিযান প্রতিরোধ করতে শত্রুদের উদ্দেশে তীর নিক্ষেপ করে।

অতঃপর নেতৃত্ব মঞ্চ হতে নিচে নেমে এসে সৈন্যদলকে বিন্যস্ত করলেন। এ সময় সাওয়াদ ইবনে আজিয়া সেনাসারি হতে এগিয়ে এলে মহানবী (সা.) তাঁর ছড়ি দিয়ে তাঁর পেটে মৃদু আঘাত করলেন ও তাঁকে পিছিয়ে যাওয়ার আদেশ দিলেন। সাওয়াদ রাসূলের উদ্দেশে বললেন,“ আপনি অন্যায়ভাবে আমাকে আঘাত করেছেন,আমি এর কিসাস চাই।” মহানবী (সা.) মুহূর্ত বিলম্ব না করে স্বীয় জামা উঠিয়ে প্রতিশোধ নিতে বললেন। সৈন্যদল আশ্চর্য হয়ে মহানবীর দিকে তাকিয়ে রইলেন। সাওয়াদ তাঁর পবিত্র বুকে চুম্বন করলেন এবং ঘাড়ে হাত রেখে বললেন,“ আমার শেষ জীবন পর্যন্ত আপনার বুকে চুম্বন করতে চাই।”

অতঃপর মহানবী (সা.) তাঁর নেতৃত্ব মঞ্চের স্থানে ফিরে এসে পূর্ণ ঈমানসহ মহান আল্লাহর উদ্দেশে বললেন,“হে প্রভু! যদি এ দলটি আজকে ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় তবে পৃথিবীর বুকে আপনার ইবাদাত করার মতো কেউ থাকবে না।”

সম্মিলিত আক্রমণের ঘটনাটি বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যসহকারে ইতিহাস গ্রন্থসমূহে বর্ণিত হয়েছে। তাতে এ বিষয়টি নিশ্চিত যে,মহানবী (সা.) নেতৃত্ব মঞ্চ হতে অনেক বারই নিচে নেমে এসেছেন এবং মুসলমানদেরকে আল্লাহর পথে যুদ্ধের জন্য উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করেছেন। একবার তিনি মুসলমানদের উদ্দেশে উচ্চৈঃস্বরে বলেছেন,

و الذی نفس محمّد بیده لا یقاتلهم الیوم رجل فیقتل صابرا محتسبا مقبلا غیر مدبر إلّا ادخله الله الجنة

“ সেই আল্লাহর শপথ,যার হাতে আমার (মুহাম্মদের) প্রাণ নিবদ্ধ,আজকের দিনে যে ব্যক্তি ধৈর্যের সাথে আল্লাহর জন্য যুদ্ধ করে নিহত হবে,আল্লাহ্ তাকে বেহেশতে প্রবেশ করাবেন।”

সমরনায়কের এরূপ বক্তব্যে সৈন্যরা কেউ কেউ এতটা অনুপ্রাণিত হলেন যে,দ্রুত শহীদ হওয়ার আকাঙ্ক্ষায় স্বীয় বর্ম খুলে রেখে যুদ্ধে লিপ্ত হলেন। উমাইর ইবনে হিমাম রাসূল (সা.)-কে জিজ্ঞাসা করলেন,“ আমার নিকট থেকে বেহেশতের দূরত্ব কতটুকু?” রাসূল বললেন,“ কাফিরদের নেতাদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার পরিমাণ।” তাঁর হাতে কয়েক টুকরা খেজুর ছিল যা তিনি দূরে নিক্ষেপ করলেন এবং যুদ্ধে লিপ্ত হলেন। অতঃপর মহানবী (সা.) এক মুঠো মাটি নিয়ে কাফিরদের উদ্দেশে নিক্ষেপ করে বললেন,“ তোমাদের মুখমণ্ডলসমূহ বিকৃত হোক!” এরপর সম্মিলিত আক্রমণের নির্দেশ দিলেন। কিছুক্ষণের মধ্যে মুসলমানদের শিবিরে জয়ের আভাস লক্ষ্য করা গেল। শত্রুরা সম্পূর্ণরূপে পরাস্ত হয়ে পালাতে শুরু করল। যেহেতু মুসলিম সেনারা ঈমানের বলে বলীয়ান ছিলেন এবং তাঁরা জানতেন হত্যা করা এবং নিহত হওয়া উভয়ই তাঁদের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে তাই কোন কিছুতেই তাঁরা ভীত ছিলেন না এবং কোন কিছুই তাঁদের অগ্রযাত্রাকে রহিত করতে পারছিল না।

অধিকার রক্ষা

দু’ ধরনের ব্যক্তির অধিকার রক্ষার প্রতি দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন ছিল;তাদের একদল হলো সেই সমস্ত ব্যক্তি যারা মক্কায় অবস্থানকালীন সময় মুসলমানদের প্রতি সদাচরণ করেছিল ও পৃষ্ঠপোষকতা দান করেছিল,যেমন আবুল বাখতারী- যে মুসলমানদের ওপর আরোপিত অবরোধ তুলে নেয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিল। অপর দল হলো সেই সকল ব্যক্তি যারা ইসলাম ও মহানবী (সা.)-এর প্রতি অন্তর হতে ভালোবাসা প্রদর্শন করত এবং তাঁদের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিল,কিন্তু কুরাইশদের সাথে রণাঙ্গনে আসতে বাধ্য হয়েছিল। যেমন রাসূলের চাচা আব্বাসের মতো বনি হাশিমের কিছু সংখ্যক ব্যক্তি।

যেহেতু ইসলামের নবী রহমত ও অনুগ্রহের আধার ছিলেন সেহেতু এ দু’ ধরনের ব্যক্তির রক্ত ঝরানো হতে নিবৃত থাকতে বিশেষভাবে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

জানমালের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ

এ যুদ্ধে ১৪ জন মুসলমান ও ৭০ জন কাফির নিহত হয় এবং ৭০ জন মুসলমানদের হাতে বন্দী হয়। বন্দীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল নাদার (নাজার) ইবনে হারেস,উকবা ইবনে আবি মুয়ীত,আবু গাররাহ্,সুহাইল ইবনে আমর,আব্বাস ইবনে আবদুল মুত্তালিব এবং আবুল আস।

বদর যুদ্ধের শহীদদেরকে রণক্ষেত্রের এক প্রান্তে সমাধিস্থ করা হয়েছিল যা এখনও বিদ্যমান। রাসূল (সা.) কুরাইশদের মৃতদেহগুলোকে একস্থানে জমায়েত করে একটি কূপে নিক্ষেপ করার নির্দেশ দিলেন। যখন ওকবার মৃতদেহ টেনে-হিঁচড়ে কূপের দিকের নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তখন তার পুত্র আবু হুযাইফা তা লক্ষ্য করে বিমর্ষ হয়ে পড়লেন। মহানবী (সা.) তা বুঝতে পেরে বললেন,“ তোমার মনে কোন প্রকার সন্দেহের উদ্রেক হয়েছে কি?” তিনি বললেন,“ না,তবে আমি আমার পিতাকে জ্ঞানী, ধৈর্যশীল ও সম্মানার্হ ব্যক্তি হিসাবে জানতাম এবং সব সময় ভাবতাম এ বিষয়গুলো তাকে ইসলামের দিকে পরিচালিত করবে। কিন্তু এখন দেখতে পাচ্ছি আমার ধারণা ভুল ছিল।”

তোমরা তাদের চেয়ে বেশি শ্রবণকারী নও

বদরের যুদ্ধের অবসান ঘটল এবং কুরাইশরা চরমভাবে পরাস্ত হলো। তাদের মধ্যে ৭০ জন নিহত ও ৭০ জন বন্দী হয়েছিল,বাকীরা রণক্ষেত্র হতে পালিয়ে গিয়েছিল। তাদের মৃতদেহগুলোকে রাসূলের নির্দেশে একটি বড় কূপে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। যখন তাদের মৃতদেহগুলোকে কূপে নিক্ষেপ করা হলো মহানবী (সা.) একে একে তাদের নাম ধরে ডেকে বললেন,“ হে উতবা,শাইবা,উমাইর,আবু জাহল... তোমরা কি তোমাদেরকে যে প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে তোমাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে তাকে সত্য হিসাবে পেয়েছ? (জেনে রাখ) আমি আমার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে প্রাপ্ত প্রতিশ্রুতি সত্য হিসাবে পেয়েছি।” এ সময় মুসলমানদের মধ্য থেকে কেউ কেউ রাসূলকে প্রশ্ন করলেন,“ যারা মৃত্যুবরণ করেছে তাদেরকে লক্ষ্য করে কি আপনি কথা বলছেন?” রাসূল (সা.) বললেন,“ তোমরা তাদের থেকে অধিকতর শ্রবণকারী নও, কিন্তু তাদের উত্তর দানের ক্ষমতা নেই।”

ইবনে হিশাম বর্ণনা করেছেন,এ সময় রাসূল (সা.) তাদের (মৃতদের) উদ্দেশে আরো বলেন,“ কত নিকৃষ্ট আত্মীয় (ও প্রতিবেশী) ছিলে তোমরা! তোমরা আমাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছ,কিন্তু অন্যরা আমাকে সত্য প্রতিপন্ন করেছে। তোমরা আমাকে আমার জন্মভূমি হতে বিতাড়িত করেছ,অন্যরা আমাকে আশ্রয় দিয়েছে। তোমরা আমার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছ,অন্যরা আমাকে সাহায্য করেছে। তোমরা কি প্রতিপালকের পক্ষ হতে আগত প্রতিশ্রুতিকে সত্য হিসাবে পেয়েছ?”

মদীনায় মহানবী (সা.)-এর সুসংবাদ প্রেরণ

রাসূল (সা.) আবদুল্লাহ্ ইবনে রাওয়াহা ও যায়েদ ইবনে হারেসাকে দূত হিসাবে মদীনায় মুসলমানদের বিজয়ের বার্তা বয়ে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিলেন। সে সাথে কাফিরদের পরাজয় এবং উতবা,শাইবা,আবু জাহল,যামআ,উমাইয়্যা,নাবিয়াহ্,মানবা ও আবুল বাখতারীসহ বড় বড় কাফির নেতার নিহত হওয়ার বার্তাও তাঁরা পৌঁছালেন। রাসূলের প্রেরিত দূতরা যখন মদীনায় পৌঁছেন তখন মুসলমানরা রাসূলের কন্যা ও হযরত উসমানের স্ত্রীর দাফনের কাজে নিয়োজিত ছিলেন। ফলে যুদ্ধের বিজয়ের সঙ্গে রাসূলের কন্যা-বিয়োগের ঘটনা মিশ্রিত হয়ে গেল।

যা হোক,বদর যুদ্ধে মুসলমানদের বিজয়ের ঘটনাটি মক্কার মুশরিক এবং মদীনার ইয়াহুদী ও মুনাফিকদের মনে আতংক ও ভীতির সঞ্চার করল। কারণ তারা কখনই বিশ্বাস করতে পারে নি এরূপ বিজয় মুসলমানদের ভাগ্যে ঘটবে। তাই প্রচার করতে চাইল এ খবর মিথ্যা। কিন্তু মুসলমানদের বিজয়ী দল যখন বন্দীদের সঙ্গে নিয়ে মদীনায় প্রবেশ করল তখন সকল সংশয় ও মিথ্যার অপনোদন ঘটল।

মক্কাবাসীদের কাছে কাফির নেতাদের নিহত হওয়ার সংবাদ

হাইসামানে খাজায়ী প্রথম ব্যক্তি হিসাবে মক্কায় প্রবেশ করে বদরের রক্তক্ষয়ী ঘটনা সম্পর্কে (যাতে তাদের গোত্রপ্রধানরা নিহত হয়েছিল) মক্কাবাসীদের অবহিত করল। আবু রাফে যিনি হযরত আব্বাস ইবনে আবদুল মুত্তালিবের দাস ছিলেন ও পরবর্তীতে হযরত মুহাম্মদ (সা.) ও হযরত আলী (আ.)-এর প্রিয়ভাজন হিসাবে পরিণত হয়েছিলেন তিনি বর্ণনা করেছেন,“ সে সময় ইসলামের আলোয় হযরত আব্বাসের গৃহ আলোকিত হয়েছিল। হযরত আব্বাস,তাঁর স্ত্রী উম্মুল ফযল ও আমি ইসলাম গ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু ভয়ে আমাদের ঈমানকে গোপন রেখেছিলাম। যখন ইসলামের শত্রুদের মৃত্যুর খবর মক্কায় পৌঁছল আমরা অত্যন্ত আনন্দিত হয়েছিলাম। কিন্তু কুরাইশ ও তাদের সমর্থকরা খুবই ব্যথিত হয়েছিল। আবু লাহাব নিজে যুদ্ধে অংশগ্রহণ না করলেও অন্য এক ব্যক্তিকে তার স্থলে যুদ্ধ করার জন্য ভাড়া করেছিল। ঐ মুহূর্তে সে কাবার নিকটবর্তী জমজম কূপের নিকটে বসেছিল। এ সময় খবর পৌঁছল আবু সুফিয়ান ইবনে হারেস (হারব) মক্কায় পৌঁছেছে। সে আবু সুফিয়ানকে খবর পাঠাল যত দ্রুত সম্ভব যেন তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। সে এসে আবু লাহাবের পাশে বসল এবং বদরের ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ দিল। ঘটনার বিবরণ তার ওপর বজ্রপাতের মতো আপতিত হলো এবং সে ভয়ে শিহরিত হলো। সে দিনই সে জ্বরে আক্রান্ত হলো এবং বিশেষ কষ্টকর রোগে আক্রান্ত হয়ে এক সপ্তাহ পর মৃত্যুবরণ করল।

রাসূল (সা.)-এর চাচা আব্বাসের বদর যুদ্ধে অংশগ্রহণের বিষয়টি ইতিহাসের একটি জটিল প্রশ্ন। তিনি এ যুদ্ধে মুসলমানদের হাতে বন্দী হয়েছিলেন। তিনি এ যুদ্ধে মুশরিকদের সঙ্গে বদরে এসেছিলেন,অন্যদিকে তিনিই সে ব্যক্তি যিনি আকাবার শপথ গ্রহণের দিন মদীনার আনসারদের আহবান জানিয়েছিলেন রাসূলকে সাহায্য করার জন্য। এ প্রশ্নের সমাধান দিয়েছে তাঁর দাস আবু রাফের বক্তব্য। আবু রাফে বলেছেন,“ তিনিও তাঁর ভ্রাতা আবু তালিবের ন্যায় একত্ববাদী ধর্ম ইসলাম ও তার নবীর প্রতি ঈমান এনেছিলেন,কিন্তু সে সময়ের দাবি অনুযায়ী তিনি তাঁর ঈমানকে গোপন রেখেছিলেন এবং এভাবে মহানবীকে সাহায্য করতে প্রয়াস পেয়েছিলেন। তিনি কুরাইশদের গোপন ষড়যন্ত্র সম্পর্কে রাসূলকে অবহিত করতেন। যেমন উহুদের যুদ্ধে কুরাইশদের পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি পূর্বেই রাসূলকে অবহিত করেছিলেন।”

যা হোক কুরাইশদের সত্তর ব্যক্তির মৃত্যুর খবরটি সমগ্র মক্কাবাসীকে শোকাভিভূত করল এবং তাদের সকল সুখ ও আনন্দকে কেড়ে নিল।

ক্রন্দন ও শোকগাথা পাঠ নিষিদ্ধ হলো

আবু সুফিয়ান মক্কাবাসীদের ক্রোধকে উজ্জীবিত রাখা ও তাদের বীরদের রক্তের প্রতিশোধ গ্রহণের স্পৃহাকে জাগরিত করার লক্ষ্যে ক্রন্দন ও শোকগাথা পাঠ নিষিদ্ধ ঘোষণা করল ও কবিতা পাঠের আসর হতে নিবৃত হওয়ার নির্দেশ দিল। কারণ ক্রন্দন ও শোকগাথা পাঠ প্রতিশোধ স্পৃহাকে স্তিমিত করে এবং শত্রুর মনোবলকে বাড়িয়ে দেয়। সে মক্কাবাসীদের জন্য ফরমান জারি করল যে,মুসলমানদের কাছ থেকে কুরাইশরা রক্তের প্রতিশোধ গ্রহণ না করা পর্যন্ত যেন স্ত্রীদের সঙ্গে মিলিত না হয়।

বন্দীদের ব্যাপারে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত

বদর যুদ্ধে বন্দীদের ব্যাপারে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত গৃহীত হলো যে,তাদের মধ্যে যারা শিক্ষিত তাদের প্রত্যেকে মুসলিম শিশুদের ১০ জনকে শিক্ষা দান করবে। যারা অশিক্ষিত তারা তাদের অর্থনৈতিক পদমর্যাদা অনুযায়ী এক হাজার হতে চার হাজার দিরহাম মুক্তিপণ হিসাবে দিবে। যাদের কোন অর্থ-সম্পদ নেই তারা কোন মুক্তিপণ ছাড়াই মুক্তি লাভ করবে। এ খবর মক্কাবাসীদের নিকট পৌঁছলে বন্দীদের আত্মীয়স্বজনরা খুব খুশী হলো। তারা তাদের বন্দীদের মুক্ত করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অর্থ নিয়ে মদীনার দিকে যাত্রা করল। তারা মুক্তিপণ দানের মাধ্যমে নিজ নিজ আত্মীয়দের মুক্ত করে নিল। যখন সুহাইল ইবনে আমর মুক্তিপণ আদায়ের মাধ্যমে মুক্তিপণ লাভ করল তখন রাসূলের এক সাহাবী তাঁর নিকট অনুমতি চাইলেন সুহাইলের সামনের দাঁতগুলো উপড়ে ফেলার জন্য যাতে করে সে ইসলামের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাতে না পারে। মহানবী (সা.) অনুমতি দিলেন না,বরং বললেন,“ এরূপ অঙ্গহানি করার অধিকার ইসলাম কাউকে দেয় নি।”

রাসূলের কন্যা যয়নাবের স্বামী আবুল আস একজন ব্যবসায়ী ও মক্কার সম্ভ্রান্ত ব্যক্তি ছিলেন। তিনি ইসলামপূর্ব যুগে রাসূলের কন্যাকে বিবাহ করেছিলেন। মহানবীর নবুওয়াত লাভের পর তাঁর স্ত্রী ইসলাম গ্রহণ করলেও তিনি অমুসলিম থেকে যান।

বদরের যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে তিনি মুসলমানদের হাতে বন্দী হন। সে সময় তাঁর স্ত্রী মক্কায় অবস্থান করছিলেন। স্বামীর বন্দী হওয়ার কথা শুনে তাঁকে মুক্ত করার জন্য স্বীয় গলার হার যা তাঁর মা হযরত খাদীজাহ্ তাঁকে তাঁর বিবাহের রাতে উপহার দিয়েছিলেন তা মদীনায় পাঠালেন। মহানবী হযরত খাদীজার হারটির প্রতি লক্ষ্য করে কান্নায় ভেঙে পড়লেন। তিনি তাঁর জীবনের সংকটময় মুহূর্তে হযরত খাদীজার ভূমিকার কথা স্মরণ করে কাঁদছিলেন। কারণ সংকটময় সেই মুহূর্তে হযরত খাদীজাহ্ তাঁর পাশে ছিলেন এবং তাঁর সমস্ত সম্পদ ইসলামের সেবায় বিলিয়ে দিয়েছিলেন।

মহানবী (সা.) মুসলমানদের বায়তুল মাল (সাধারণ সম্পদ) সংরক্ষণে খুব তৎপর ছিলেন। মুসলমানদের অধিকার যেন সংরক্ষিত থাকে এজন্য তিনি তাদেরকে লক্ষ্য করে বললেন,“ এই গলার হারটি তোমাদের সকলের সম্পদ,যদি তোমরা অনুমতি দাও তবে আবুল আসকে কোন মুক্তিপণ ছাড়াই মুক্তি দিয়ে এ গলার হারটি যয়নাবকে ফিরিয়ে দেব।” রাসূলের সঙ্গীরা সর্বসম্মতভাবে তাঁর প্রস্তাব মেনে নিলেন। মহানবী আবুল আসকে মুক্ত করে দিয়ে তাঁর কাছ থেকে প্রতিশ্রুতি গ্রহণ করলেন যে,যয়নাবকে তিনি মুক্ত করে মদীনায় পাঠিয়ে দেবেন। তিনি তাঁর প্রতিশ্রুতি মোতাবেক যয়নাবকে মুক্ত করে মদীনায় পাঠিয়ে দিলেন এবং ইসলাম গ্রহণ করলেন।#

[সূত্র: আয়াতুল্লাহ জাফর সুবহানির লেখা বই ‘চিরভাস্বর মহানবী (সা)’, প্রথম খণ্ড]

পার্সটুডে/মু.আ. হুসাইন/২৩

 

 

২০১৮-০৬-০৩ ০১:৩০ বাংলাদেশ সময়
মন্তব্য