বিশ্ব কুদস দিবস: মুসলমানদের দায়িত্ব সচেতন হয়ে ওঠার দিন

বিশ্ব কুদস দিবস: মুসলমানদের দায়িত্ব সচেতন হয়ে ওঠার দিন

ভূমিকা: শুধু নিজ দেশ বা জাতি নয় বরং গোটা বিশ্বকে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে যারা সঠিক পথের দিশা দিতে পারেন তারাই বিশ্ব নেতা। আজ কিংবা আগামী দু-চার-পাঁচদিনের ঘটনাবলী সম্পর্কে আগাম ভবিষ্যদ্বাণী করে সেজন্য জাতিকে প্রস্তুত করার মতো নেতার অভাব পৃথিবীতে নেই। কিন্তু আগামী অর্ধশতাব্দি বা একশ’ বছর পর কি হতে পারে সেজন্য গোটা জাতি বা মুসলিম উম্মাহকে প্রস্তুত করে যেতে পারেন এমন নেতা সত্যিই বিরল। বিংশ শতাব্দির এমন একজন ক্ষণজন্মা পুরুষ ছিলেন ইমাম খোমেনী (রহ.)।

ইসলামী পুনর্জাগরণ ও  সভ্যতার গৌরবোজ্জ্বল দিশারি ইমাম খোমেনী (র)

ইসলামী পুনর্জাগরণ ও সভ্যতার গৌরবোজ্জ্বল দিশারি ইমাম খোমেনী (র)

১৯৮৯ সালের চৌঠা জুন ইসলামী আদর্শবাদী এবং মুক্তিকামী জাগরণের কাছে এক গভীর শোকের দিন। কারণ এই দিনে ইন্তেকাল করেছিলেন আধুনিক বিশ্বে কিংবদন্তীতুল্য ইসলামী বিপ্লব ও ইসলামী রাষ্ট্রের রূপকার এবং ইরানের অবিসম্বাদিত নেতা ও মুক্তিকামী জাতিগুলোর হৃদয়ের মুকুটহীন সম্রাট আয়াতুল্লাহিল উজমা ইমাম খোমেনী (র)।

জান্নাতুল বাকিতে ওয়াহাবিদের ধ্বংসযজ্ঞ ওদের ইহুদিবাদী স্বভাবেরই প্রকাশ

জান্নাতুল বাকিতে ওয়াহাবিদের ধ্বংসযজ্ঞ ওদের ইহুদিবাদী স্বভাবেরই প্রকাশ

৮ শাওয়াল ইসলামের ইতিহাসের এক শোকাবহ দিন। ৯৭ চন্দ্র-বছর আগে এই দিনে ওয়াহাবি ধর্মদ্রোহীরা পবিত্র মক্কা ও মদিনায় ক্ষমার অযোগ্য কিছু পাপাচার ও নজিরবিহীন বর্বরতায় লিপ্ত হয়েছিল। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যখন পবিত্র জান্নাতুল বাকি কবরস্থানে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)'র দ্বিতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ নিষ্পাপ উত্তরসূরির পবিত্র মাজার জিয়ারত

ঈদুল ফিতরের বিশেষ আয়োজন: এলো চির-খুশির ঈদ!!

ঈদুল ফিতরের বিশেষ আয়োজন: এলো চির-খুশির ঈদ!!

ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশির বন্যা। ঈদ যেন অফুরন্ত আনন্দ এবং সাম্য আর শান্তির সর্বোচ্চ পরশ। ঈদ মানে একতা ও মহামিলন। তাই আসুন সবাই বলে উঠি: ঈদ মুবারক! ঈদ মুবারক, আহা! যদি ঈদের আনন্দের বন্যায় ভেসে যেতো করোনাভাইরাস ও সব অন্যায়! কিন্তু করোনা ও অন্যায়-অবিচার যাচ্ছে না কেন?