নভেম্বর ২৫, ২০২১ ১৮:৩২ Asia/Dhaka

বাংলাদেশ সফররত পাকিস্তান ক্রিকেট দল মিরপুর স্টেডিয়ামে অনুশীলন চলাকালে তাদের দেশের পতাকা উড়ানোয় কারণে পাকিস্তান দলের অধিনায়ক বাবর আজমসহ ২১ জন ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে ঢাকার একটি আদালত আদালত।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগঠনের পক্ষে থেক আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটির আবেদন করা হয়। বিচারক আবুবকর সিদ্দিক বিকেলে মামলাটি খারিজ করে দেন।

উল্লেখ্য, দুটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার আমন্ত্রণ পেয়ে গত ১৩ ঢাকায় আসে পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল। ১৫ নভেম্বর পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল তারা মিরপুর স্টেডয়ামে তাদের জাতীয় পতাকা উড়িয়ে অনুশীলন করে।

এদিকে, বাংলাদেশের মুক্তি্যুদ্ধের পঞ্চাশ বছর পূর্তিতে আসন্ন বিজয় দিবসের প্রাক্কালে বাংলাদেশের মাটিতে জাতীয় পতাকা গেড়ে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অনুশীলন এবং খেলার মাঠে পাকিস্তানি জার্সি পড়ে এবং পাকিস্তানি পতাকা নিয়ে  পাকিস্তান দলের পক্ষে সমর্থন জানানোর বিষয় নিয়ে ইতোমধ্যেই বিস্তর সমালোচনা, তর্ক-বিতর্ক ছড়িয়ে পড়েছে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে হয়েছে প্রতিবাদ সমাবেশ। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী বলেছেন আইনগত ব্যবস্থা নেবার কথা।

এ বিষয়ে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির গণমাধ্যমকে বলেন, জামায়াত ইসলামী এবং তাদের সহযোগীদের একটা বিরাট প্রভাব তরুণদের মধ্যে। তাদের একটা 'পাকিস্তানি প্রেম' আছে। পাকিস্তানকে এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চাইতে হবে এবং তাদের এই ঔদ্ধত্যের জন্য বাংলাদেশের কাছে অবশ্যই ক্ষমা চাইতে হবে। না হলে তাদের ক্রিকেট টিমের এই দেশে খেলবার কোনো দরকার নেই।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে, যারা সমালোচনা করছেন তাদের অনেকেই বাংলাদেশের সাথে পাকিস্তানের সম্পর্কের ঐতিহাসিক টানাপড়েনের কথা উল্লেখ করে অনুশীলনের সময় মাঠে পতাকা ওড়ানোকে একটা রাজনৈতিক বার্তা হিসেবে দেখতে চাইছেন। তবে অনেকেই এটাকে খেলোয়াড়ি মেজাজে নেয়ার ব্যাপারেই আগ্রহী।

এ বিষয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের একজন মুখপাত্র বলেছেন, দ্বিপাক্ষিক সিরিজের সময় উভয় দেশের পতাকা প্রদর্শন একটা সাধারণ বিষয়। সুতরাং কোচ চাইলে অনুশীলনের সময়ও পতাকা ওড়াতে পারে। এতে আপত্তি জানানোর মতো কিছু নেই। তারপরও এই ঘটনা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ার পর পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড আনুষ্ঠানিক অনুমতি চেয়েছে বলেও জানান তিনি।

ভারত ও পাকিস্তানের হকি ম্যাচ একদিন পেছাল

মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে আগামী ১৪ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি হকি। এশিয়ান হকির র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ পাঁচ দল যথাক্রমে ভারত, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে র‍্যাঙ্কিংয়ে ৯ম স্থানে থাকা বাংলাদেশ।

এই আসরে ১৬ ডিসেম্বর নির্ধারিত ছিল ভারত ও পাকিস্তানের ম্যাচ। বাংলাদেশের বিজয় দিবসের দিনে ঢাকায় ভারত-পাকিস্তানের হকি ম্যাচটি নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় সূচিতে বদল আনতে উদ্যোগী হয় বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। তাদের আবেদনে সাড়া দিয়েছে এশিয়ান হকি ফেডারেশন (এএইচএফ)। ফলে আগামী ১৬ ডিসেম্বরে হচ্ছে না ম্যাচটি। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটি এক দিন পিছিয়ে হবে ১৭ ডিসেম্বরে।

ম্যাচটি পিছিয়ে দেওয়ার কারণ হিসেবে গণমাধ্যমে বিজয় দিবসের নিরাপত্তাজনিত কারণের কথা বলেছেন হকি ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ। তিনি বলেন, বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে অনেক দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় থাকবেন। যে কারণে ভারত ও পাকিস্তানের মতো দুই দলের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা দেওয়া কঠিন। এ জন্যই আমরা ওই দিনের তিনটি ম্যাচ পিছিয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেছিলাম। এশিয়ান হকি ফেডারেশন আমাদের আবেদনে সাড়া দিয়েছে। তবে সেদিনের ম্যাচ পেছালেও টুর্নামেন্টের বাকি ম্যাচগুলোর তারিখ ও সময় অপরিবর্তিত থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে, করোনা ভাইরাসের কারণে স্থগিত হয়েছিল চ্যাম্পিয়নস ট্রফি হকি। এবারের আসরে স্বাগতিক বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ হবে ১৪ ডিসেম্বর মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। ১৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ খেলবে ভারতের বিপক্ষে। ১৭ ডিসেম্বর বদলে যাওয়া সূচিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া।১৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে জাপানের। গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচটি পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৯ ডিসেম্বর। ২১ ডিসেম্বর হবে দুটি সেমি-ফাইনাল। পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচও হবে একই দিনে। ২২ ডিসেম্বর হবে ফাইনাল।#

পার্সটুডে/আব্দুুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/২৫

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ