ডিসেম্বর ১৮, ২০২১ ১৬:৩৯ Asia/Dhaka
  • মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীমের নেতৃত্বে বিজয় র‍্যালি
    মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীমের নেতৃত্বে বিজয় র‍্যালি

বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আয়োজিত র‍্যালিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নেতারা অভিযোগ করেছেন, দেশের স্বাধীনতা অর্জনের পঞ্চাশ বছর পার হলেও আজ অবধি এদেশের মানুষ তাদের মৌলিক অধিকার, ভোটাধিকার ও বাকস্বাধীনতা থেকে  বঞ্চিত। স্বাধীনতা পাওয়ার পঞ্চাশ বছর পেরিয়ে গেলেও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের নামীয় সরকার আজ পর্যন্ত প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের একটি স্বচ্ছ তালিকা তৈরিতে ব্যর্থ হয়েছে।

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ কর্তৃক আয়োজিত পতাকা র‌্যালিটি বায়তুল মোকাররম উত্তর গেইটে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় প্রদক্ষিণ করে পুরানা পল্টন চত্বরে এসে সকল শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে সংক্ষিপ্ত দোয়া ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

পতাকা র‌্যালি পূর্ব সমাবেশে সংগঠনের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম বলেছেন, বাংলাদেশের বিজয়কে অস্বীকার করে ভারতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী '৭১-এর বিজয়কে পাকিস্থানের সাথে তাদের সৈন্য বাহিনীর বিজয় বলে বক্তব্য দেয়ার দুঃসাহস দেখিয়েছে। ভারতপ্রেমী নৈশ ভোটের সরকার আজ পর্যন্ত জোরালো প্রতিবাদ জানাতেও সক্ষম হয়নি। বরং সরকারের মন্ত্রী এমপিদের ভারতের প্রতি মায়াকান্না দেখে ভাবতেও কষ্ট হয়ে যায় মন্ত্রী-এমপিরা বাংলাদেশের নাকি ভারতের?

মুফতী ফয়জুল করীম আরও বলেন, বিজয়ের এই মাসে দেশের প্রশাসনের উচ্চপদস্থ দায়িত্বশীলদের মার্কিন সরকারের কালো তালিকাভুক্তি দেশের মানুষের জন্য বড় লজ্জার ও বিস্ময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনগণের মৌলিক অধিকার, ভোটের অধিকার, বাকস্বাধীনতা খর্ব করে জোর করে ক্ষমতা দখল করে রেখে সরকারের ছত্রছায়ায় কিছু ব্যক্তি ও গোষ্ঠী হাজার হাজার কোটি টাকা অন্য দেশে পাঁচার করছে। অর্থ, স্বাস্থ্য, শিক্ষাখাতসহ প্রায় সকল খাত আজ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত ও ভঙ্গুর। সর্বত্র চুরি, ডাকাতি, দুর্নীতির কারণে দেশের বিজয় দিবস আজ কলঙ্কিত। দেশের মানুষের মৌলিক অধিকার, ভোটাধিকার ও বাকস্বাধীনতা ফিরিয়ে না দেয়া পর্যন্ত এদেশের জনগণকে আবারও লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সেই লড়াইয়ে নেতৃত্ব দেবে ইনশাআল্লাহ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমাদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আলহাজ্ব আমীনুল ইসলাম, উত্তর সেক্রেটারী মাওলানা আরিফুল ইসলাম, দক্ষিণের সেক্রেটারী আলহাজ্ব আব্দুল আউয়াল প্রমুখ।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/১৮

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

ট্যাগ