জানুয়ারি ০৫, ২০২২ ১০:৪৪ Asia/Dhaka

মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টের শেষ দিনে নিউজিল্যান্ডকে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। সাদা পোশাকে এই প্রথমবার কিউইদের হারানোর ইতিহাস গড়ল টাইগাররা। একই সঙ্গে যেকোনো ফরম্যাটে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রথমবার জয়ের দেখা পেল মুমিনুল হকের দল। দাপুটে এই জয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও পেল প্রথম পয়েন্টের দেখা।

মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টের শেষ দিনে বাংলাদেশের দরকার ছিল স্রেফ ৫ উইকেট। সেটা তুলে নিতে খুব বেশি সময় নেইনি মুমিনুলরা। দ্রুত গুঁটিয়ে যেয়ে বড় লিড নিতে পারল না নিউজিল্যান্ড। মাত্র ৪০ রানের লক্ষ্য পাওয়া বাংলাদেশ দিনের প্রথম সেশেনেই হেসেখেলে জিতে ইতিহাস গড়ল নিউজিল্যান্ডে।

এর আগে ৫ উইকেটে ১৪৭ রানে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করেছিল নিউজিল্যান্ড। মাউন্ট মুঙ্গানুইয়ের বে ওভালে বুধবার (০৫ জানুয়ারি) পঞ্চম ও শেষ দিনে সকালের সেশনে ১০.৪ ওভারের মধ্যে মাত্র ২২ রান তুলতেই বাকি ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬৯ রানে অলআউট হয় টম লাথামের দল। এতে জয়ের জন্য মাত্র ৪০ রানের লক্ষ্য পায় বাংলাদেশ।

সহজ এই লক্ষে খেলতে নেমে ১৬.৫ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে দাপুটে উদযাপনে মাতে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সব ফরম্যাট মিলিয়ে টানা ৩২ ম্যাচ পর বাংলাদেশ এই জয় পেল।

চতুর্থ দিন হুমকি হয়ে দাঁড়ানো কিউই অভিজ্ঞ ব্যাটার রস টেইলরকে এদিন দ্বিতীয় ওভারেই বোল্ড করে ফেরান ইবাদত হোসেন। এই উইকেট পাওয়ার সঙ্গে নিজের ১১ টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথমবার ৫ উইকেট দখল করলেন এই পেসার। ১০৪ বলে ২টি চারে ৪০ রান করা টেইলর ছিলেন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোরার। এরপর জ্বলে ওঠেন তাসকিন আহমেদও। তিনি রাচিন রবীন্দ্রকে (১৬) লিটন দাসের ক্যাচের পরিণত করার পর টিম সাউদিকে বোল্ড করেন।

দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট পাওয়া ইবাদত হোসেনই ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন।

কাইল জেমিসনকে শূন্য রানে শরিফুল ইসলামের ক্যাচ বানান ডানহাতি ইবাদত। আর স্বাগতিকদের শেষ উইকেট হিসেবে ট্রেন্ট বোল্টকে ফেরান স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ।

২১ ওভারে ৪৬ রানে ৬ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সেরা বোলার ইবাদত। বাংলাদেশের কোনো পেসার প্রায় ৯ বছর ও ৪৭ টেস্ট পর টেস্টে ৫ উইকেটের স্বাদ পেলেন। দেশের বাইরে টাইগার কোনো পেসারের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড। দেশ-বিদেশ মিলিয়ে পেসারদের দ্বিতীয় সেরা। এছাড়া তাসকিন ১৪ ওভারে ৩৬ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট ও মিরাজ একটি উইকেট পান।

৪০ রানের সহজ লক্ষ্যে খেলতে নেমে অবশ্য বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় দ্বিতীয় ওভার ও ৩ রানে ওপেনার সাদমানকে হারায়। সাউদির বলে টম ব্লান্ডেলের কাছে ক্যাচ দেন তিনি। এরপর ব্যক্তিগত ১৭ রানে নাজমুল হোসেন শান্ত জেমিসনের শিকার হন। তবে আর কোনো বিপদ হতে দেননি দুই অভিজ্ঞ মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিম। অধিনায়ক মুমিনুল ৪৪ বলে ৩টি চারে ১৩ রানে অপরাজিত থাকেন। আর ৭ বলে ৫ করা মুশফিক জয়ী রানটি তুলে বাংলাদেশকে আনন্দে ভাসান।

এর আগে নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ৩২৮ রানে অলআউট হওয়ার পর বাংলাদেশ জবাবে ৪৫৮ রান করেছিল। যেখানে প্রথম ইনিংসে ১৩০ রানের লিড পায়।

দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট পাওয়া ইবাদত হোসেনই ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন।

মুমিনুল বিশ্বাস করেননি নিউজিল্যান্ডে জেতা সম্ভব

এটা এক কথায় অবিশ্বাস্য: মুমিনুল

নিউজিল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারানোর পর অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল বলেন, 'আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না, কী অনুভব করছি। এটা এক কথায় অবিশ্বাস্য। সত্যি কথা বলতে, আমি গতকাল রাতে ঘুমোতে পারিনি, আজ কী হবে সেটা ভেবে। যখনই ৫ উইকেট পড়ে গেল, মনে হয়েছে ওরা কম রানেই অলআউট হয়ে যেতে পারে।'

তিনি বলেন, ‘আমরা ফল নিয়ে কিন্তু চিন্তা করিনি। আমি এখন বললে হয়তো অনেকে বলবে লোকটা পাগল হয়ে গিয়েছে। আমাদের ভেতরে ছিল, প্রক্রিয়া অনুযায়ী যেন খেলতে পারি। যেমন ব্যাটিংয়ের সময় লক্ষ্য ছিল লম্বা সময় ধরে খেলার। বোলিংয়ে একটা জায়গায় বল করা।’

মুমিনলের ব্যাখ্যা, ‘কাল শেষ বেলায় ইবাদত যখন হঠাৎ করেই উইকেট নিল, তখন মনে হলো, এ টেস্ট জেতার জন্য যাচ্ছি। আজ অল-আউট হওয়ার পর নিশ্চিত হয়েছি। তবে বাড়তি উত্তেজনা কাজ করছিল না। টিভিতে দেখতে থাকলে দেখবেন, আমরা সবাই শান্ত থাকার চেষ্টা করেছি। বল ধরে ধরে খেলার চেষ্টা করেছি—ব্যাটিং, বোলিং। ব্যাটিংয়ে শুরুতে চাপে ছিলাম। মুশফিক ভাই ওই দুইটা রান নেওয়ার পরই মনে হয়েছে জিতেছি।’

প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে আট উইকেটের ঐতিহাসিক জয় পাওয়ায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণমাধ্যমে আজ পাঠানো পৃথক বার্তায় এ অভিনন্দন জানান তাঁরা।

আগামী ৯ জানুয়ারি ক্রাইস্টচার্চে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট মাঠে গড়াবে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/5

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

 

ট্যাগ