জানুয়ারি ১৯, ২০২২ ১৯:১৯ Asia/Dhaka
  • আওয়ামী লীগ ১৪ বছর ধরে লবিস্ট নিয়োগ করে গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে: মোশাররফ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গত ১৪ বছর ধরে লবিস্ট নিয়োগ করে এদেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

আজ (বুধবার) রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যানে মরহুম প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সমাধিতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ অভিযোগ করেন তিনি। এর আগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যদের এবং দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে জিয়াউর রহমানের ৮৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ড. মোশাররফ।

বিএনপি অর্থ ব্যয় করে লবিস্ট ফার্ম নিয়োগ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন জায়গায় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করছে- সরকারের মন্ত্রীদের এই বক্তব্যের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে খন্দকার মোশাররফ বলেন, এই অভিযোগ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। যখন যুক্তরাষ্ট্র থেকে একটি সংস্থা ও উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা এসেছে, যখন বাংলাদেশ গণতন্ত্র সম্মেলনে দাওয়াত পায়নি তখন এই কথাগুলো উঠছে।

তিনি পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের উল্লেখ করে বলেন, গত ১৪ বছর আওয়ামী লীগ অবৈধভাবে ক্ষমতায় থেকে এদেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে, মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে এবং চুরি-ডাকাতি করে এদেশের অর্থ লুণ্ঠন করেছে। বাংলাদেশ আজকে স্বৈরাচারের অধীনে চলছে, এটা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। আর এগুলো ধামাচাপা দেয়া জন্য বিদেশে তারা গত ১৪ বছর যাবত লবিস্ট নিয়োগ করেছে। সব খবর যখন যখন পত্র-পত্রিকায় এসেছে, তখন ভিত্তিহীন ও বানোয়াট কতগুলো ডকুমেন্ট দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। 

খন্দকার মেশাররফ বলেন, জিয়াউর রহমান যে গণতন্ত্র পুনরায় প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, আজকে যারা ক্ষমতায় তারা ২০০৮ সাল থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত যতগুলো নির্বাচন হয়েছে- সেই সব নির্বাচনে গণতন্ত্রকে হত্যা করে নির্বাচন ব্যবস্থাকে তছনছ করে দিয়েছে। আর দেশে আজকে মানবাধিকার নেই। মানবাধিকার লঙ্ঘন করে আজকে এই সরকার বিদেশে বদনাম অর্জন করেছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ওপর সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন খন্দকার মোশাররফ।

এর আগে গতকাল এক টেলিভিশন টক শো’তে অংশ নিয়ে বিএনপি’র সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ বেআইনি নয়। বিএনপি যদি তা করেও থাকে তবে সেটা করেছে নিজেদের টাকায়। আর সরকার গত ১৪ বছর ধরে মানবাধিকার লংঘন, গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ এবং বিচারবহির্ভুত হত্যা-গুম-নির্যাতনের মত গুরুতর অপরাধ ধামাচাপা দেবার জন্য জনগণের হাজার কোটি টাকা খরচ করছে অন্যায়ভাবে।

উল্লেখ্য, সোমবার জাতীয় সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, তিন বছরে বিএনপি দুই মিলিয়ন (২০ লাখ) মার্কিন ডলার (প্রায় ১৭ কোটি টাকা) খরচ করেছে বিদেশ লবিং বা তদবির বাবদ।

সংসদে বক্তব্য দেওয়ার পর ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই গতকাল (মঙ্গলবার) তিনি সাংবাদিকদের কাছে বিরোধী দল বিএনপির লবিংয়ের খরচের আরেকটি নতুন অঙ্ক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, বিএনপির খরচের পরিমাণ ৩ দশমিক ৭৫ মিলিয়ন (সাড়ে ৩৭ লাখ) ডলার (৩২ কোটি টাকার বেশি)।

তিনি আরও জানিয়েছেন যে, সরকার বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে চিঠি লিখে এসব টাকার উৎস ও লেনদেনের বিষয়ে তদন্ত করতে বলবে।

শাহরিয়ার আলম গতকাল সাংবাদিকদের বলেছেন, সরকার বিদেশে কোনো লবিস্ট নিয়োগ করেনি, পিআর (জনসংযোগ) ফার্ম নিয়োগ দিয়েছে সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষা করতে।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/১৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

ট্যাগ