মে ১৩, ২০২২ ১৬:১৫ Asia/Dhaka
  • এবার গ্রেফতার বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয়া সেই তরুণী
    এবার গ্রেফতার বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয়া সেই তরুণী

বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলা বরগুনার বেতাগীতে প্রেমিকের বাড়িতে এক তরুণীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জামালপুরের তরুণী শিখা আক্তার মৌ বিয়ের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া প্রেমিক হাসানের বাসায় টানা ১১দিন ধরে অবস্থান নিয়েছিলেন । আজ শুক্রবার সকালে তাকে গ্রেপ্তারের পর আদালতে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে তাকে বরগুনা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

গত ২৮শে এপ্রিল নিজেকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী দাবি করে এই তরুণী বিয়ের দাবিতে বেতাগী উপজেলার চান্দখালী বাজারের কাঠপট্টি এলাকার বকুল ভিলায় অবস্থান নেন। তখন তিনি দাবি করেন, ওই বাড়ির  বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া যুবক মাহমুদুল হাসানের সঙ্গে তার ঢাকায় পরিচয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক এবং স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে তিন বছর ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন। এখন মাহমুদুল তাকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় তার বেতাকীর বাড়িতে অবস্থান নেয় ।

শিখা আক্তার মৌ-এ আগমনের খবর পেয়েই দরজায় তালা লাগিয়ে পালিয়ে যান মাহমুদুলের পরিবার। এক পর্যায়ে তরুণী দরজার সামনেই অবস্থান নেন। ২৪ ঘন্টার মধ্যে মাহমুদুল হাসান এসে বিয়ে না করলে তিনি আত্মহত্যা করবেন বলে ঘোষণা করেন।

ইতোমধ্যে, গত ২রা মে দুপুরের পর চান্দখালী ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ সোনা মোল্লার উপস্থিতিতে এলাকার অর্ধশত মানুষ ঘরের তালা ভেঙ্গে তরুণীকে ঘরে আশ্রয়ের  ব্যাবস্থা করে দেন। পরে ছেলের মামা ঘটনাস্থলে আসলে তাকেও আটকে রাখা হয়।

অবস্থানে পর থেকে গণমাধ্যমে একেরপর এক সাক্ষাৎকার দিচ্ছিল মৌ। সারাদেশে আলোচিত হতে থাকে তার প্রতিদিনকার বক্তব্য। এক পর্যায়ে জানা যায়, মৌ এর আসল নাম শিখা। তার বাড়ি জামালপুরে। ঢাকার একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে চাকরি করেছেন। বিয়ে হয়েছিলো। সে বিয়ের একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে। মিথ্যা পরিচয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়াই ছিলো তার পেশা। তারই ধারাবাহিকতায় মাহমুদুল হাসানের সঙ্গে মিথ্যা পরিচয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন এই নারী। বিভিন্নভাবে ছবি তুলে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টাও করেন বলে জানা গেছে।

অবস্থানের এগারো  দিন পরে ছেলের বাবা মৌকে তার পুত্রবধূ করবেন বলে আশ্বাস দেন। কিন্তু তার সঙ্গে কিছু শর্ত দেন। তার ছেলের সঙ্গে বিয়ে হতে হলে পূর্বের বিয়ের তালাকনামা নিয়ে আসতে হবে, মেয়ের পরিবার আসতে হবে এবং পারিবারিকভাবে প্রস্তাবের মাধ্যমে বিয়ে হবে। মৌ  বিয়ের শর্ত মানতে রাজী হয় ।

এ অবস্থায়  বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য সাইমুল ইসলাম রাব্বি বিষয়টি আদালতের নজরে এনে মামলার আবেদন করেন। ইতোমধ্যে  বৃহস্পতিবার নতুন একটি মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী পরিবার। বিষয়টি আমলে নিয়ে এজাহারের আদেশ দিয়ে ২৪ ঘন্টার মধ্যে আইনি ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন আদালত।

বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহআলম হাওলাদার জানান, মাহমুদুলের বাবা ওই তরুণীর বিরুদ্ধে আদালতে একটি ভাঙচুর, জনদুর্ভোগ সৃষ্টি, অনুপ্রবেশকারী ও হত্যা চেষ্টার মামলা করেছেন। আদালত সেই মামলা গ্রহণ করতে থানাকে  নির্দেশ দিয়েছেন।#

পার্সটুডে/আব্দুর রহমান খান/১৩

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

 

ট্যাগ