মে ১৫, ২০২২ ১৭:২৫ Asia/Dhaka

জাতীয় সংসদের সাবেক স্পিকার ও বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার অভিযোগ করেছেন, দেশে বর্তমানে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন নেই। মানুষ তার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না।

শনিবার দুপুরে পঞ্চগড় জেলা বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি বলেন, গত ১৫ বছরে দেশে কোনো নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়নি। নিরপেক্ষ নির্বাচন দিলে এখনো বিএনপি ৮০ শতাংশ আসন পাবে। নেতাকর্মীদের ওপর এত মামলা হামলা ও নির্যাতনের পরও এখনো বিএনপি দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল।

আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, 'প্রশাসন ও পুলিশের সাহায্য না নিয়ে মাঠে এসে দাঁড়ান তারপর দেখা যাবে আপনারা কোথায় আছেন আর আমরা কোথায় আছি। বর্তমান নির্বাচন কমিশনেও তাদেরই লোক বসে আছে। তাদের অধীনে নির্বাচন দিলে ফলাফল হবে আগের মতোই। তবে নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে বিএনপি নির্বাচনে যাবে কারণ গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের জন্য বিএনপির জন্ম হয়েছে।'

এ সময় গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য নেতাকর্মীদের এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা। এদিকে, বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান ইসলামী দল -ইসলামী আন্দোলন, বাংলাদেশ-এর যুগ্ম মহাসচিব এবং দলের মূখপাত্র মাওলানা গাজী আতাউর রহমান নির্বাচন ও আন্দোলন প্রসঙ্গে রেডিও তেহরানের কাছে তাদের ধারনা স্পষ্ট করেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের অধীনে একটি সুষ্ট নির্বাচন সম্ভব নয় সেটা পরিষ্কার। তাছাড়া যে তিনটি দল-আওওামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি -ক্ষমতায় ছিল তাদের প্রতি  জনগণের আস্থা নেই। তাই  ইসলামপন্থীদের নিয়ে  আলাদা ঐক্য গঠনের চেষ্টা করছে ইসলামী  আন্দোলন  ।

দেশে একটি সুষ্ঠ নির্বাচনের দাবীতে বিরোধীদের আন্দলন এবং বিএনপি’র ভুমিকা প্রসঙ্গে বাম রাজনৈতিক জোটের সমন্বক সাইফুল হক রেডিও তেহরানকে বলেন, বিএনপিকে নিজেদের মধ্যে গণতান্ত্রিক ঐক্য সুদৃঢ় করতে হবে। আর বড় দল হিসেবে  আন্দোলনে সবাইকে নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাবার জন্য আন্তরিক থাকতে হবে।

এ সময় বাম জোটের ঐক্য উদ্যোগ সম্পর্কেও অবহিত করেন কমরেড সাইফুল হক ওদিকে, দল থেকে বহিস্কার হবার হুমকির তোয়াক্কা না করেই কুমিল্লা (দক্ষিণ) জেলা বিএনপির যুগ্মসাধারণ সম্পাদক এবং কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) দুইবারের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু 'স্বতন্ত্র' প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করার কথা ঘোষণা করেছেন।

দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে মনিরুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, আমি দুইবারের নির্বাচিত মেয়র। ২৭টি ওয়ার্ডে আমার অনেক নেতাকর্মী, সমর্থক রয়েছে। এ ছাড়া লাখো মানুষ আমাকে ভালোবাসে। তারা চায় আমি নির্বাচন করি।

দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে সাক্কু বলেন, সিটি নির্বাচন স্থানীয় সরকারের নির্বাচন। এটা তো জাতীয় নির্বাচন নয়, এখানে স্বতন্ত্র প্রতীকে আমি নির্বাচন করতেই পারি। এর আগেও আমাকে কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্যের পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। এখন যদি জেলা বিএনপি থেকেও বহিস্কার করে আমার তো কিছুই করার নেই।#

পার্সটুডে/আব্দুর রহমান খান/ বাবুল আখতার/১৫

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ