জুন ১৭, ২০২২ ১৫:৩৪ Asia/Dhaka

টানা বৃষ্টি আর উজানের ঢলের কারণে হু হু করে পানি বাড়ছে সিলেট নগরীসহ সবকটি উপজেলায়। বেশিরভাগ এলাকার রাস্তাঘাট বাসাবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সন্ধ্যার পর থেকে দ্রুতগতিতে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাওয়ায় আতঙ্কে রয়েছেন সিলেটের বানভাসি মানুষ। এ নিয়ে নির্ঘুম রাত পার করছেন তারা।

৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে ভারী বর্ষণ ও উজানের ঢলে সিলেট সদর, ছাতক, দোয়ারাবাজার, তাহিরপুর, বিশ্বম্ভপুরে হাজার হাজার বসতঘরে বানের পানি ঢুকে পড়েছে। ছাতক ও সুনামগঞ্জ শহরের শতশত বসত ঘরের নিচতলা কোমর পানিতে ডুবে আছে।

সিলেট নগরীর আখালিয়া এলাকার বাসিন্দা হাসান বলেন, আমার বাড়িতে কোনোদিনই পানি ঢুকেনি। কিন্তু রাত ১০টার পর থেকে আমার বাড়ির উঠানে পানি প্রবেশ করেছে। চারদিকে এত বন্যার পানি আগে আমি কখনোই দেখিনি। যত সময় যাচ্ছে পানির উচ্চতা ততই বাড়ছে। এ অবস্থায় বাসাবাড়িতে আমার পরিবার নিয়ে খুব আতঙ্কের মধ্যেই রাত পার করছি।

অপরদিকে সিলেট নগরীর আরেক বাসিন্দা সোহাগ বলেন, এখন মধ্যরাত। আমার ঘরে হাঁটু পর্যন্ত পানি। সকাল না হলে পরিবার নিয়ে অন্য কোথাও বেরিয়ে যেতে পারব না।

সিলেটের লামাগাজীর আরেক বাসিন্দা গণমাধ্যমকর্মী আবদাল বলেন, রাত ১০টার দিকে আমাদের বাসার ভেতরে পানি ঢুকে যায়। সেই সাথে চলছে টানা বৃষ্টি। বিভিন্ন ধরনের পোকা-সাপের ভয়ে আছি।

তিনি বলেন, পুরো এলাকা বিদ্যুতহীন হয়ে পড়েছে।চার্জ দিতে না পারায় বন্ধ রয়েছে মোবাইল ফোন। ফলে সবার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।তাতে বিপাকে পড়েছেন বানভাসিরা।ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন বলে জানান তিনি।

সিলেটের আট উপজেলায় কাজ শুরু করেছে সেনাবাহিনীর সাত ব্যাটেলিয়নের সদস্যরা। দুপুর থেকে তারা উদ্ধার অভিযান শুরু করে। সিলেট সদর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, ছাতক, দিরাই, দোয়ারাবাজারে সেনা সদস্যরা পানিবন্দি লোকজনকে উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঝুঁকির মুখে রয়েছে সিলেট বিদ্যুৎ স্টেশন।#

পার্সটুডে/মো.আবুসাঈদ/১৬

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ