২০১৯-০৮-১২ ১২:২৪ বাংলাদেশ সময়
  • বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদের নামায শেষে দুই শিশুর কোলাকুলি
    বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদের নামায শেষে দুই শিশুর কোলাকুলি

বাংলাদেশে যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য আর আনন্দ-উৎসাহের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদ-উল আজহা। আজ (সোমবার) সকালে ঈদের নামাজ আদায় শেষে মুসল্লিরা দেশ, জাতি ও মুসলিম জাহানের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। এরপর তারা একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

রাজধানীতে আজ সকাল ৭টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে প্রথম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতী মুহিবুল্লাহিল বাকী নদভী। এরপর সেখানে আরও চারটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

ঈদুল আজহার প্রধান জামাত জাতীয় ঈদগাহে সকাল ৮টায় শুরু হয়। এ জামাতে প্রেসিডেন্ট, মন্ত্রিসভার সদস্য, কূটনৈতিকসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নামাজ আদায় করেন। পরে তাঁরা একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের জ্যেষ্ঠ ইমাম মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে নামাযে অংশ নেন প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ

শোলাকিয়ায় লাখো মুসল্লির ঢল

নামাজ শেষে সমগ্র মুসলিম উম্মাহসহ দেশ ও জাতির কল্যাণ, সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঈদগাহটির ১৯২তম এ জামাত শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণে মোনাজাত করা হয়।

আজ সকাল সাড়ে ৮টায় দেশের অন্যতম এ ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন মাওলানা মো. হিফজুর রহমান খান।

ঐতিহাসিক শোলাকিয়ায় শান্তিপূর্ণভাবে ঈদের নামাজ আদায়

দিনাজপুরে দেশের সবচেয়ে বড় ঈদ জামাতে ৪ লাখ মুসল্লি

উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ঈদগাহ ময়দান দিনাজপুরে দেশের সবচেয়ে বড় ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আয়োজকদের দাবি, এতে অংশ নিয়েছেন প্রায় ৪ লাখ মুসল্লি।

আজ সকাল সাড়ে ৮টায় দিনাজপুর বড় ময়দানে এ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ঈদগাহ মিনার নির্মাণের মূল উদ্যোক্তা জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম, পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে সরকারি-বেসরকারি ভবন ও বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোয় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এ ছাড়া ‘ঈদ মোবারক’ লিখিত ব্যানার ঢাকা মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ ট্রাফিক আইল্যান্ড ও লাইটপোস্টে প্রদর্শিত হচ্ছে। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে সরকারি ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ সামরিক স্থাপনাগুলোতে আলোকসজ্জা করা হয়।

প্রায় চার হাজার বছর আগে আল্লাহ পাকের সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে হজরত ইব্রাহিম (আ.) নিজ পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানি করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হজরত ইসমাইল (আ.)-এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর ত্যাগের মহিমার কথা স্মরণ করে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে আল্লাহপাকের অনুগ্রহ লাভের আশায় পশু কোরবানি করে থাকে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১২

ট্যাগ

মন্তব্য