২০১৯-১০-২২ ০২:৪৯ বাংলাদেশ সময়
  • মাশরাফি বিন মুর্তজা
    মাশরাফি বিন মুর্তজা

১১ দফা দাবিতে ধর্মঘট ডেকেছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। দাবি না মানা পর্যন্ত কোনো ধরনের ক্রিকেটে নিজেদের সম্পৃক্ত করবেন না দেশের ক্রিকেটাররা। চার সিনিয়র ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের উপস্থিতিতে সোমবার বিকেলে মিরপুর একাডেমি মাঠে এমন ঘোষণা দেন ক্রিকেটাররা।

৫০-৬০ জন ক্রিকেটার এদিন মিরপুরে উপস্থিত হলেও বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে দেখা যায়নি। মাশরাফির অনুপস্থিতি স্বভাবতই অনেক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছিল। এমন দিনে তাঁর না থাকা অবাক করেছিল অনেককেই। ঘটনার ১০ ঘণ্টা পর রাত পৌনে ১২টার দিকে নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে মাশরাফি নিজেই তাঁর না থাকার কারণ জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, ক্রিকেটারদের এই আন্দোলন সম্পর্কে তিনি কিছুই জানতেন না। তবে ক্রিকেটারদের প্রতিটি দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন তিনি। এমন আন্দোলনে থাকা না থাকার চেয়ে দাবি আদায় বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন তিনি। মাশরাফির ফেসবুক পোস্টটি তুলে ধরা হলো-

মাশরাফীর ফেসবুক স্ট্যাটাস

“অনেকেই প্রশ্ন করছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটি দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটি আমাকে না করে, ওদেরকে করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয়ই বেশ কিছু দিন ধরেই এটি নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিল। কিন্তু এ সম্পর্কে আমার কোনো ধারণাই ছিল না। সংবাদ সম্মেলন দেখে আমি ওদের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে পেরেছি।

ক্রিকেটারদের নানা দাবির সঙ্গে আমি আগেও একাত্ম ছিলাম, এখনো আছি। আজকের পদক্ষেপ সম্পর্কে আগে থেকে জানতে পারলে অবশ্যই আমি থাকতাম।

মিডিয়ায় ওদের খবর দেখার পর থেকে হাজারবার আমার মাথায় এই প্রশ্ন এসেছে, যে কেন আমাকে জানানো হলো না। অনেকে আমার কাছে জানতেও চেয়েছেন। কিন্তু আমি নিজেও জানি না, কেন জানানো হয়নি।

তবে আমার উপস্থিত থাকা কিংবা না থাকার চেয়ে, ১১ দফা দাবি বাস্তবায়িত হওয়াই বড় কথা। সব কটি দাবিই ন্যায্য, ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের মঙ্গলের জন্য জরুরি। আমি মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা, ১১ দফা দাবি শান্তিপূর্ণ ভাবে বাস্তবায়িত হওয়ার পক্ষে আছি, থাকব।“

এর আগে, সোমবার দুপুরে এক নজিরবিহীন সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররা নিজেদের দাবি-দাওয়া তুলে ধরেন। বেতন বাড়ানোসহ ১১ দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সব ধরনের খেলা থেকে বিরত থাকবেন বলে হুঁশিয়ারি দেন তারা। এতে করে চলমান জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) তো বটেই, ভারতে আসন্ন সফরও হুমকির মুখে পড়ে।

এ সংবাদ সম্মেলনের পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) বলছে, তারা ক্রিকেটারদের এসব দাবি-দাওয়ার বিষয়ে আগে থেকে কিছুই জানতেন না। আনুষ্ঠানিকভাবে দাবিগুলো তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হলে তারা এ বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। পরে জানা যায়, মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় জরুরি সভা ডেকেছে বিসিবি।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/ ২২

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য