২০১৯-১১-১৫ ০২:২৬ বাংলাদেশ সময়
  • জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
    জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মিশর ও তুরস্ক থেকে  ৫০ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি করে টিসিবির মাধ্যমে তা সারাদেশে বিক্রি করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার রাতে একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। অধিবেশনের সভাপতিত্ব করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর কোন কোন দেশে পেঁয়াজ পাওয়া যায় তা দেখছি। মিশর ও তুরস্ক থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টনের এলসি করা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে এই পেঁয়াজ আসলে জেলা জেলায় চলে যাবে। টিসিবির মাধ্যমে বিক্রি করা হবে। টিসিবি বর্তমানে ৪৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। এ ব্যাপারে আমরা যথেষ্ট সচেতন আছি। একথা ঠিক আমাদের দেশে একটি মৌসুমে পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। কীভাবে ১২ মাস উৎপাদন করা যায় বীজ আবিষ্কার হয়েছে এখন বাজারে বিক্রি করা হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, একজন সংসদ সদস্য বলেছেন ভারতে পেঁয়াজের কেজি আট রুপি এটা ঠিক না। এটা বিক্রি হচ্ছে একটি স্টেটে। সেখান থেকে পেঁয়াজ বাইরে আসতে দেওয়া হচ্ছে না। ভারত বর্ষে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ রুপিতে। ভারতও পেঁয়াজ আমদানি করছে। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছিল আমার অনুরোধে এলসি করাগুলো দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অভিযান চালানোর কথা বলা হচ্ছে, অভিযান চালাচ্ছি না তা না। অনেক জায়গায় দেখা গেছে পেঁয়াজ আছে, পেঁয়াজ পচে যাচ্ছে। আমরা অভিযান চালাচ্ছি। বাইরে থেকেও পেঁয়াজ আনার ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশে পেঁয়াজের কেজি ২০০ টাকা: জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ

দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে আমরা বিশ্বের দরবারে একটা মর্যাদার আসনে নিয়ে এসেছি। আমি জানি দেশের কিছু লোকের এটা পছন্দ হয় না। একটি চক্র আছে যারা নানাভাবে একটা ঘটনা ঘটিয়ে দেশের বিরুদ্ধে একটা বদনাম করতে পারলেই বেশি খুশি হয়। পদ্মা সেতুর মতো একটি বড় প্রকল্প বন্ধ করার জন্য যারা বিদেশে তদবির করে বিশ্বব্যাংকের টাকা বন্ধ করে দেয়, তারা দেশের কতবড় শত্রু সেটা সবাইকে বিবেচনা করতে হবে। এরা কখনো জনগণের স্বার্থ দেখে না, নিজের স্বার্থ দেখে। কিন্তু সকল চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র ভেদ করেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ইনশাআল্লাহ বাংলাদেশকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা পালন করব ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে। বাংলাদেশ বিজয়ের পতাকা নিয়েই বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে।

সংসদ নেতা আরও বলেন, ‘ট্রেন দুর্ঘটনার কথা বলা হয়েছে। দুর্ঘটনা দুর্ঘটনাই। কুয়াশার কারণে কসবার দুর্ঘটনা ঘটেছে, সেজন্য আমি দুঃখিত। অনেকে নিহত হয়েছেন। আহতদের ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসব ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে আমরা আছি। আজ একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে এ দুর্ঘটনার পেছনে অন্যকোনো চক্রান্ত বা দুরভিসন্ধি আছে কিনা না, তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা দেখি একটি দুর্ঘটনা যখন ঘটে। এরপরই আরেকটি দুর্ঘটনা ঘটে। শীতকাল আসছে তাই ট্রেন দুর্ঘটনা বাড়তে পারে। বিষয়টি নিয়ে কী করা যা  তা আমরা দেখব।’

নিজের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাঁর কঠোর অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রসঙ্গেও কথা বলেন সংসদ নেতা।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৪

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

 

 

ট্যাগ

মন্তব্য