জানুয়ারি ১৭, ২০২০ ১৬:২৪ Asia/Dhaka
  • বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
    বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বাংলাদেশে আসন্ন ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপির সমর্থনে জনগণ রাস্তায় নেমে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ (শুক্রবার) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ ‘নির্বাচনে আস্থাহীনতা, ইভিএম’র ব্যবহার: বর্তমান প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এ গোলটেবিল আলোচনা আয়োজন করে।

বিএনপির জোয়ার অব্যাহত থাকবে জানিয়ে মহাসচিব বলেন, নির্বাচনে যে মিছিল হচ্ছে, সেখানে অনেক বেশি পরিমাণ মানুষ অংশগ্রহণ করছে। মানুষ পরিবেশ পাওয়ার কারণেই এতে অংশ নিচ্ছে। তাদেরকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারলে আন্দোলনেও সফল হবে বিএনপি। এসব বিবেচনা করে বিজয়ী হওয়ার জন্যই সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তারা।

তিনি আরও বলেন, প্রতি মুহূর্তেই আন্দোলনের মধ্যে আছে বিএনপি। ভোটে যাওয়াও আন্দোলনের অংশ। যখন আলোচনা সভা হয়, সেটাও আন্দোলনের অংশ। সবকিছু নিয়ে একটা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের দিকে যাওয়ার চেষ্টা চলছে। ভুল-ত্রুটি আছে, থাকতেই পারে। তাও প্রতি মুহূর্তে সফলতার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে বিএনপি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, নির্বাচনের সংকটই সংকট নয়। সংকট সামগ্রিকভাবে সারাদেশের। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একে একে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে অত্যন্ত সুকৌশলে, সুপরিকল্পিতভাবে, সুচিন্তিতভাবে ধ্বংস করে দিয়েছে।

Image Caption

অনুষ্ঠানে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আগামী ৩০ জানুয়ারির ভোট কোনও ভোট নয়। ওই তারিখে ধানের শীষ জিততে পারবে না। ওরা জিততে দেবে না। যদি ভোট হতো তাহলে নৌকারই খবর থাকতো না। সেই জন্যই সমস্ত বুদ্ধি-শুদ্ধি করেছেন তারা।

ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ইভিএম যে একটা গজব এটা আমরা সবাই বুঝি। নির্বাচন কমিশনকে পেছন থেকে কেউ ইভিএম আমদানি করিয়েছে নিজেদের জন্য। কারণ ২০১৮ সালের কায়দার আর ভোট ডাকাতির সুযোগ নাই। তাই তারা ভিন্ন পথ নিয়েছে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি শওকত মাহমুদ বলেন, ভোট কারচুপির বিজ্ঞানসম্মত উপায় হলো ইভিএম। সরকার অসৎ উদ্দেশ্যে ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এর বিরুদ্ধে গণজাগরণ তৈরি করতে হবে।#

পার্সটুডে/শামস মন্ডল/গাজী আবদুর রশীদ/১৭

 

ট্যাগ

মন্তব্য