জুন ২৯, ২০২০ ১৮:৪৮ Asia/Dhaka
  • করোনার সংক্রমণ একদিনে ৪ হাজার ছাড়িয়েছে, নমুনা পরীক্ষার ফি প্রবর্তন

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগীর একদিনের সর্বোচ্চ সংখ্যা ৪ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরো ৪৫ জন। এ নিয়ে এ যাবৎ মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭৮৩ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ অনলাইন ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, আজ (সোমবার) সকাল ৮টায় সমাপ্ত গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে  ৪ হাজার ১৪ জনের দেহে। এ নিয়ে সব মিলিয়ে এ যাবৎ শনাক্ত হয়েছেন ১ লাখ ৪১ হাজার ৮০১ জন।

ব্রিফিংয়ে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৫৩ জন। সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৫৭ হাজার ৭৮০ জন।

ব্রিফিংয়ের তথ্যমতে, ১৭ হাজার ৮৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়। এর আগের দিন ১৮ হাজার ৯৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৭ লাখ ৪৮ হাজার ৩৪টি নমুনা।

দেশে ৬৮টির মধ্যে ৬৫টি ল্যাবে (পরীক্ষাগার) করোনা পরীক্ষার ফল পাওয়া গেছে। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

এ সময় করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে অনুরোধ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। অনলাইন ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, মায়ের দুধে করোনা ছড়ায় না, তাই শিশুকে বুকের দুধ পান করান। দুধ পান করানোর সময় মায়েরা মুখে মাস্ক পড়ুন।

করোনা টেস্টের জন্য লাইন

নমুনা পরীক্ষার ফি প্রবর্তন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্তকরণে নমুনা পরীক্ষার ওপর ফি নির্ধারণ করেছে সরকার। করোনা পরীক্ষার আরটি-পিসিআর টেস্টের ফি নির্ধারণ করে রোববার পরিপত্র জারি করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ।

সরকারী নির্দেশনায় বলা হয়েছে, “সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার নিমিত্তে ‘অপ্রয়োজনীয় কোভিড টেস্ট’ পরিহার করার লক্ষ্যে” আরটি-পিসিআর টেস্টের জন্য এখন থেকে বুথ থেকে নমুনা সংগ্রহের জন্য ২০০ টাকা, বাসা থেকে নমুনা সংগ্রহের ক্ষেত্রে ৫০০ টাকা এবং হাসপাতালে ভর্তি রোগীর ক্ষেত্রে ২০০ টাকা ফি দিতে হবে।

স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের পরিপত্রে বলা হয়, বর্তমানে আরটি-পিসিআর টেস্ট-এর মাধ্যমে করোনার সংক্রমণ নির্ণয় বিনামূল্যে থাকার কারণে অধিকাংশ মানুষই উপসর্গ ছাড়াই এর সুযোগ নিচ্ছেন। এখন থেকে সব সরকারি হাসপাতালে উল্লিখিত হারে ফি নেওয়া হবে।

দেশে করোনার সংক্রমণের পর প্রথম একমাত্র আইইডিসিআরের মাধ্যমে নমুনা পরীক্ষা করা হতো। ধাপে ধাপে তা বেড়ে বর্তমানে ৬৮টি ল্যাবরেটরিতে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় গত ২৯ এপ্রিল চারটি বেসরকারি হাসপাতালকে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার সুযোগ দেয় সরকার। পরে আরও কয়েকটি হাসপাতালে এ সুবিধা দেওয়া হয়। এসব হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষার জন্য সাড়ে তিন হাজার টাকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

‘দুর্গত মানুষের ওপর নতুন অত্যাচার’

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সরকারের এ সিদ্ধান্তকে 'মহামারী দুর্গত মানুষের ওপর নতুন অত্যাচার' বলে আখ্যায়িত করেছে।

আজ গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে করোনা পরীক্ষায় ফি নির্ধারণের সিদ্ধান্তে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই সিদ্ধান্ত মহামারি দুর্গত মানুষের কষ্টের বোঝা আরো বৃদ্ধি করবে। করোনা মহামারিতে এমনিতেই মানুষের জীবনে দুর্ভোগ ও দুর্গতির শেষ নেই। এই অবস্থায় নতুন করে করোনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণ পুরোপুরি অযৌক্তিক।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, করোনার পরীক্ষা ও চিকিৎসার যাবতীয় দায়দায়িত্ব যেখানে সরকারের বহন করা দরকার সেখানে এই দায়িত্ব এড়িয়ে ফি নির্ধারণ ভুক্তভোগী মানুষের ওপর নতুন করে অত্যাচারের শামিল।

বিবৃতিতে করোনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণের সিদ্ধান্ত অনতিবিলম্বে বাতিল, করোনা চিকিৎসা নিয়ে সকল ধরনের বাণিজ্য বন্ধ এবং করোনা মহামারি উত্তরণে নতুন অর্থ বছরের বাজেটে চিকিৎসা খাতে বর্ধিত বরাদ্দের দাবি জানানো হয়।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/২৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য